নেতাকর্মীদের শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রে থাকার নির্দেশ আ’লীগের

  যুগান্তর রিপোর্ট ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফলাফল

ভোটের ফলাফল না হওয়া পর্যন্ত আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আজ সার্বক্ষণিক ভোট কেন্দ্রে থাকার আহ্বান জানিয়েছে দলটি। আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শনিবার দলের পক্ষ থেকে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন আহ্বান জানান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান।

বিএনপি শেষ মুহূর্তে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবে বলে প্রচার রয়েছে জানিয়ে আবদুর রহমান বলেন, ভোটার, আমাদের দলের নেতাকর্মী এবং দেশবাসীকে আমরা জানাতে চাই- এটা বিএনপির এক ধরনের অপকৌশল। সরে যেতে পারে- এ কৌশল নিয়ে সবাইকে অপ্রস্তুত করে তারা কেন্দ্র দখল করতে পারে। আমরা সবাইকে বলব, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত কেন্দ্রে থাকতে হবে, ভোটারদের কেন্দ্রে নিয়ে আসতে হবে।

ভোটের ফলাফল না হওয়া পর্যন্ত কেন্দ্রে থাকতে হবে। আগামীকালের (আজ রোববার) নির্বাচনে সব সন্ত্রাস, নির্বাচন বানচালের সব ষড়যন্ত্র, নৈরাজ্য প্রতিহত করে শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে আবদুর রহমান বলেন, বর্তমানে যে সরকার ক্ষমতায় আছে, এ সরকারের অধীনে নির্বাচন হচ্ছে না। নির্বাচন হচ্ছে স্বাধীন নির্বাচন কমিশনের অধীনে। আমরা আশা করি, জনগণ এ সরকারের উন্নয়ন ধারাবাহিকতা রক্ষায় বিপুল ভোটে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করবে। তবে এরপরও যদি জনগণ আমাদের ভোট না দেয়, নির্বাচনে যে ফলাফল হবে আমরা সেটা মেনে নেব, স্বাগত জানাব। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইতিমধ্যে বিএনপি বিভিন্ন জায়গায়, বিভিন্ন দরজায় দৌড়াদৌড়ি করছে। সর্বশেষ রাম মাধবের (ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সাধারণ সম্পাদক) সঙ্গে ব্যাংককে বৈঠক করার চেষ্টা করেছে। সে চেষ্টা সফল হয়নি। বিজেপি বৈঠক করতে রাজি হয়নি। বিএনপির রাজনীতির নির্ভরতার জায়গা ও আশ্রয়স্থল হল- বিদেশি কূটনীতিকদের বাংলাদেশ সম্পর্কে ভিন্ন ধারণা দেয়া, বিএনপি যেন ক্ষমতায় আসতে পারে, সে ব্যাপারে তাদের সাহায্য প্রার্থনা করা।

বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দিকে ইঙ্গিত করে আবদুর রহমান বলেন, জনগণ বিবর্জিত রাজনৈতিক দল বা রাজনৈতিক জোট প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে বিভিন্ন জায়গায় ধর্ণা দেয়া এবং গোপন বৈঠকে বসার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। এটা নতুন কিছু নয়। বাংলাদেশের জনগণ এ ধরনের সব অপতৎপরতাকে রুখে দিয়ে নির্বাচনে শেখ হাসিনাকে পুনরায় নির্বাচিত করবে।

আবদুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগ কখনও জনগণের ভোট ছাড়া অন্য কোনো পথে ক্ষমতায় আসেনি এবং চিন্তাও করেনি। অনেকবার জনগণের নিরঙ্কুশ সমর্থন থাকার পরও ষড়যন্ত্র-ক্যু’র মাধ্যমে, বুলেটের মুখে আওয়ামী লীগের বিজয়কে কেড়ে নেয়ার চেষ্টা হয়েছে। তারপরও শত দুরবস্থা ও সংকটের মুখে আওয়ামী লীগ কখনও গণতন্ত্রের মাঠ ছেড়ে যায়নি।

শত অত্যাচার, নির্যাতন সহ্য করে জনগণের সঙ্গেই থেকেছে আওয়ামী লীগ। দল বিশ্বাস করে জনগণের ব্যালটই হবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা পরিবর্তনের একমাত্র হাতিয়ার, এটাই আওয়ামী লীগের একমাত্র রীতি। তিনি বলেন, আগামীকালের (আজ রোববার) ভোটের ওপর নির্ভর করবে দেশে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে, নাকি আবার দেশ মুখথুবড়ে পড়বে। আমরা আশা করি, আগামীকালের (আজ রোববার) নির্বাচনে জনগণের ভোটে শেখ হাসিনা চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন। উন্নয়নের নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বিএম মোজাম্মেল হক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আবদুস সবুর, উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×