বেআইনি ব্যাংকিংয়ে ৬ সমবায়ী প্রতিষ্ঠান

  সাদ্দাম হোসেন ইমরান ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যাংক

প্রচলিত আইন ভঙ্গ করে বেআইনিভাবে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে দেশের ৬টি সমবায়ী প্রতিষ্ঠান। বিষয়টি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরে আসার পর এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সমবায় অধিদফতরকে বলা হয়েছে।

একই সঙ্গে যেসব প্রতিষ্ঠান বেআইনিভাবে নিজেদের নামের শেষে ব্যাংক শব্দটি লিখছে তা বাদ দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে সমবায় অধিদফতরে চিঠি দেয়া হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড, আজিজ কো-অপারেটিভ কমার্স অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড, দি ঢাকা আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড, দি স্মল ট্রেডার্স কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড, মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড এবং ক্রিসেন্ট মাল্টি পারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড (ক্রিসেন্ট কো-অপারেটিভ ব্যাংক)।

এ বিষয়ে সমবায় অধিদফতরের অতিরিক্ত নিবন্ধক (অডিট ও আইন) আহসান কবির বলেন, যেসব কো-অপারেটিভ প্রতিষ্ঠান নামের শেষে ব্যাংক শব্দ ব্যবহার করে আমানত সংগ্রহ করছে সেগুলোর বিরুদ্ধে আইন ও বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। শুধু তাই নয়, ভুয়া সমবায় সমিতি চিহ্নিত করতে বিভাগীয় কার্যালয়গুলোতে চিঠি দেয়া হয়েছে। এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সূত্র জানায়, প্রচলিত আইন অনুযায়ী কোনো প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ব্যাংকের লাইসেন্স ছাড়া ব্যাংকিং কার্যক্রম চালাতে পারে না। একই সঙ্গে আর্থিক খাতের কোনো প্রতিষ্ঠান নিজেদের নামের শেষে বা কোনো অংশে ব্যাংক শব্দটি ব্যবহার করতে পারে না। এই আইন ভঙ্গ করে দেশের ৬টি সমবায়ী প্রতিষ্ঠান বেআইনিভাবে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালাচ্ছে।

প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী, কোনো সমবায়ী প্রতিষ্ঠান সদস্যদের বাইরে অন্য কোনো ব্যক্তির কাছ থেকে আমানত নিতে পারে না। কিন্তু সমবায়ী প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সদস্য নয় এমন ব্যক্তিদের কাছ থেকেও ঋণ নিচ্ছে। এ ধরনের কর্মকাণ্ডকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ‘ব্যাংকিং কার্যক্রম’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক তদন্তে এসব ঘটনা ধরা পড়েছে। এর ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সমবায়ী প্রতিষ্ঠানের নিয়ন্ত্রক সংস্থা সমবায় অধিদফতরকে এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সুপারিশ করে। পরে সংশ্লিষ্ট সমবায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিঠি দেয়া হলে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এর বিরুদ্ধে মামলা করে এবং আদালত চিঠির কার্যকারিতা স্থগিত করে দেয়। যে কারণে ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সূত্র জানায়, বিষয়টি মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে ও দমন কার্যক্রম জোরদারকরণের লক্ষ্যে গঠিত কেন্দ্রীয় ট্রাস্কফোর্সের সভায় উপস্থাপিত হলে ওইসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পথ খোলার তাগিদ দেয়া হয়। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত, এর আগে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার দায়ে ইসলামিক ট্রেড অ্যান্ড কমার্স লিমিটেড (আইটিসিএল) ও ‘যুবক’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। বর্তমানে এসব প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×