জীবিতকে মৃত দেখিয়ে তিন আসামির জামিন

পাঁচবিবি থানার ওসিকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ

  জয়পুরহাট প্রতিনিধি ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জামিন

জেলার জয়পুরহাট সদর ও পাঁচবিবি থানায় দায়ের করা পৃথক তিন মামলায় তিন আসামির বাবা, স্ত্রী ও বোনকে মৃত দেখিয়ে তাদের জামিন নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর তিন আসামির মধ্যে আতোয়ার হোসেনের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

একই সঙ্গে পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) মৃত দেখানো তিন ব্যক্তি সম্পর্কে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

তিন মামলার আসামিরা হচ্ছে- জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার পৌর এলাকার বালিঘাটা বাজারের আমির হোসেন ওরফে সোহেল, একই উপজেলার কুয়াতপুর গ্রামের ইব্রাহিম হোসেন ও বাগজানা ইউনিয়নের কয়া গ্রামের আতোয়ার হোসেন।

জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি থানা সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ১১ ডিসেম্বর মাদকবিরোধী আভিযান চালিয়ে পুলিশ জয়পুরহাট শহরের বিশ্বাসপাড়া থেকে ১০ পিস ইয়াবাসহ ইব্রাহিম হোসেনকে গ্রেফতার করে। ওইদিনই সদর থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

আসামি আমির হোসেনকে গত বছরের ১৯ নভেম্বর পাঁচবিবি পৌরসভার বালিঘাটা বাজার কলোনির একটি বাড়ি থেকে ২০ পিস ইয়াবাসহ আটক করে পুলিশ। পরদিন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দিয়ে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

অপরদিকে গত বছরের ২১ নভেম্বর পাঁচবিবি উপজেলার আয়মা রসুলপুর ইউনিয়নের ছোট মানিক মোড় থেকে আসামি আতোয়ারকে ১৮ বোতল ফেনসিডিল ও তাকে বহন করা একটি ইজিবাইকসহ পুলিশ আটক করে। ওই রাতেই আটক ওই ইজিবাইকের চালকসহ তার বিরুদ্ধে পাঁচবিবি থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

সংশ্লিষ্ট আদালত সূত্রে জানা গেছে, জামিন নেয়ার সময় আসামি ইব্রাহিম হোসেনের জীবিত বোন আনোয়ারা বেগম, আসামি আমির হোসেনের জীবিত স্ত্রী ইয়াসমিন এবং আসামি আতোয়ার হোসেনের জীবিত বাবা নাজির উদ্দিনকে মৃত দেখানো হয়েছে।

প্রমাণ হিসেবে পাঁচবিবি পৌরসভা, বাগজানা ও কুসুম্বা ইউনিয়ন পরিষদের মৃত্যুসনদ দাখিল করা হয়েছে। তবে ওইসব সনদ মিথ্যা, জাল ও ভুয়া দাবি করে ওই তিন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর কাছে প্রত্যয়নপত্র পাঠানো হয়েছে। যেখানে মৃত ওই ব্যক্তিরা জীবিত আছেন বলেও জানানো হয়েছে।

এ মামলার আইনজীবী নাজমুল ইসলাম জনি তিনটি মামলায় জামিন শুনানিতে অংশ নেয়ার কথা স্বীকার করলেও তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন, আসামিদের তদবিরকারীদের দেয়া তথ্য তিনি আদালতে উপস্থাপন করেছেন। তিনি আরও বলেন, ‘অবকাশকালীন আদালতে তদবিরকারীদের দেয়া তথ্য ভুল না সঠিক, তা ব্যাখ্যা করার সুযোগ নেই। আমরা সরল বিশ্বাসে তাদের দেয়া তথ্য আদালতে উপস্থাপন করি।’

পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলার রহমান বলেন, ‘আদালতে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে জামিন নেয়া তিনটি মামলার বিষয়ে আদালত থেকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ পাওয়ার পর দু’জনের বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। অপর একজনের প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হচ্ছে, শিগরিই জমা দেয়া হবে। মৃত দেখানো তিন ব্যক্তির সবাই জীবিত রয়েছে।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×