মেঘনায় নিখোঁজ শ্রমিকদের সন্ধান মেলেনি ৪ দিনেও

  যুগান্তর রিপোর্ট, মুন্সীগঞ্জ ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মুন্সীগঞ্জের মেঘনা নদীতে ডুবে যাওয়া মাটিবোঝাই ট্রলার ও নিখোঁজ ২০ শ্রমিকের সন্ধান মেলেনি ৪ দিনেও। ট্রলারডুবির ঘটনার পর থেকে উদ্ধার অভিযানে অংশ নেন নৌপুলিশ, নৌবাহিনীর ডুবুরি দল, জেলা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও বিআইডব্লিউটিএ’র সদস্যরা। শুক্রবার সকালেও উদ্ধার অভিযানে নামে নৌযান উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়, নৌযান শনাক্তকারী বিশেষ জাহাজ অগ্নিশাসক।

জানা গেছে, বিআইডব্লিউটিএ’র সাইড স্ক্যানার সোনার ও হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভের মাধ্যমে ডুবে যাওয়া ট্রলারটির অনুসন্ধান করা হচ্ছে। এছাড়া নদীজুড়ে নৌবাহিনীর জাহাজ দিয়ে রশি বেঁধে বড়শির মতো (গেরাপি) দিয়ে টেনে নদীর তলদেশে অবস্থান নির্ণয় করার চেষ্টা করেও সফলতা পাওয়া যায়নি।

এদিকে ট্রলারডুবির ঘটনা তদন্তে মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোবাশ্বেরুল ইসলামকে প্রধান করে ৯ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি করেছে জেলা প্রশাসন। বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর মোজাম্মেল হক বলেন, ডুবে যাওয়া ট্রলারের দৈর্ঘ্য প্রায় ১৫০ ফুট। এসব নৌযানের কোনো অনুমোদন বিআইডব্লিউটিএ দেয় না, এগুলো সম্পূর্ণ অবৈধ। এছাড়া ট্রলারটির কোনো নামও নেই। এর মালিককেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ট্রলারটির চালকও পলাতক। ফলে দুর্ঘটনাস্থলও সঠিকভাবে নির্ণয় করা সম্ভব হচ্ছে না। সোমবার রাত ৩টায় চাঁদপুরের মতলব উপজেলা ও মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী কালীপুরা এলাকা সংলগ্ন মেঘনা নদীতে ট্যাংকারের ধাক্কায় ওই ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে। ট্রলারে ৩৪ জন শ্রমিক ছিলেন। এর মধ্যে ১৪ জন সাঁতরে তীরে উঠে আসতে সক্ষম হন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×