দুদকের অভিযান

জিপটি ফেরত দিলেন প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা

বালু উত্তোলন বন্ধ হল টাঙ্গাইলে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অবশেষে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) নির্দেশে বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের এক কর্মকর্তার অবৈধ দখলে থাকা প্রাডো জিপটি উদ্ধার করা হয়েছে। অধিদফতরের সহকারী পরিচালক ডা. মাহবুবুল হক একটি প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও ৮ মাস ধরে প্রোজেক্ট পরিচালকের সরকারি গাড়ি ব্যবহার করছিলেন। অভিযোগের ভিত্তিতে দুদক মহাপরিচালক মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরীর নির্দেশে সোমবার দুপুরে দুদক টিমের অভিযানের খবর পেয়ে অধিদফতরের ওই কর্মকর্তার দখলে থাকা সাদা রঙের প্রাডো জিপটি (ঢাকা মেট্রো-ঘ-১১-৩৫৫৮) দুদক কার্যালয়ের সামনে নিয়ে আসে। ওই গাড়িচালক জানায়, ২০১৮ সালের জুনে ‘হাঁস প্রজনন প্রকল্প’ নামের একটি প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়। এরপরও ৮ মাস ধরে অবৈধভাবে গাড়িটি ব্যবহার করছিলেন তিনি। গাড়িচালকের বেতন ও ওভারটাইম বাবদ মাসে তিনি প্রায় ৫০ হাজার টাকা ব্যয় করছিলেন। দুদক মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, রাষ্ট্রীয় সম্পদের অবৈধ ব্যবহার ও ক্ষমতার অপব্যবহারের শামিল, যা প্রাতিষ্ঠানিক সুশাসনের পরিপন্থী। দুদক সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে।

টাঙ্গাইলে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ : এদিকে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার পৌলি নদীতে অবৈধভাবে মাটি ও বালু উত্তোলন করা হচ্ছে- দুদকের অভিযোগ কেন্দ্রে (১০৬) এলাকাবাসীর এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। দুদক মহাপরিচালক মুনীর চৌধুরীর নির্দেশে টাঙ্গাইল জেলা দুদকের সহকারী পরিচালক আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের এনফোর্সমেন্ট টিম সোমবার এই অভিযান চালায়। রাতের আঁধারে বালু উত্তোলনের কাজ করা হচ্ছিল। দুদক এনফোর্সমেন্ট ইউনিটের প্রধান, মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, নদ-নদী দখলের পেছনে দুর্নীতি ফ্যাক্টর। দুদক এ দুর্নীতির চক্র ভাঙতে চায়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×