‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নুরুলসহ ৬ জন নিহত

  যুগান্তর ডেস্ক ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৬ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা শীর্ষসন্ত্রাসী নুরুল আলমসহ ২ জন, খুলনায় ১ জন, কুমিল্লায় ১ জন, ময়মনসিংহে ১ জন ও ঢাকায় ১ জন নিহত হয়। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার ভোর পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটে। নিহতদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস, ডাকাতি ও মাদক ব্যবসার অভিযোগ রয়েছে। যুগান্তর রিপোর্ট, ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

টেকনাফ (কক্সবাজার) : টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নুরুল আলম ওরফে কমান্ডার জুবাইর নিহত হয়েছে। শুক্রবার ভোরে উপজেলার দমদমিয়া চৌদ্দ নাম্বার ব্রিজসংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।

র‌্যাব-১৫ এর কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান জানান, র‌্যাবের টেকনাফ ক্যাম্পের একটি দল দমদমিয়া পাহাড়ি এলাকা অতিক্রম করার সময় অস্ত্রধারী ডাকাত দল তাদের ওপর গুলি ছোড়ে। র‌্যাব পাল্টা গুলি চালালে ডাকাত দল পিছু হটে। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি চালিয়ে ২টি বিদেশি পিস্তল, ১৩ রাউন্ড বুলেটসহ গুলিবিদ্ধ একজনকে উদ্ধার করা হয়। গুলিবিদ্ধ ব্যক্তিকে হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে জানা যায়, নিহত ব্যক্তি ২ নয়াপাড়া আনসার ক্যাম্পের কমান্ডার হত্যা ও অস্ত্র লুট মামলার আসামি ও নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের এইচ ব্লকের বাসিন্দা মৃত হোসেন প্রকাশ লাল বুইজ্জার ছেলে ডাকাত নুরুল আলম (৩০)। নুরুল আলম নিহতের খবর ছড়িয়ে পড়লে হাজার হাজার রোহিঙ্গা ও স্থানীয় সাধারণ মানুষ উল্লাসে ফেটে পড়ে। অনেকে মিষ্টি বিতরণ করতে দেখা গেছে। এদিকে কয়েকজন রোহিঙ্গা নেতা জানিয়েছেন, নুরুল আলম নিহত হলেও তার অস্ত্র ভাণ্ডার ও দলের সদস্যরা অক্ষত রয়েছে।

২০১৬ সালে টেকনাফের নয়াপাড়া আনসার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে কমান্ডারকে হত্যা ও অস্ত্র লুট করে নুরুল আলম। এ ঘটনার কয়েক মাস পর রাখাইনে সেনা চৌকিতে হামলার পর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধের ঘোষণা দেয় আরসা কমান্ডার আতাউল্লাহ। এ সময় ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়া একটি পাহাড়ি এলাকায় আতাউল্লাহর সহচর হিসেবে একাধিক ভিডিও চিত্রে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র হাতে নুরুল আলমকে দেখা যায়। পরে র‌্যাব নুরুল আলমকে আটক ও আনসার ক্যাম্পের লুণ্ঠিত সেই অস্ত্র উদ্ধার করে। কারাগারে পাঠানো হয় নুরুল আলমকে। সেখান থেকে জামিনে বেরিয়ে ফেরারি হয় সে।

এদিকে টেকনাফ সীমান্তে বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মো. বেলাল (২৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। তার বাড়ি লক্ষ্মীপুর জেলা সদরের শাকচর গ্রামে। বাবার নাম সিরাজুল ইসলাম। শুক্রবার ভোরে কাটাবনিয়া এলাকা হতে মৃতদেহ ও ৪ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। বিজিবি ২ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্নেল আছাদুদ জামান চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

খুলনা : খুলনায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মাসুদ রানা (৩৫) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে নগরীর নিরালা দিঘির পাড় এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত মাদক ব্যবসায়ী মাসুদ রানা নগরীর সোনাডাঙ্গা থানার বসুপাড়া বাঁশতলা এলাকার আবদুল হকের ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপ গান, ছোরা, চাপাতি, ১০০ পিস ইয়াবা এবং মাদক বিক্রির ৫ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করেছে।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, নিরালা আবাসিকের দিঘির পাড় এলাকায় মাদক কেনাবেচা হচ্ছে মর্মে খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালাতে থাকে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ পাল্টা গুলি চালায়। দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী মাসুদ রানা গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে গেলে গুলিবিদ্ধ মাসুদ রানাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মাসুদ রানার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।

কুমিল্লা : কুমিল্লায় বন্দুকযুদ্ধে মো. আল-আমিন নামে এক ডাকাত নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে জেলার তিতাস উপজেলার কড়িকান্দি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি রিভলভার, একটি এলজি ও ৫ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত আল-আমিন উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউনিয়নের নয়াগাঁও গ্রামের মাঈনুদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ জানায়, বিকাশ ডিলারের ৫৮ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় আটক আল-আমিনকে নিয়ে টাকা উদ্ধারে পুলিশ অভিযানে নামে। রাত সাড়ে ৩টার দিকে দড়িকান্দি নামক এলাকায় পৌঁছলে একদল ডাকাত পুলিশের গাড়িতে হামলা চালিয়ে আল-আমিনকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়। ডাকাতদের একটি গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে আল-আমিনের শরীরে লাগে। তাকে প্রথমে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ শহরে পুলিশের সঙ্গে বন্ধুকযুদ্ধে আবদুর রশিদ (৫০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে শহরের ত্রিশাল বাস স্ট্যান্ডসংলগ্ন হোমিওপ্যাথি মেডিকেল কলেজ মাঠে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি পাইপগান ও একশ’ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করেছে। নিহত আবদুর রশিদ ত্রিশাল বাস স্ট্যান্ড এলাকার আবদুর রফিকের ছেলে। তার বিরুদ্ধে বিস্ফোরকসহ ৭টি মামলা রয়েছে।

ঢাকা : রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সন্দেহভাজন এক ইয়াবা ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে দয়াগঞ্জে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মাদক ব্যবসায়ীর নাম হজরত আলী (৩৫)। তার নামে থানায় ৫০টির বেশি মামলা রয়েছে।

যাত্রাবাড়ী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী জানান, বৃহস্পতিবার রাতে দয়াগঞ্জ এলাকায় কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী অবস্থান করছে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল ও গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ গুলি চালায়। একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×