বাম-ডান এক হয়েও ছাত্রলীগের বিজয় ঠেকাতে পারেনি

-তথ্যমন্ত্রী

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি কিংবা ঐক্যফ্রন্ট ডাকসু নির্বাচন নিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে। ছাত্রদল কত ভোট পেয়েছে সেটি বলতেও তারা লজ্জা পাচ্ছে। যারা বামপন্থী সংগঠন করে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে বলতে চাই, বাম-ডান সবাই মিলে চেষ্টা করেছিল ছাত্রলীগকে হটিয়ে দেয়ার জন্য। কিন্তু বাম-ডান সবাই একত্রিত হয়েও ছাত্রলীগের বিজয় ঠেকাতে পারেনি।

শুক্রবার নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেশিয়াম মাঠে তৃতীয় বীমা মেলার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী একথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন তথ্যমন্ত্রী। এতে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, জীবন বীমা কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান সেলিনা আফরোজ ও চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান।

মন্ত্রী বলেন, বীমা দাবি পরিশোধে হয়রানি করায় আস্থাহীনতা তৈরি হয়। দু-তিনটি প্রতিষ্ঠানের কারণে বীমা খাতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। আস্থার সংকট দূর করা গেলে বীমা খাত ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে। অনেক সূচকে ভারতের চেয়ে আমরা এগিয়ে। উন্নয়নের পাশাপাশি বাংলাদেশকে সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার স্টেট হিসেবে গড়ে তোলার কাজ করছে সরকার। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী খাতে বাজেটের ১৩ দশমিক ৮১ শতাংশ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ খাতে বীমা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

মন্ত্রী বলেন, ২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাচন হয়েছে। নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়েছে। এটি ইতিবাচক দিক। সেখানে কিছু ভুলত্রুটি হয়েছে সেটি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছে। তদন্ত কমিটি করেছে। নির্বাচনের দিনই তাৎক্ষণিক কিছু ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। যারা অভিযোগ করছেন তারা নিজেরাই নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। যে দু-একটি হলে তারা কারচুপির অভিযোগ তুলেছেন সেখানে তাদের শীর্ষ নেতারা সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন। এর মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়, সার্বিকভাবে সামান্য কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি বাদে ভালো নির্বাচন হয়েছে। ডাকসুতে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা ছাত্রদের রায়ের প্রতি সম্মান দেখিয়ে তাদের কার্যক্রম শুরু করবে। এটিই ছাত্রদের প্রত্যাশা বলে আমি মনে করি।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ডাকসুতে নির্বাচিতরা শপথ নেবেন না একথা বলেননি। প্রতিবাদ করা গণতান্ত্রিক রীতিনীতি চর্চারই অংশ। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া আদালতের রায়ে শাস্তিপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে আছেন। তিনি রাজবন্দি নন। তিনি দুর্নীতির দায়ে কারাগারে আছেন। তাকে মুক্ত করার একমাত্র পথ হচ্ছে আদালত ও আইন। আইন ও আদালতের মাধ্যমে তার মুক্তি মিলতে পারে, অন্য কোনোভাবে তাকে মুক্ত করার সুযোগ নেই।

আরও পড়ুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×