টার্গেট লোকসান কমানো

বেসিক ব্যাংকের বেতন স্কেল কমছে

পর্যালোচনা কমিটি করার প্র্রস্তাব অর্থমন্ত্রীর কাছে

  মিজান চৌধুরী ২৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বেসিক ব্যাংকের বেতন স্কেল কমছে

বেসিক ব্যাংকের উচ্চতর বেতন-স্কেল কমানো হচ্ছে। লোকসান ঠেকানো এবং রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকের সঙ্গে সমন্বয় করে নতুন বেতন কাঠামো নির্ধারণ করা হবে। বর্তমান সরকারি ব্যাংকগুলোর তুলনায় বেতনসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বেশি রয়েছে এ ব্যাংকের।

ফলে একটি কমিটি করে বেসিক ব্যাংকের বিদ্যমান বেতন-কাঠামো সমন্বয় করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে। সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে এ প্রস্তাব পাঠানো হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বেসিক ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ, দায়িত্ব-কর্তব্য নির্ধারণ, বেতন-ভাতাসহ আর্থিক সুবিধা প্রদানের ক্ষমতা পরিচালনা পর্ষদের ওপর ন্যস্ত। সরকারি নতুন পে-স্কেল কার্যকর করার পর এই ব্যাংকও তাদের কর্মীদের সুযোগ-সুবিধা বাড়ায়।

কিন্তু দুর্নীতি, অনিয়ম ও প্রশাসনিক ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় ব্যাংকটি ক্ষতির মুখে পড়েছে। গত ৯ বছরে এ ব্যাংকের খেলাপি ঋণের হার বেড়েছে প্রায় ৫৭ শতাংশ। ২০০৯ সালে এ ব্যাংকের শ্রেণীকৃত ঋণের পরিমাণ ছিল ১৪১ কোটি টাকা। এটি বিতরণ করা ঋণের ৪ দশমিক ৪২ শতাংশ। কিন্তু এরপর থেকে ক্রমান্বয়ে খেলাপি ঋণ বাড়তে থাকে।

২০১৮ সালে বেসিক ব্যাংকের শ্রেণীকৃত ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ৮ হাজার ৬১৮ কোটি টাকা। ৯ বছরে খেলাপি ঋণের হার বেড়েছে ৫৬ দশমিক ৭১ শতাংশ।

সূত্র মতে, একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে এ কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়। কমিটিতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও বেসিক ব্যাংকের প্রতিনিধিও থাকবেন। কমিটি বেসিক ব্যাংকের বর্তমান বেতন-কাঠামো পর্যালোচনা করে রিপোর্ট দেবে। অর্থমন্ত্রী তা পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন।

জানা গেছে, বেসিক ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালকের (ডিএমডি) মূল বেতন-স্কেল দেড় লাখ টাকা। অপর দিকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালকের মূল বেতন-স্কেল ৬৬ হাজার টাকা। অন্যান্য পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বেতন স্কেলও বেশি রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের তুলনায়।

সূত্র আরও জানায়, অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠানো প্রস্তাবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম বলেছেন, বেসিক ব্যাংকের বেতন-কাঠামোসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের তুলনায় ভিন্ন ও উচ্চতর। ফলে ব্যাংকের প্রশাসনিক খরচও বেশি।

বেসিক ব্যাংকের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন এ মজিদ যুগান্তরকে বলেন, ‘বিগত সময় থেকে বেসিক ব্যাংকের বেতন কাঠামো নির্ধারণ করা হয় পরিচালনা বোর্ড থেকে। ব্যাংকটিতে স্বতন্ত্র বেতন-কাঠামো রয়েছে।

ফলে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর তুলনায় বেসিক ব্যাংকের বেতন বেশি।’ তিনি আরও বলেন, ‘কিছুদিন আগে ব্যাংকে নতুন জনবল নিয়োগের সময় এ নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের। এখন হয়তো তা সমন্বয়ের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।’

জানা গেছে, বেসিক ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মূল বেতন স্কেল হচ্ছে ১ লাখ টাকা। অপরদিকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের জিএম পাচ্ছে মাত্র ৬৬ হাজার টাকা। একইভাবে বেসিক ব্যাংকের ডিজিএম পাচ্ছেন মূল বেতন ৬৫ হাজার টাকা, সরকারি ব্যাংকের ডিজিএমের বেতন ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা। বেসিক ব্যাংকের একজন এজিএম পর্যায়ে কর্মকর্তার বেতন স্কেল ৪৮ হাজার টাকা হলেও সরকারি ব্যাংকের একই মাপের কর্মকর্তা পাচ্ছেন ৫০ হাজার টাকা।

আরও জানা গেছে, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে অফিসারের মূল বেতন ১৬ হাজার ও সিনিয়র অফিসারের বেতন ২২ হাজার টাকা। অপরদিকে বেসিক ব্যাংকের অফিসারের বেতন ২০ হাজার ও সিনিয়র অফিসারের মূল বেতন ২৫ হাজার টাকা। পর্যায়ক্রমে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসারের বেতন ৩৫ হাজার ৫০০ এবং সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার পাচ্ছেন ৪৩ হাজার টাকা। অপরদিকে বেসিক ব্যাংকের এক্সিকিউটিভ অফিসাররা পাচ্ছেন ৩৭ হাজার টাকা।

অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠানো প্রস্তাবে বলা হয়, বর্তমানে বেসিক ব্যাংকের ৬৮টি শাখা রয়েছে। ব্যাংকের জনবল হচ্ছে ২ হাজার ৭৫। বেতন-কাঠামো উচ্চতর হওয়ায় ব্যাংকটি ক্ষতির সম্মুখীন।

২০০৯ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে এসে ব্যাংকের মুনাফা কমেছে ৪৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ ২০০৯ সালে ব্যাংকটি মুনাফা করেছিল ১৫৭ কোটি টাকা। কিন্তু ওই সময়ের তুলনায় বেশি জনবল, শাখা ও আধুনিক সুবিধা নিয়ে ২০১৮ সালে মুনাফার পরিমাণ বাড়ার কথা। কিন্তু কমে দাঁড়িয়েছে ১১৩ কোটি টাকা।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, এ ব্যাংকের বেতন কাঠামো উচ্চতর হওয়ায় ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তাকে বদলি করা যাচ্ছে না রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে। সমস্যা হচ্ছে।

আগামীতে অনেকগুলো ব্যাংক ‘মার্জার’ করা হবে। এখন থেকে বেতন-কাঠামো সমান না হলে মার্জার করা কঠিন হবে। তাই এখনই এর বেতন কাঠামো সমন্বয় করা দরকার।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×