শেখ বোরহানুদ্দীন কলেজের সুবর্ণ জয়ন্তী

সরকারকে বিব্রত করতে কুচক্রী মহল প্রশ্ন ফাঁস করছে : বাণিজ্যমন্ত্রী

দুর্নীতির দায়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর কারাগারে যাওয়া রাজনীতিবিদ হিসেবে আমার কাছে লজ্জার : খাদ্যমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাণিজমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষাকে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দিয়েছেন। কিন্তু কুচক্রী মহল সরকারকে বিব্রত করতে প্রশ্নপত্র ফাঁস করছে। সরকারের সুনাম নষ্ট করছে।

শুক্রবার পুরান ঢাকার শেখ বোরহানউদ্দীন পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কলেজের সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘সেদিন আর বেশি দূরে নয়, যেদিন আমাদের শিক্ষার হার শতভাগ হবে। শতভাগ মানুষ বিদ্যুতের সুবিধা পাবে। আমরা বড় বড় মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করছি। নিভৃত গ্রাম আজ শহরে পরিণত হয়েছে। যারা তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে বলেছিল, বাংলাদেশ হবে বিশ্বে দরিদ্র দেশের মডেল। তারাই আজ বলছে, বিস্ময়কর উত্থান হয়েছে বাংলাদেশের।’

ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমরা একদিন তোমাদের মতোই ছিলাম। কষ্ট করে লেখাপড়া করেছি। যদি পড়াশোনা না করতাম, তাহলে আজ তোমাদের সঙ্গে পরিচয় ও সাক্ষাৎ হতো না। সুতরাং সোনার বাংলা গড়ে তোলার দায়িত্ব তোমাদের। সেজন্যই ভালো করে লেখাপড়া করবে।’

সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে কলেজটির সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব শুরু হয়। পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে বর্ণিল সাজে সজ্জিত হয়ে বর্তমান ও সাবেক ছাত্র-ছাত্রীরা এতে যোগ দেন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ শোভাযাত্রা উদ্বোধন করেন। উৎসবের স্লোগান ছিল - ‘এসো সবাই পড়ি/গুণগত শিক্ষায় দেশ গড়ি।’

তিনটি পর্বে বিভক্ত উৎসবের প্রথম পর্বে আরও ছিল সাবেক ছাত্রছাত্রীদের স্মৃতিচারণ ও আনন্দ-আড্ডা। নবীন-প্রবীণ ছাত্রছাত্রীদের উপস্থিতিতে উৎসবস্থল পরিণত হয় মিলনমেলায়। দীর্ঘদিন পর সাবেক বন্ধুদের পেয়ে অনেকেই স্মৃতিচারণ করে হারিয়ে যান সোনালী অতীতে।

উৎসবের মূল আলোচনা পর্ব অনুষ্ঠিত হয় বিকালে। এতে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। সুবর্ণজয়ন্তী বক্তা ছিলেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, বিএমএ সভাপতি ও সাবেক এমপি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান ও কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি অধ্যাপক হারুনর রশিদ খান। স্বাগত বক্তব্য দেন অধ্যক্ষ মো. আবদুর রহমান। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন কলেজের মনোবিজ্ঞানের বিভাগীয় প্রধান বাদল চন্দ্র অপু ও ইংরেজির সহযোগী অধ্যাপক আসমা পারভীন।

বিশেষ অতিথি খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ছাত্রছাত্রীদের মাদক, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতির সঙ্গে না জড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘দুর্নীতির দায়ে আজ একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী কারাগারে আছেন। সেটা একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে আমার কাছে আনন্দের নয়, লজ্জার। তোমরা দুর্নীতিকে ঘৃণা করবে। যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি ও রাজাকার, তাদের ঘৃণা করবে।’ সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে কলেজসহ নাজিমউদ্দিন রোডের বিশাল এলাকা সাজানো হয়। নিয়ন বাতি, এলইডি ও মরিচ বাতির আলোয় অপরূপ রূপ ধারণ করে কলেজ ক্যাম্পাস। তৃতীয় পর্বে ছিল মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ পর্ব শুরু হয় কলেজের শিক্ষার্থী নাদিয়া ও লিখনের মনমাতানো নৃত্য দিয়ে। গান গেয়েছেন কণ্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ, আঁখি আলমগীর ও আরিফ সুজন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×