বরিশালে সুদের প্রলোভনে ২০ কোটি টাকা আত্মসাৎ

স্বর্ণ ব্যবসায়ী পলাতক, থানায় মামলা

  তন্ময় তপু, বরিশাল ব্যুরো ১৪ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মামলা

বরিশালে অধিক হারে সুদ দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে শতাধিক গ্রাহকের ২০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বর্ণ ব্যবসায়ী গোপাল কর্মকারের বিরুদ্ধে। শুক্রবার রাতে নগরীর কাটপট্টি রোডে গোপাল কর্মকারের বাস ভবনের সামনে পাওনাদাররা হট্টগোল শুরু করলে পুলিশ এসে গোপাল কর্মকারের স্ত্রী রূপা কর্মকার, মেয়ে মিথিলা ও সারথী কর্মকারকে থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় পলাতক গোপাল কর্মকারের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা হয়েছে। পাশাপাশি ৩৪ ভুক্তভোগী থানায় অভিযোগও দায়ের করেছেন। শনিবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে থানা পুলিশ। শতাধিক পাওনাদারের মধ্যে অভিযোগ দায়েরকারী ৩৪ জনের কাছ থেকে গোপাল ৭ কোটি টাকা নিয়েছেন।

অভিযোগে জানা গেছে, নগরীর কাটপট্টি এলাকার বাসিন্দা এবং কাটপট্টির আদি অলংকার ভবন, অলংকার ভবন ও মোনালিসা জুয়েলার্সের মালিক গোপাল কর্মকার দীর্ঘদিন ধরে সুদের কারবার করে আসছিলেন। বিভিন্ন সময় গ্রাহকরা টাকা চাইলেও গোপাল টালবাহানা করে সটকে পড়তেন নিজ প্রতিষ্ঠান থেকে। গোপালের পরিকল্পনা ছিল ওই টাকা নিয়ে পরিবারসহ ভারতে পালিয়ে যাওয়ার। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গ্রাহকরা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

জানা গেছে, অভিযোগকারীদের মধ্যে গোবিন্দ সাহার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা, বনানী দত্তের কাছ থেকে ২০ লাখ ২৫ হাজার টাকা, গোপাল সাহা ৫ লাখ ৩৮ হাজার টাকা, রিতা পাল ৩ লাখ টাকা, বন্যা দাস ২৫ হাজার টাকা, মিন্টু সরদার ৪ লাখ টাকা, প্রদীপ দাস ৭ লাখ টাকা, সুকুমার ৫ লাখ টাকা, চৈতী দাস ৪৭ হাজার টাকা, ইমরান ভূঁইয়া ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা, তুলসী রানী ৩ লাখ টাকা, রিতা কর্মকার ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা, মিনু রানী ১১ লাখ ৫০ হাজার টাকা, রাম কৃষ্ণ ১ লাখ ২০ হাজার টাকা, সুমন পাল ৭ লাখ টাকা, নীল কমল ২ লাখ টাকা, জাফর মিয়া ১১ লাখ টাকা, লুৎফুন্নেসা ৪২ লাখ টাকা, ইমরান ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা, বিশ্বনাথ ১০ লাখ টাকা, সুমন দেবনাথ ৩৬ লাখ টাকা, নুরুল ইসলাম ১ লাখ ৩৪ হাজার টাকা, মিন্টু দাস ৩৫ লাখ টাকা, বিপ্লব ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা, মানবেন্দ্র সাহা ৯৬ লাখ টাকা, মাহিনুর ৯১ লাখ ৯১ হাজার টাকা, শাহিনুর ৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা, রিয়াজ ৬ লাখ টাকা, জাকির হোসেন ৪৬ লাখ টাকা, সখিনা ১ লাখ ৪৫ হাজার টাকা, সুফিয়া ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা, জহিরুল ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও সোহেলী পারভীনের কাছ থেকে ১০ লাখ ৯৩ হাজার টাকা নিয়েছিল গোপাল কর্মকার।

এ বিষয়ে বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের ওসি নুরুল ইসলাম বলেন, স্বর্ণ ব্যবসায়ী গোপাল কর্মকারের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা হয়েছে। এছাড়া ৩৪ গ্রাহক তার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগও করেছেন। আমরা শুনেছি, গোপাল কর্মকার প্রায় ২০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তাকে আটকের চেষ্টা করছে পুলিশ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×