চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ

আ’লীগ নেতাদের দ্বন্দ্বে হচ্ছে না নতুন কমিটি

তৃণমূলে ক্ষোভ ও অসন্তোষ

  এম এ কাউসার, চট্টগ্রাম ব্যুরো ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তিন বছর আগে মেয়াদ শেষ হলেও চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি হয়নি। এর কারণ আওয়ামী লীগ নেতাদের দ্বন্দ্ব। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের একটি পক্ষ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি করতে চাইলেও অপর পক্ষ এর বিপরীতে। আর দু’পক্ষের টানাহেঁচড়ায় মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়েই চলছে মহানগর ছাত্রলীগ। এ নিয়ে তৃণমূলে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। নতুন নেতৃত্ব না আসায় সংগঠনের কর্মকাণ্ডে গতি আসছে না বলে তাদের অভিযোগ।

আওয়ামী লীগের একটি পক্ষের দাবি, জাতীয় নির্বাচনের আগে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি করতে গেলে অন্তর্কোন্দল চাঙ্গা হয়ে উঠতে পারে। তাই এখন নতুন কমিটি করা ঠিক হবে না। তবে আরেক পক্ষ চাইছে এখনই নতুন কমিটি করতে।

সম্মেলনের মাধ্যমে মেয়াদোত্তীর্ণ মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করতে চেয়েছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এরই মধ্যে মেয়র নাছিরের উপস্থিতিতে এক বৈঠকে নেতারা ২৪ ফেব্র“য়ারি নগর ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠানেরও সিদ্ধান্ত নেন। তবে তা মানেননি মহানগর ছাত্রলীগ নেতারা। তাদের দাবি সম্মেলনের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তাদেরকে এখনও পর্যন্ত কিছুই বলা হয়নি। তাই ২৪ ফেব্র“য়ারি সম্মেলন করা সম্ভব না।

সূত্র জানায়, ছাত্রলীগকে আরও শক্তিশালী ও গতিশীল করতে ১৭ জানুয়ারি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) কার্যালয়ে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম। ওই বৈঠকে ছাত্রলীগের মহানগর, উত্তর ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় সম্মেলনের মাধ্যমে দ্রুত নতুন কমিটি করতে নেতারা একমত হন। দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি দ্রুত পূর্ণাঙ্গ করতে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিনকে এবং উত্তরের সম্মেলন করতে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এমএ সালামকে দায়িত্ব দেয়া হয়। এ সময় চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম, আওয়ামী লীগ উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহজাদা মহিউদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। তবে ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। জানা গেছে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সঙ্গে রয়েছেন মহানগর ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি।

নুরুল আজিম রনি যুগান্তরকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের বৃহৎ একটি অংশকে বাদ দিয়ে একটি পক্ষ ছাত্রলীগের সম্মেলন করার সিদ্বান্ত নেয়। অথচ এ বিষয়ে কেন্দ্র থেকে কিছুই বলা হয়নি। তারপরও সম্মেলনের জন্য আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। সম্মেলন ছাড়া ঢাকা থেকে চাপিয়ে দেয়া কোনো পকেট কমিটি মেনে নেয়া হবে না।’

১৪ জানুয়ারি নগরীর লালদীঘি মাঠে প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্মরণে আয়োজিত শোকসভায় ছাত্রলীগ পুনর্গঠনের তাগাদা দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এরপরই ১৭ জানুয়ারি চসিকের নগর ভবনে ছাত্রলীগের সম্মেলন নিয়ে বৈঠকে বসেন নেতারা। তবে শেষ পর্যন্ত চট্টগ্রামের নেতারা ছাত্রলীগ পুনর্গঠনের উদ্যোগ নিতে গিয়ে বিভক্ত হয়ে পড়েন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম শনিবার যুগান্তরকে বলেন, ‘ছাত্রলীগের সম্মেলনের ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতারা সিদ্ধান্ত নেবেন। এ বিষয়ে আমার কিছু বলার নেই।’ সর্বশেষ ২০১৩ সালের ৩০ অক্টোবর সম্মেলনের মাধ্যমে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল। নিয়মানুযায়ী ওই কমিটি এরই মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.