শেয়ারবাজার পতনে বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শেয়ারবাজারে সংকট কাটছে না। তারল্য সংকটে পুঁজি হারিয়ে বিনিয়োগকারীরা একরকম নিঃস্ব। দশ কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজারমূলধন কমেছে ২৩ হাজার কোটি টাকা এবং মূল্যসূচক কমেছে ২৬৩ পয়েন্ট। এদিকে দরপতনের প্রতিবাদে বুধবারও ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে বিনিয়োগকারীরা। মানববন্ধন থেকে বৃহস্পতিবারের মধ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনসহ কমিশনারদের পদত্যাগের সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়। তবে একক দিন হিসাবে বুধবার ডিএসইর সূচক কিছুটা বেড়েছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২ এপ্রিল ডিএসইর বাজারমূলধন ছিল ৪ লাখ ১৪ হাজার কোটি টাকা। ১০ কার্যদিবসের ব্যবধানে বুধবার পর্যন্ত তা কমে ৩ লাখ ৯১ হাজার কোটি টাকায় নেমে এসেছে। অর্থাৎ এ সময়ে ডিএসইর বাজারমূলধন ২৩ হাজার কোটি টাকা কমেছে। আর মূল্যসূচক ৫ হাজার ৫২২ পয়েন্ট থেকে কমে ৫ হাজার ২৫৯ পয়েন্টে নেমে এসেছে। এ হিসাবে মূল্যসূচক ২৬৩ পয়েন্ট কমেছে। লেনদেন নেমে এসেছে গড়ে ৩০০ কোটি টাকার নিচে। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে বাজারের ওপর বিনিয়োগকারীদের আস্থায় চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

এদিকে দরপতনের প্রতিবাদে বুধবারও ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে বিনিয়োগকারীরা। এই মানববন্ধন থেকে আজ বৃহস্পতিবারের মধ্যে বিএসইসির চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনসহ কমিশনারদের পদত্যাগের সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়। বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ নামের একটি সংগঠনের ব্যানারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। বিনিয়োগকারীরা বলেন, পুঁজিবাজারের বর্তমান অবস্থা খুবই করুণ। এ অবস্থা থেকে উত্তোরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হস্তক্ষেপ করতে হবে। এ সময়ে তারা ‘শেয়ারবাজার পড়ছে কেন, জবাব চাই দিতে হবে’ এসব স্লোগান দেয়।

একক দিন হিসাবে বুধবার ডিএসইতে ৩৪৫টি কোম্পানির ৭ কোটি ৩৬ লাখ শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার মোট মূল্য ৩১৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। এরমধ্যে দাম বেড়েছে ১৬০টি কোম্পানির শেয়ারের, কমেছে ১২৭টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৮টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। ডিএসইর ব্রডসূচক আগের দিনের চেয়ে ১০ দশমিক ৪৯ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ২৫৯ দশমিক ৪১ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। ডিএসই-৩০ মূল্যসূচক ৩ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৮৮০ দশমিক ৫১ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। ডিএসই শরীয়াহসূচক ৪ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ২১৭ দশমিক ০৪ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে।

সিএসই : চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে বুধবার ২৩২টি কোম্পানির ৪০ লাখ ৩১ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়েছে- যার মোট মূল্য ১২ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। এরমধ্যে দাম বেড়েছে ৯২টি প্রতিষ্ঠানের, কমেছে ১০৩টি এবং অপরিবর্তিত আছে ৩৭টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। সিএসইর সার্বিক মূল্যসূচক আগের দিনের চেয়ে ১৭ পয়েন্ট কমে ১৬ হাজার ৮৩ পয়েন্টে নেমে এসেছে। সিএসই ৩০ মূল্যসূচক আগের দিনের চেয়ে ১৬ পয়েন্ট বেড়ে ১৪ হাজার ১১৩ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। সিএসইর বাজারমূলধন আগের দিনের চেয়ে বেড়ে ৩ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে।

ডিএসইতে বুধবার যে সব কোম্পানির শেয়ার বেশি লেনদেন হয়েছে সেগুলো হল- বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল, ইউনাইটেড পাওয়ার, মুন্নু সিরামিকস, ফরচুন সুজ, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ, মুন্নু স্টাফলার, এসকে ট্রিমস, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ এবং বিবিএস কেবলস।

একই দিন ডিএসইতে যে সব কোম্পানির শেয়ারের দাম বেশি বেড়েছে সেগুলো হল- স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকস, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, হাক্কানী পাল্প, তাক্কাফুল ইন্স্যুরেন্স, কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স, ফাইন ফুডস, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স এবং বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স।

অন্যদিকে যে সব প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বেশি কমেছে সেগুলো হল- মুন্নু সিরামিকস, মুন্নু স্টাফলার, নর্দান জুট, ইউনাইটেড পাওয়ার, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স, রেকিট বেনকেইজার, গ্রীনডেল্টা ইন্স্যুরেন্স, আলহাজ টেক্সটাইল, জিএসপি ফাইন্যান্স এবং ফরচুন সুজ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×