ঈদের কেনাকাটা

যমুনা ফিউচার পার্কে শপিং উৎসব

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ২৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শনিবার সারাটা দিন আকাশ ছিল গোমড়ামুখো। আকাশের মন ভালো নেইতো কী হয়েছে, ঈদ কেনাকাটায় যারা ব্যস্ত তাদের মনটা বেশ ভালো আছে। আর সেই কেনাকাটা যদি হয় ক্লান্তিহীন ও স্বাচ্ছন্দ্যে ভরা তা হলে তো কথাই নেই। আর এ কারণেই রাজধানীবাসীর ঈদ কেনাকাটায় সবচেয়ে প্রিয় নাম যমুনা ফিউচার পার্ক শপিং মল। দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ এই শপিং মলে এখন চলছে শপিংয়ের উৎসব। ঈদের আগেই অন্যরকম এক আনন্দে ভেসে যাওয়া। কারণ, শুধু নিজের জন্য নয় আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, প্রিয়জন সবাই মিলে সবার জন্য শপিং করছেন। হাতে হাতে শপিং ব্যাগ আর মুখে মুখে হাসি।

শনিবার যমুনা ফিউচার পার্ক ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকে শুরু করে রাত অবধি ছিল উপচেপড়া ভিড়। ছুটির দিন থাকায় এদিন অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঈদের শপিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন। মা-বাবার হাত ধরে এসেছিল ছোট ছোট শিশুরাও। বড়দের পাশাপাশি তারা কিনেছে পছন্দের পোশাক। শপিং মলের ভেতরে শীতল পরিবেশে সবাই মনের আনন্দে কিনছেন তার প্রিয় পোশাক, জামা, জুতো, প্রসাধনী থেকে শুরু করে শখের ঘড়ি বা মোবাইল সেটটিও। একই ছাদের নিচে দেশি-বিদেশি সব নামি-দামি ব্র্যান্ডের শোরুম থাকায় হাতের কাছেই পাওয়া যাচ্ছে সবকিছু। বিভিন্ন শোরুমে আবার বিকাশ ও বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ডে ১০ থেকে ২৫ শতাংশ ক্যাশ ব্যাক অফার চলছে।

পরিবার পরিজন নিয়ে বনশ্রী থেকে যমুনা ফিউচার পার্কে শপিং করতে এসেছিলেন ব্যাংকার খাদেমুল বাসার। তিনি যুগান্তরকে বলেন, আগে ঈদ কেনাকাটায় একেকটা জিনিসের জন্য একেক দিকে ছুটতে হতো। কিন্তু যমুনা ফিউচার পার্ক শপিং মল প্রতিষ্ঠার পর থেকে সেই ঝক্কি ঝামেলা কেটে গেছে। এখন প্রতি বছর সব কেনাকাটা আমরা এখানেই করি। শুধু পোশাকই নয়, ঈদের জন্য যা যা দরকার তার সবই এখানে এক ছাদের নিচে পেয়ে যাই। এখানে এলে ঈদের আগেই শপিংয়ের উৎসব-উৎসব একটা আনন্দ কাজ করে মনে।

গাজীপুর থেকে সস্ত্রীক এসেছিলেন ব্যবসায়ী মিনহাজুর রহমান। তিনি যুগান্তরকে বলেন, একসঙ্গে সব ব্র্যান্ড ও মানসম্মত পোশাক সব মার্কেটে পাওয়া যায় না। কিন্তু যমুনা ফিউচার পার্কে এসে আমরা সবই পেয়ে যাচ্ছি। আরেকটি ভালো দিক হচ্ছে, দর কষাকষির কোনো ঝামেলা নেই। আমি আমার বাজেট ও সাধ্যের মধ্যে থাকা পোশাক ও সামগ্রী কিনে স্বাচ্ছন্দ্যে বাড়ি ফিরতে পারছি।

কে ক্র্যাফটের শোরুমে গিয়ে দেখা গেল ক্রেতার ভিড়। থ্রিপিস, শাড়ি, পাঞ্জাবি, শার্টসহ প্রয়োজনীয় শপিংয়ে ব্যস্ত সবাই। একজন বিক্রয়কর্মী জানালেন, প্রায় মধ্যরাতের পর তারা বাড়ি ফেরেন। সকাল থেকে শপিং মল বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রচণ্ড চাপ থাকে ক্রেতার।

ঘুরে দেখা গেল ইনফিনিটি, ক্যাটস আই, অঞ্জন’স, জেন্টল পার্ক, ফ্রি ল্যান্ড, ইয়েলো, রেড, লা রিভ, প্লাস পয়েন্টসহ প্রায় সব পোশাকের ব্র্যান্ড শপগুলোতে পাঞ্জাবি, পায়জামা, শার্ট, প্যান্ট, ফতুয়া, জুতা, জামা, শাড়ি, থ্রিপিস, ওয়ান পিস, কুর্তা, টপস, ওয়েস্টার্ন টপস, কসমেটিকস, চুড়ি কিনতে হাজার হাজার মানুষ ব্যস্ত। অনেকে আবার পরিবার পরিজন নিয়ে শপিংয়ের ফাঁকে বা শেষে চলে যাচ্ছেন যমুনা ফিউচার পার্কের ফুড কোর্টে। উপভোগ করছেন বাহারি সব খাবারের স্বাদ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×