নজরুলজয়ন্তীতে কবির সমাধি ফুলে ফুলে ঢাকা

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ২৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শনিবার উদযাপিত হয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২০তম জন্মজয়ন্তী। কবির প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা জানালেন সব শ্রেণী-পেশার মানুষ। সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি চলল নানা আয়োজন। নজরুলজয়ন্তী উপলক্ষে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় কবির স্মৃতিধন্য ময়মনসিংহে আয়োজন করে রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানের। কবির স্মৃতিধন্য কুমিল্লার দৌলতপুর, মানিকগঞ্জের তেওতা, চুয়াডাঙ্গার কার্পাসডাঙ্গা এবং চট্টগ্রামে স্থানীয় প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় আয়োজন করা হয় নজরুলজয়ন্তীর অনুষ্ঠান। সকাল থেকে ভক্তের ভিড় জমতে শুরু করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নজরুল সমাধিসৌধে। প্রথমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জমান। একে একে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংগঠন ও সর্বস্তরের মানুষ পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন কবির সমাধিতে। আওয়ামী লীগের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। শ্রদ্ধা নিবেদন করে মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, কাজী নজরুল ইসলাম সারাজীবন অসাম্প্রদায়িক, কুসংস্কার ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে ছিলেন।

বিএনপির পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল সালাম বলেন, অত্যাচার-নিপীড়ন যে পর্যায়ে পৌঁছেছে, তখন প্রতি মুহূর্তে কাজী নজরুল ইসলামকে মনে পড়ে। উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন। স্বেচ্ছাসেবক লীগের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সভাপতি অ্যাডভোকেট মোল্লা আবু কাউসার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের পক্ষে সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা জানান সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, মহানগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, বাসদ, জাসদ, বাংলা একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি, জাতীয় জাদুঘর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতর, নজরুল ইন্সটিটিউট, নজরুল একাডেমি, মানিকগঞ্জ সমিতি-ঢাকা, ঢাবি নজরুল গবেষণা কেন্দ্র, জাতীয় কবিতা পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, জয় বাংলা সাংস্কৃতিক ঐক্যজোট, বঙ্গবন্ধু কবিতা পরিষদ, ঢাবির বিভিন্ন হলের ছাত্র সংসদ, নজরুলসঙ্গীত শিল্পী সংসদ, ঋষিজ।

‘নজরুল চেতনায় বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’- এ প্রতিপাদ্যে নজরুলজয়ন্তীর মূল অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে নজরুল স্মৃতিবিজড়িত ময়মনসিংহের ত্রিশালে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। এতে ‘নজরুল চেতনায় বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ শিরোনামে স্মারক বক্তৃত্বা দেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ভারতের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক বিদ্যুৎ চক্রবর্তী, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. হাফেজ রুহুল আমিন মাদানী ও সংসদ সদস্য অসীম কুমার উকিল। আলোচক ছিলেন কবিপৌত্রী খিলখিল কাজী। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত সংস্কৃতি সচিব আবু হেনা মোস্তফা কামাল। কবি নজরুল ইন্সটিটিউটের সার্বিক তত্ত্বাবধানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

কবির সমাধি প্রাঙ্গণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাবি ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীন এবং ঢাবি নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক ড. বেগম আকতার কামাল। আখতারুজ্জামান বলেন, তার লেখা গান, কবিতা, গল্প ও উপন্যাস আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করেছেন।

অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামান। বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ভীষ্মদেব চৌধুরী অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন। অনুষ্ঠানে নজরুলসঙ্গীত পরিবেশন করেন সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষক ড. মহসিনা আক্তার খানম (লীনা তাপসী), খায়রুল আনাম শাকিলসহ বিভাগের শিক্ষার্থীরা। শনিবার সকালে নজরুল জন্মজয়ন্তী উৎসবের আয়োজন করে ছায়ানট। ছায়ানট ভবনের রমেশচন্দ্র দত্ত স্মৃতি মিলনকেন্দ্রে আয়োজিত এ অনুষ্ঠান শুরু হয় সম্মেলক কণ্ঠে গান দিয়ে। উদ্বোধনের পর সবাইকে নজরুলের দর্শনকে জীবনে প্রতিফলনের আহ্বান জানান ছায়ানটের সহসভাপতি খায়রুল আনাম শাকিল। একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন সুপ্তিকা মণ্ডল, মোহিত খান, লায়েকা বশির, তানভীর আহমেদ, শ্রাবন্তী ধর, বিটু কুমার শীল। নজরুল রচনা থেকে পাঠ করেন সুমনা বিশ্বাস ও জয়ন্ত রায়। সবশেষে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় অনুষ্ঠান।

কুমিল্লায় নানান কর্মসূচি : কুমিল্লায় নানান কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২০তম জন্মবার্ষিকী পালিত হয়েছে। কবির জন্মদিন উপলক্ষে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ও কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সকাল ১০টায় কুমিল্লা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরের নজরুল ম্যুরাল ‘চেতনায় নজরুল’-এ পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এ সময় জেলা প্রশাসন, নজরুল পরিষদ, নজরুল ইন্সটিটিউট কুমিল্লা কেন্দ্রসহ বিভিন্ন সংগঠন কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। জেলা প্রশাসনের পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব মু. আসাদুজ্জামান এবং বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী শিক্ষক ও নজরুল প্রেমীরা উপস্থিত ছিলেন। কর্মসূচির মধ্যে কুমিল্লা বীরচন্দ্র নগর মিলনায়তনে ‘নজরুল চেতনায় বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

কুমিল্লা জেলা শিল্পকলা একাডেমি ও নজরুল ইন্সটিটিউট কুমিল্লা কেন্দ্রের উদ্যোগে আলোকচিত্র ও বুকস্টলের আয়োজন করা হয়েছে। যাতে কবির বিভিন্ন ছবি ও তার রচিত পুস্তক রয়েছে। এদিকে জাতীয় কবির জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত পোস্টারে কবির স্মৃতিবিজড়িত কবিতীর্থ দৌলতপুরের নামটি এ বছরই বাদ পড়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন নজরুলপ্রেমীসহ বিভিন্ন সংগঠন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×