দেশের গণতন্ত্র এখনও শঙ্কামুক্ত নয় : মোহাম্মদ নাসিম

ঈদের পর বিভাগ ও জেলায় সমাবেশ করবে ১৪ দল

প্রকাশ : ০২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

দেশের গণতন্ত্র এখনও শঙ্কামুক্ত নয় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, দেশে জঙ্গিবাদ একেবারে শেষ হয়ে যায়নি। এরা যে কোনো সময় মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে। এখন আমরা আবারও নতুন করে জঙ্গিবাদের আওয়াজ শুনতে পাই। শনিবার বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়, জঙ্গি ও মাদকমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণ’ শীর্ষক আলোচনা সভা এবং ইফতার মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন। কেন্দ্রীয় ১৪ দলীয় জোট এই আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। সভায় মোহাম্মদ নাসিম বলেন, দেশের বিরুদ্ধে ও গণতন্ত্র ধ্বংস করার জন্য বিএনপি-জামায়াত, জঙ্গিবাদী চক্র একের পর এক চক্রান্ত করছে। তাদের কাছ থেকে আমাদের দেশের গণতন্ত্র নিরাপদ নয়। তাই শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

ঈদের পর সারা দেশের বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে সভা সমাবেশ করা হবে জানিয়ে ১৪ দলের মুখপাত্র বলেন, ঈদের পর বিএনপি, জামায়াত ও জঙ্গিবাদী চক্রের বিরুদ্ধে আমরা ১৪ দল মাঠে নামব। দেশের বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরে সমাবেশ করব। আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, বিএনপি-জামায়াত চক্র চুপ হয়ে আছে। তার মানে তারা নিঃশেষ হয়ে যায়নি। তারা ভিতরে ভিতরে শক্তি সঞ্চয় করছে। নিশ্চুপ হয়ে যাওয়া মানে নিঃশেষ হয়ে যাওয়া নয়। তাই আমাদের সবাইকে সজাগ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, বিএনপি বিরোধী দলের ভূমিকায় ছিল। তারা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে বিরোধী দলের আনুষ্ঠানিক যোগ্যতা হারিয়েছে। সরকারের বিরোধী দলের জায়গা পরিবর্তন হয়েছে। এখন জাতীয় পার্টি সেই বিরোধী দলের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। তিনি বলেন, বিএনপি এখন রাষ্ট্রের শত্রু হিসেবে দাঁড়িয়েছে।

সভায় বক্তব্য রাখেন সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এবং অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাবেক নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, জাতীয় পার্টি জেপির মহাচিব শেখ সহিদুল ইসলাম, বাংলাদেশের জাসদের সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া, গণআজাদী লীগের সভাপিত এসকে শিকদার, আওয়ামী লীগের উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সাংবাদিক মনজরুল আহসান বুলবুল প্রমুখ।