রাজু ভাস্কর্যেই ঈদ করবে পদবঞ্চিতরা

ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যে ‘ধোঁয়াশা’ * প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত : রাব্বানী

  মাহমুদুল হাসান নয়ন ০২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার ২০ দিন অতিবাহিত হলেও ‘বিতর্কিতদের’ বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। প্রথম দফায় ১৭ জনের নাম ঘোষণা করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণের ঘোষণা দিয়েও তা করা হয়নি। দ্বিতীয় দফায় ১৯টি পদ শূন্য করার কথা বলা হলেও তা নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। কারণ ১৯ জনের নাম বা পদ প্রকাশ হয়নি। নাম প্রকাশ করতে পদবঞ্চিতদের ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম শেষ হয়েছে শুক্রবার। যেসব পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে তাদের বহিষ্কার বা অব্যাহিত দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক। এ অবস্থায় টানা ৭ম দিনের অবস্থান থেকে পদবঞ্চিতরা ঘোষণা দিয়েছেন, বিতর্বিতদের বাদ দিয়ে বঞ্চিতদের কমিটিতে পদায়ন না করলে রাজু ভাস্কর্যেই ঈদ করবেন তারা।

২৮ মে রাত ১টায় ১৯টি পদ শূন্য ঘোষণা করেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। কিন্তু ১৩ মে গঠিত ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটির ১৯টি শূন্য পদের কারও নাম বা পদ প্রকাশ করেননি তারা। শুক্রবার শূন্য পদের নাম ঘোষণা না করার বিষয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী যুগান্তরকে বলেন, ‘যেসব পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে তাদের কিন্তু সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়নি। বহিষ্কারও করা হয়নি। যেহেতু অভিযোগ এসেছে তাই ১৯টি পদ কেবল শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে।’ রাজু ভাস্কর্যে ৭ম দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচি থেকে তার এই বক্তব্যেকে ‘ছলচাতুরী’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী কমিটির কর্মসূচি ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক রাকিব হোসেন বলেন, ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ অত্যন্ত সম্মানের ও শ্রদ্ধার। এই পদে যারাই থাকবেন, তাদের কথায় দায়িত্বশীলতা থাকতে হবে। বিতর্কিতদের বাদ দেয়া নিয়ে তারা বারবার যে নাটক জন্ম দিচ্ছেন, এর মাধ্যমে নেতাকর্মীদের মধ্যে তাদের নিয়ে আস্থার সংকট তৈরি হয়েছে। তারা ছলচাতুরীর আশ্রয় নিচ্ছেন। আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, নেত্রীর (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) নির্দেশনা অনুযায়ী ‘বিতর্কিতদের’ সংগঠন থেকে বাদ দিতে হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। রাজু ভাস্কর্যেই ঈদ করব আমরা।

ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী কমিটির মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণাবিষয়ক উপসম্পাদক ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন বলেন, ‘বিতর্কিতদের’ বাদ দেয়া নিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের একেক সময় একেক ধরনের বক্তব্য আমাদের মর্মাহত করেছে। এই ধরনের বক্তব্যের মাধ্যমে তারা ‘বিতর্কিতদের’ বৈধতা দেয়ার চেষ্টা করছেন। তারা আপার নির্দেশনা না মেনে রাজাকারের সন্তানদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়েছেন।

আরেক পদবঞ্চিত নেতা সদ্যবিদায়ী কমিটির দফতরবিষয়ক উপসম্পাদক শেখ নকিবুল ইসলাম সুমন বলেন, ১৯টি শূন্য পদের নাম ঘোষণা করতে আমরা ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছিলাম। তা মানা হয়নি।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী যুগান্তরকে বলেন, আগেই ঘোষণা দিয়েছি ছাত্রলীগে ‘বিতর্কিতদের’ স্থান হবে না। ‘বিতর্কিতদের’ বিরুদ্ধে অ্যাকশন নিতে আমাদের কোনো অনীহা নেই বরং সদিচ্ছা রয়েছে। আর সেজন্যই পদগুলো শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। আপা (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) যেহেতু আমাদের সর্বোচ্চ অভিভাবক, তাই তার জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হচ্ছে। তিনি দেশে এলে তার কাছে অভিযুক্তদের নাম, পদ ও অভিযোগ উত্থাপন করা হবে। পরে তার নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করব।

এদিকে শনিবার বিকাল ৫টার দিকে রাজু ভাস্কর্যে আন্দোলনকারীদের দেখতে আসেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। তবে সমস্যা সমাধানে ছাত্রলীগ সভাপতি কার্যকর কোনো উদ্যোগের কথা জানাননি বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছেন পদবঞ্চিতরা : এদিকে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর সংগঠনটিতে যে জটিলতা চলছে, তার অবসান অচিরেই ঘটানোর আশ্বাস দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। শনিবার দুপুরে মহাখালী বাস টার্মিনাল পরিদর্শনে গেলে ছাত্রলীগ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, আমার অনুপস্থিতিতে ছাত্রলীগের কমিটির ব্যাপারে নেত্রী আমাদের দলের চারজন নেতাকে দায়িত্ব দিয়েছেন কমিটি গঠন, অভ্যন্তরীণ কোন্দল বা সাংগঠনিক সমস্যা সমাধানে। তাদের সঙ্গে আমার কথাবার্তা হয়েছে, যোগাযোগ হচ্ছে। আন্দোলন-প্রতিবাদ করছে যারা, তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা হচ্ছে। আমি আশা করি, অচিরেই সমাধান হবে।

ছাত্রলীগের অচলাবস্থা নিরসনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা। এ বিষয়ে সদ্যবিদায়ী কমিটির কর্মসূচি ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক রাকিব হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যকে আমরা স্বাগত জানাই। তার বক্তব্যে আমরা আশ্বস্ত হয়েছি। তিনি ছাত্রলীগের দায়িত্ব নিলে সমস্যার সমাধান হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×