ঈদগাহে তিন ধাপে তল্লাশি, সতর্ক থাকবে পুলিশ

ডিএমপি কমিশনার

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদুল ফিতরে সুস্পষ্ট কোনো নিরাপত্তার হুমকি নেই জানিয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, জাতীয় ঈদগাহে নামাজ আদায় করতে আসা প্রত্যেককে তিন ধাপে তল্লাশি শেষে প্রবেশ করতে দেয়া হবে। সোমবার রাজধানীর জাতীয় ঈদগাহ ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঈদে কিংবা ঈদ জামাতে সুস্পষ্ট কোনো নিরাপত্তার হুমকি নেই। তবে বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় যথেষ্ট সতর্ক থাকার কারণ রয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আমরা সর্বোচ্চ সতর্কে রয়েছি। ঈদকে ঘিরে নিরবচ্ছিন্ন নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, তাই কারও ভীত হওয়ার কারণ নেই। তিন ধাপে তল্লাশি করে ঈদগাহে আগতদের প্রবেশ করতে দেয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, শিক্ষা ভবন, মৎস্য ভবন ও প্রেস ক্লাবের সামনে আর্চওয়ে, মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে সবাইকে তল্লাশির মাধ্যমে প্রবেশ করতে দেয়া হবে। এ এলাকায় কেউ গাড়ি নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন না। এর পরের ধাপে মূল গেটে এবং ঈদগাহের ভিআইপি জোনের আগে আরও দুই দফা আর্চওয়ের মাধ্যমে তল্লাশি করা হবে।

ঈদ জামাতে অংশগ্রহণের জন্য আগত মুসল্লিদের জায়নামাজ এবং প্রয়োজনে ছাতা ছাড়া অন্যকিছু না আনার আহ্বান জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, সবাইকে তল্লাশি করা হবে, এজন্য গেটে দীর্ঘ লাইন সৃষ্টি হলেও সবাইকে ধৈর্য সহকারে পুলিশকে সহযোগিতা করার আহ্বান রইল। প্রয়োজনে মুসল্লিদের সঙ্গে আনা জায়নামাজ কিংবা ছাতা খুলেও পুলিশ সদস্যরা তল্লাশি করবেন। পুলিশের পোশাকধারী ও সাদা পোশাকের সদস্যদের সমন্বয়ে ঈদগাহের চতুষ্পার্শ্বে বহির্বেষ্টনী গড়ে তোলার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ঈদ উপলক্ষে ঢাকাজুড়েই চেকপোস্ট জোরদার রয়েছে। পোশাক এবং সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন। ডিএমপির ডগ স্কোয়াডের মাধ্যমে ঈদগাহ মাঠ সুইপিং করা হবে। পুরো এলাকা সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকবে। জাতীয় ঈদগাহ এবং বায়তুল মোকাররমে স্থাপিত অস্থায়ী কন্ট্রোল রুম থেকে সিসিটিভি ক্যামেরাগুলো রিয়েল টাইম মনিটরিং করা হবে। জাতীয় ঈদগাহ, বায়তুল মোকাররম ছাড়াও নগরজুড়ে সব ঈদের জামাতে সাধ্যমতো নিরাপত্তা দেয়া হবে। সব বড় ঈদ জামাতে আর্চওয়ে ও মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে তল্লাশি করা হবে। বাকি সব জামাতে ফিজিক্যালি তল্লাশি করা হবে। ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঈদ সামনে রেখে ঢাকাজুড়ে যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজানো হয়েছে, রমজানে প্রথম পর্ব শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয়েছে। আশা করছি ঈদের নামাজও হবে শান্তিপূর্ণ এবং উৎসবমুখর। ঈদের পরের সময়েও ফাঁকা ঢাকার নিরাপত্তায় পুলিশের বিশেষ প্রস্তুতি রয়েছে।

নাগরিকদের সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যে কোনো সমস্যা-প্রয়োজনে পুলিশকে জানাবেন। সন্দেহজনক কিছু দেখলে ঈদগাহে স্থাপিত পুলিশ কন্ট্রোল রুম এবং ৯৯৯-এ জানানোর অনুরোধ রইল।

ঈদে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে কয়েক স্তরে সুদৃঢ় ও সমন্বিত নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথাও জানান তিনি।

গুলিস্তান ও মালিবাগে পুলিশের ওপর হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, এটি এখন তদন্তাধীন, তাই মন্তব্য করার সুযোগ নেই।

পরে দুপুর ১২টায় সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল পরিদর্শনে যান ডিএমপি কমিশনার। পরিদর্শন শেষে ডিএমপি কমিশনার বলেন, যে কোনো সময়ের চেয়ে বর্তমান সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের পরিবেশ অত্যন্ত চমৎকার ও পরিচ্ছন্ন। নিরাপত্তার লক্ষ্যে টার্মিনালের ভেতর ও বাইরে লাগানো হয়েছে পর্যাপ্ত সিসি ক্যামেরা। প্রথমবারের মতো লঞ্চ টার্মিনালে কোনো অপরিচিত হকার প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। ফুলবাড়িয়া থেকে সদরঘাট পর্যন্ত যানজট নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। যাত্রীদের নিরাপত্তায় মোতায়েন রয়েছে পর্যাপ্ত পুলিশ। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদরঘাট পর্যন্ত সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, সদরঘাটে স্থাপিত হয়েছে পুলিশ কন্ট্রোল রুম। এখান থেকে যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে। এর আগে সদরঘাটে অবস্থানরত বিভিন্ন রুটের লঞ্চে উঠে ঈদযাত্রায় যাত্রীদের খোঁজখবর নেন ডিএমপি কমিশনার।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×