তরুণদের অগ্রাধিকার প্রস্তাবিত বাজেটে

প্রশিক্ষণ, কর্মসংস্থান ও তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য ২শ’ কোটি টাকা * ফুটবলে বিশেষ বরাদ্দ ২০ কোটি টাকা * সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত -ড. শামসুল আলম

  হামিদ-উজ-জামান ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাজেট

প্রস্তাবিত বাজেটে তরুণদের বিশেষ অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। কারণ দেশের জনসংখ্যার বিশাল একটি অংশই তরুণ। এ শক্তিকে জনসম্পদে রূপান্তর করতে চায় সরকার।

সে লক্ষ্যেই কারিগরি শিক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব, প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থানে আলাদা বরাদ্দ, তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য স্টার্টআপ তহবিল ঘোষণা এবং ক্রীড়া ও সংস্কৃতিতে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ফুটবলের জন্য বরাদ্দ রাখাসহ নানা প্রতিশ্রুতি রয়েছে বাজেটে। বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন।

এ প্রসঙ্গে সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম যুগান্তরকে বলেন, তরুণদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি, স্ব-কর্মে নিয়োজিত করা এবং শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দক্ষ মানব সম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার উৎকৃষ্ট সময় এখন। আর এ কারণেই প্রস্তাবিত বাজেটে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে- যা নতুন সংযোজন। তরুণ প্রজন্মকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ বির্নিমাণের অন্যতম একটি পদক্ষেপ। এখন এসব উদ্যোগ সঠিকভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে যেতে হবে।

সূত্র জানায়, ইনোভেশন বা নতুন ধারণা ও কর্মের কার্যকর ব্যবহারে প্রযুক্তি, ব্যবসা-বাণিজ্য, ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাপী পরিবর্তনের ধারাকে কাজে লাগাতে চায় সরকার। এজন্য উদ্ভাবনী সংস্কৃতি গড়ে তুলতে বিশেষ করে যুব সমাজের বুদ্ধিদীপ্ত ও মেধাসম্পন্ন উদ্ভাবনকে কাজে লাগানো এবং এ খাতে বরাদ্দ রাখার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে বাজেটে। এছাড়া মানসম্পন্ন কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সম্প্রসারণের জন্য নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষায় বৈষম্য দূর করতে দাখিল, কারিগরি ও এবতেদায়ি স্তরে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে। গরিব, মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ, ইংরেজি ও গণিত শিক্ষকদের বিশেষ প্রশিক্ষণ, দুস্থ শিক্ষকদের এককালীন অনুদান, ষষ্ঠ শ্রেণী থেকেই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিকে (আইসিটি) পাঠ্যপুস্তক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া দক্ষ জনবল তৈরির জন্য ২ হাজার ২৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল স্থাপনের কাজ চলছে। সেই সঙ্গে চারটি বিভাগীয় শহরে মহিলা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট স্থাপন, ভূমি জরিপ শিক্ষার উন্নয়নে ২৩ জেলায় পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট স্থাপন এবং ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজের সক্ষমতা বৃদ্ধির কাজ চলছে।

সূত্র জানায়, নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য বাজেটে রয়েছে ব্যাপক উদ্যোগ। এছাড়া বিশেষ জনগোষ্ঠীর প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য ১শ’ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। পাশাপাশি কর্মসংস্থান বাড়াতে যুবকদের ব্যবসার উদ্যোগ সৃষ্টির জন্য স্টার্টআপ ফান্ড নামে ১শ’ কোটি টাকার প্রস্তাব করা হয়েছে। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী ২০৩০ সালের মধ্যে ৩ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্বের অবসান ঘটানোর আশা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, একদিকে শ্রম বাজারে বিপুল কর্মক্ষম জনশক্তির আগমন, অন্যদিকে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে শ্রমিকের চাহিদা কমে যাওয়ার বিষয়টি সরকার অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ করেছে। এ সমস্যার সমাধানে নানাবিধ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। সরকার শিল্পখাতে কর্ম সৃজনের গতি বাড়ানোর লক্ষ্যে ব্যবসা ও বিনিয়োগ পরিবেশ আধুনিকায়ন, শ্রমিকের সুরক্ষা জোরদার এবং পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর অধিকহারে কর্মে প্রবেশ উপযোগী আইন-বিধি, নীতি কৌশল সংস্কারের জন্য ৩ বছর মেয়াদি কার্যক্রম শুরু করেছে। এর অংশ হিসেবে চলতি অর্থবছরে ১০টি আইন-বিধি, নীতি-কৌশল প্রণয়ন অথবা সংস্কার সম্পন্ন হয়েছে। মন্ত্রী জানান, আগামী দুই বছরে অবশিষ্ট সংস্কার কাজ শেষ করে ক্রমবর্ধমান জনশক্তির জন্য মানসম্পন্ন কর্মসংস্থান করা হবে। তিনি আরও জানান, বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য সারা দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কার্যক্রম চলছে। যেখানে আনুমানিক ১ কোটি লোকের কর্মসংস্থান হবে।

মিরসাই, সোনাগাজী ও সীতাকুণ্ড উপজেলায় ৩০ হাজার একর জমিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরকে দেশের সর্ববৃহৎ পরিকল্পিত ও আধুনিক শিল্পাঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলা হবে। এখন পর্যন্ত দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে ১৫ দশমিক ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব পাওয়া গেছে। সেই সঙ্গে বৈদেশিক কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য নতুন নতুন শ্রম বাজার অনুসন্ধানও করা হচ্ছে।

এদিকে দেশব্যাপী ক্রীড়া সংস্কৃতি অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি জাতীয়, জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন প্রকার প্রতিযোগিতা ও অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে সরকার। প্রতিভাবান খেলোয়ার খুঁজে বের করে দীর্ঘমেয়াদি প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রস্তাবিত বাজেটে ফুটবলের উন্নয়নের জন্য ফুটবল ফেডারেশনের অনুকূলে ২০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×