পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ: পটুয়াখালীর ১১৭ জনই দরিদ্র পরিবারের সন্তান

  বরিশাল ব্যুরো ও পটুয়াখালী (দ.) প্রতিনিধি ০৯ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পুলিশ কনস্টেবল

চাকরিটা না হলে হয়তো বাবার সেলুনে গিয়ে নরসুন্দরের কাজ করে সংসার চালাতে হতো।

ভাবিনি চাকরিতে যোগদানের আগে বাবা আমাদের ছেড়ে চলে যাবে।

কথাগুলো বলেন সদ্য পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ পাওয়া সৌরভ চন্দ্র শীল।

কোনো ধরনের বাড়তি খরচ ছাড়াই ২৯ জুন পটুয়াখালী জেলার ১৩০ জনকে পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

তাদের মধ্যে পোষ্য কোটা ব্যতীত ১১৭ জন নিজ যোগ্যতায় পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি পেয়েছেন।

তারা সবাই দরিদ্র পরিবারের সন্তান বলে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয় নিশ্চিত করেছে। এ চাকরিতে নিয়োগ পেতে তাদের খরচ হয়েছে মাত্র ১০৩ টাকা।

হতদরিদ্র পরিবারের সৌরভ এদের একজন। সৌরভের বাবা শুধাংশ চন্দ্র শীল কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে ছয় মাস শয্যাশায়ী থাকার পর ৬ জুলাই মারা যান।

মৃত শুধাংশ রাঙ্গাবালী উপজেলার মৌডুবির চরাঞ্চলে নরসুন্দরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

সৌরভের মতো আরও এক ভাগ্যবান যুবক আসিফ গাজী। বাবা ফরিদ গাজী পেশায় একজন মেকানিক। কোনোভাবে পরিবারের চাহিদা মেটাতেন তিনি। বর্তমানে সদর উপজেলার লাউকাঠি ইউনিয়নে সরকারি আবাসন প্রকল্পের ৮৯ নম্বর ঘরে তাদের বসবাস।

সরকারি সহায়তায় ১১ বছর ধরে আবাসনে বসবাস করছে পরিবারটি। আসিফের বড় ভাই আরিফ প্রতিবন্ধী। বাবা ফরিদ গাজী বলেন, ছেলেকে লেখাপড়া করিয়েছি, ভাবিনি বিনা টাকায় চাকরি হবে।

বর্তমান সময়ে কী করে বিশ্বাস করি মাত্র ১০৩ টাকা ব্যয়ে পুলিশে চাকরি হবে। পটুয়াখালী এসপি স্যারের পক্ষ থেকে এলাকায় এমন প্রচার করা হলেও আমার কাছে হাস্যকর মনে হয়েছিল। বন্ধুদের পাল্লায় পরে ছেলেটা অংশ নেয়।

পরে শুনি তার চাকরি হয়েছে। দীর্ঘ ৪০ বছর দরিদ্রতার ঘানি টেনে আজ আমার ঘরে সুখ আসছে। এ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলার একপর্যায়ে বাবা ফরিদ কান্নায় ভেঙে পড়েন।

সৌরভ ও আসিফের মতো দরিদ্রতার মধ্য দিয়েই বড় হয়েছেন পটুয়াখালী শহরের হেতালিয়া বাঁধঘাট এলাকার চা দোকানি আবুল কালামের ছেলে বায়েজিদ। তিনিও চাকরি পেয়েছেন পুলিশ কনস্টেবল পদে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মির্জাগঞ্জ উপজেলার আন্দুয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত আলমগীর হোসেনের ছেলে রাসেদ সিকদার, চরপাড়া এলাকার গাছ ব্যবসায়ী সুলতান গাজীর ছেলে রুহুল আমিন, মরিচ বুনিয়ার দিনমজুর মজনু মাতবরের ছেলে শামীম হোসেন, গলাচিপার পাড় ডাকুয়া হোটেল কর্মচারী ইউসুফ মাতুব্বরের ছেলে রাব্বি মাতুব্বরসহ দরিদ্র পরিবারের ১১৭ জনের চাকরি হয়েছে এই নিয়োগে।

পটুয়াখালী পৌর মেয়র ও চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদ জানান, শুনেছি ২৯ জুন যাদের পুলিশে চাকরি হয়েছে, তারা সবাই দরিদ্র পরিবারের সন্তান।

বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় পুলিশ নিয়োগে স্বচ্ছতার আরও একটি দৃষ্টান্ত। এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, এসপি মইনুল হাসানসহ পুলিশ বিভাগকে আমার পক্ষ থেকে অভিনন্দন।

এ প্রসঙ্গে পটুয়াখালী পুলিশ সুপার মো. মইনুল হাসান যুগান্তরকে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আইজিপির নির্দেশে পটুয়াখালীতে পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি শতভাগ নিষ্কণ্টক করা হয়েছে। সবাই মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে চাকরি পেয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×