সিআইপিআরের সেমিনার

একটু সচেতন হলে পানিতে ডুবে মৃত্যু হার কমানো সম্ভব

সাইফুল আলম

  যুগান্তর রিপোর্ট ১২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম বলেছেন, একটু সচেতন হলে পানিতে ডুবে মৃত্যুর হার কমানো সম্ভব। পানিতে ডুবে সবচেয়ে বেশি শিশুর মৃত্যু হয়। এজন্য শিশুদের প্রতি সব সময় অভিভাবকদের নজর রাখতে হবে। এ ঘটনা প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হতে হবে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর ওয়াইডব্লিউসিএ’র কনফারেন্স রুমে সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ, বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি) আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সেমিনারে জানানো হয়, বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৮ হাজার শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক জরিপে বলা হয়, বিশ্বে মানুষের মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ পানিতে ডুবে মারা যাওয়া। প্রতি বছর সারা বিশ্বে পানিতে ডুবে তিন লাখ ৭২ হাজার জনের মৃত্যু হয়। আর এ ঘটনার ৯০ শতাংশ নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে ঘটে। প্রতি বছর বাংলাদেশে ১৮ হাজার শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। এর মধ্যে এক বছরের শিশু থেকে ১৭ বছরের কিশোর রয়েছে।

সেমিনারে ভাসা প্রকল্পের পরিচালক ডা. আমিনুর রহমান পানিতে ডুবে মৃত্যুর ঘটনা প্রতিরোধ সম্পর্কিত মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। এতে বলা হয়, বরিশাল বিভাগের জেলাগুলোতে পানিতে ডুবে মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি- এমন তথ্য একটি জরিপে উঠে এসেছে। এছাড়া অন্য অঞ্চল থেকে বরিশালে প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন- বন্যা, জলোচ্ছ্বাস, সাইক্লোনের প্রভাবও বেশি। এ বিভাগে পানিতে ডুবে মৃত্যুর কারণ জানতে ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছয়টি জেলার ২৪টি উপজেলায় জরিপ করা হয়। এতে দেখা গেছে, অন্য বিভাগ থেকে বরিশাল বিভাগে তিনগুণেরও বেশি মানুষ পানিতে ডুবে মারা যায়। জরিপ থেকে জানা যায়, পুকুরে ৬৭ শতাংশ, খালে ১৫ শতাংশ, ডোবায় ১১ শতাংশ ও নদীতে পাঁচ শতাংশ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এছাড়া সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টার মধ্যে ৬৩ শতাংশ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। কারণ এ সময় বাবা-মা গৃহস্থালির কাজে ব্যস্ত থাকায় শিশুদের পর্যাপ্ত সময় দিতে পারেন না।

সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ, বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি) ২০০৫ সাল থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ইনজুরি প্রতিরোধ, স্বাস্থ্যবিষয়ক গবেষণা এবং পানিতে ডুবে যাওয়া প্রতিরোধে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। পানিতে ডুবে মৃত্যুর ঘটনা প্রতিরোধে রয়েল ন্যাশনাল লাইফ বোট ইন্সটিটিউট (আরএনএলআই) ইউকের আর্থিক সহায়তায় কলাপাড়া, বেতাগী ও তালতলী উপজেলায় ভাসা নামে একটি প্রকল্প পরীক্ষামূলকভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×