‘হটলাইন কমান্ডো’ নিয়ে আসছেন সোহেল তাজ

আ’লীগের দুঃসময়ে আমি ও আমার পরিবার পাশে ছিল, থাকবে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৯ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সমাজের নানা সমস্যা তুলে ধরা এবং সুস্বাস্থ্যের প্রতি নজর দেয়ার বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে একটি টিভি রিয়্যালিটি শো নিয়ে আসছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। লাইফস্টাইলবিষয়ক এই রিয়্যালিটি শোর নাম ‘হটলাইন কমান্ডো’। আরটিভিতে সেপ্টেম্বর থেকে ১২ পর্বের শোটি মাসে দু’দিন মঙ্গলবার রাত ৮টায় প্রচার করা হবে। উপস্থাপনা করবেন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদপুত্র সোহেল তাজ।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই ঘোষণা দেন। অনুষ্ঠানে মানুষের জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাস ও সুস্থতা নিয়ে কথা বলেন তিনি। রিয়্যালিটি শোটিতে তুলে ধরা হবে সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা ও অসঙ্গতি। এক প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, আমার রক্তের সঙ্গে আওয়ামী লীগের রক্ত মিশে আছে। দলের দুঃসময়ে ঠিকই পাশে থাকব। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের ছেলে সোহেল তাজ ২০০৮ সালে নির্বাচনের পর গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তিনি পদত্যাগ করেন, রাজনীতিতে আর সক্রিয় হননি। ‘হটলাইন কমান্ডো’ সম্পর্কে ধারণা দেয়ার জন্যই সংবাদ সম্মেলনে ডেমো দেখান সোহেল তাজ। এতে দেখা যায়, তিনি ‘হটলাইন কমান্ডো’ টিম নিয়ে সরাসরি ভুক্তভোগীদের বাড়িতে হাজির হচ্ছেন। সমস্যা শোনার পর তার সমাধানও দিচ্ছেন।

শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি সমাজের সুস্থতাও দরকার উল্লেখ করে সোহেল তাজ বলেন, সুস্থ থাকা মানে শুধু স্বাস্থ্যই না, সমাজের সুস্থতাও দরকার। গণমাধ্যমে এখন ধর্ষণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। ইভটিজিং, মাদক- এগুলো সমাজের ব্যাধি। এসব ব্যাধিকে লাল কার্ড দেখাতে হবে। সামাজিক এ সমস্যার সমাধা না হলে সোনার বাংলা গড়া যাবে না। চলতি বছরের ৩ এপ্রিল সোহেল তাজ তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে একটি টিজার প্রকাশ করেন। সেখানে দেখানো হয়, সোহেল তাজ মানুষের দরজায় গিয়ে টোকা দিচ্ছেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘হটলাইন কমান্ডো’ দল দেশের বিভিন্ন স্থানে নানা শ্রেণিপেশার মানুষের দরজায় কড়া নাড়বে।

প্রোগ্রামটি দুর্নীতির বিরুদ্ধে কোনো বার্তা দেয়নি কেন জানতে চাইলে সোহেল তাজ বলেন, যে কোনো দেশের উন্নয়নের সবচেয়ে বড় বাধা দুর্নীতি। শহীদ তাজউদ্দিন আহমদের সন্তান হিসেবে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে আমি চাই- বাংলাদেশে দুর্নীতি বন্ধ হোক। কিন্তু আমার এ প্রোগ্রামটি সামাজিক বিষয়বস্তু নিয়ে, এ প্রোগ্রামটি সোনার মানুষ তৈরি করার।

সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজ তার রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে নানা প্রশ্নের উত্তর দেন। ফের রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা আছে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, রাজনীতিতে আমি নেই। কিন্তু আমি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান, রাজনীতি আমার রক্তে, দেশ আমার রক্তে। এটির বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। তিনি বলেন, এ মুহূর্তে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করার সুযোগ নেই। এই প্রোগ্রামটি আমার সব সময় নিয়ে নেবে। মানুষের কাছে আমি ঋণী। মানুষের ভালোবাসার প্রতিদান দিতে চাই এ প্রোগ্রামের মধ্য দিয়ে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ যদি সোহেল তাজকে কোনো রাজনৈতিক দায়িত্ব দেয়, তা তিনি গ্রহণ করবেন কি না জানতে চাইলে সোহেল তাজ বলেন, আমি ও আমার পরিবার দেশ ও আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে পাশে ছিল, থাকবে। আজকের সুদিনে থাকবেন কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সুদিনে আমি অন্যভাবে সহায়তা করছি। এক প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, সমাজ যদি প্রস্তুত না থাকে, আপনি কী রাজনীতি করবেন? রাজনীতি কাকে নিয়ে করবেন? সমাজ গড়তে পারলে, মানুষকে তৈরি করতে পারলে, সবকিছুরই সমাধান চলে আসে। হয়তো এটাই আমার পন্থা রাজনীতি করার।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি জানান, বাংলাদেশে বছরে অসংক্রামক রোগে (নন কমিউনিটিকেল ডিজিস) প্রায় ৬০ ভাগ মানুষ মারা যাচ্ছে, যা ১০০ ভাগ প্রতিরোধযোগ্য। কেবল জীবন অভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে এসব রোগ থেকে মুক্তি সম্ভব। মুক্তির পথগুলোই খোঁজার চেষ্টা করব। সোহেল তাজ জানান, তার ‘হটলাইন কমান্ডো’ অনুষ্ঠানটি ভবিষ্যতে কোনো রাজনৈতিক সংগঠন হবে না। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাজনীতি সাইনবোর্ড নিয়ে করতে হবে না কি? অনুষ্ঠান নিয়ে সোহেল তাজের প্রত্যাশা- এটি বিরক্তিকর হবে না। দু’পক্ষের অংশগ্রহণ থাকবে। এ শো সবসময় মানুষকে সমাধান দেবে। সমাজকে সচেতন করবে। বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা তুলে ধরবে। তিনি বলেন, প্রোগ্রামটি হবে ইন্টারেক্টিভ। যেটা একজন শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত বুঝতে পারবেন এবং দেখার আগ্রহ পাবেন, বিনোদনমূলকও হবে। কিন্তু তথ্য থাকবে শতভাগ সত্য। সেরকম ধারণা নিয়েই আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। সংবাদ সম্মেলনে হটলাইন কমান্ডোর টিম ছাড়াও আরটিভির সিইও আশিকুর রহমান, স্পন্সরের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন র‌্যানকন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রৌম্য রউফ চৌধুরী, মিতসুবিশির বিভাগীয় পরিচালকসহ অন্যরা।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×