লালবাগে কিশোর খুন

এক পোঁচেই বের হয়ে যায় শামীমের নাড়িভুঁড়ি

রাফিকে খুঁজছে পুলিশ

  যুগান্তর রিপোর্ট ২১ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

লালবাগে ধূমপানকে কেন্দ্র করে কিশোর শামীম হোসেনকে (১৭) হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে লালবাগ থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানিয়েছে, শামীম হোসেনকে মারধরের একপর্যায়ে রাফি ওরফে রাব্বি একটি ধারালো ছুরি দিয়ে নাভির নিচে পোঁচ দেয়। এক পোঁচেই শামীম হোসেনের নাড়িভুঁড়ি বের হয়ে যায়। শামীমের ঘাতকদের খুঁজছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পুলিশ বলছে, মূল ঘাতক রাফি ওরফে রাব্বিকে গ্রেফতার করা গেলেই বেরিয়ে আসবে মূল রহস্য।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে লালবাগ থানার এসআই শেখ মো. নূতন মিয়া যুগান্তরকে বলেন, শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে শহীদনগর ৪নং গলির বেড়িবাঁধের পাশে আফজাল হোসেনের বাড়ির সামনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে ধূমপান করছিল শামীম হোসেন। এ নিয়ে রাফি ওরফে রাব্বি, আল আমিন, হৃদয় ও বিজয়দের সঙ্গে শামীম হোসেনের কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় রাফি ফোন করে তার আরও ১৪-১৫ জন বন্ধুকে ডেকে আনে। তারা এসে শামীম হোসেনকে এলোপাতাড়ি কিলঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। একপর্যায়ে রাফি বড় একটি ধারালো ছোরা দিয়ে শামীম হোসেনের নাভির নিচে পোঁচ দেয়। এক পোঁচেই শামীম হোসেনের নাড়িভুঁড়ি বেরিয়ে যায়। তার আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে এরা দ্রুত পালিয়ে যায়। ফয়সাল, সোহাগ, সিয়াম, আলমগীরসহ কয়েক কিশোর শামীমকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক রাত ১০টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এরপর ঢামেক হাসপাতাল এলাকা থেকে এরা তিনজনসহ ৬ কিশোরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে লালবাগ থানা পুলিশ।

লালবাগ থানার ওসি সুভাস কুমার পাল যুগান্তরকে জানিয়েছেন, নিহত শামীম হোসেনের বাবা আনসার আলী বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ১৪-১৫ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। মামলায় রাফি ওরফে রাব্বিকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। রাফিকে গ্রেফতার করতে পারলেই বের হয়ে আসবে আসল রহস্য। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের সূত্র ধরেই পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে।

জানা গেছে, শামীম হোসেন কেরানীগঞ্জের আটিপাড়া মোহরিপট্টির বড়বাড়ি এলাকার সানির বাড়িতে ভাড়া বাসায় পরিবারের সঙ্গে থাকত। সে একটি জিন্স প্যান্ট কারখানায় কাজ করত। লালবাগ শহীদনগর এলাকায় আত্মীয়স্বজন থাকায় সেখানে বেড়াতে এসেছিল সে। শনিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে নিহতের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×