সাঁওতাল হত্যা মামলা: ৯০ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট

প্রত্যাখ্যান করে সাঁওতালদের বিক্ষোভ

  গাইবান্ধা প্রতিনিধি ২৯ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চার্জশিট

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা সাঁওতালপল্লীতে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও হত্যা মামলায় ৯০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

রোববার গোবিন্দগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পার্থ ভদ্রের আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল হাই সরকার। তবে এ চার্জশিট প্রত্যাখ্যান করে ঢাকা-দিনাজপুর সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে সাঁওতালরা।

অভিযুক্ত ৯০ আসামির মধ্যে রয়েছেন- মাহিমাগঞ্জ সুগার মিলের (জিএম-অর্থ) নাজমুল হুদা, সাপমারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাকিল আহম্মেদ বুলবুল, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য শাহ আলম, আইয়ুব আলী ও চিনিকল শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান দুলাল।

আসামিদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়। তবে তারা সবাই জামিনে রয়েছেন। অন্য আসামিরা পলাতক। এক আসামির স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে কয়েকটি বাড়ি থেকে পাওয়ার টিলার, শ্যালো মেশিনসহ লুটপাট হওয়া বেশকিছু মালামালও উদ্ধার করা হয়।

পিবিআই সূত্র জানায়, এ ঘটনার রহস্য উন্মোচন ও তদন্ত শেষ করতে প্রায় আড়াই বছর সময় লেগেছে। মূল আসামিদের আইনের আওতায় আনতে চার্জশিট দিতে কিছুটা সময় লেগেছে।

২০১৬ সালের ৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারের সাঁওতালপল্লীতে হামলা হয়। রংপুর চিনিকলের আওতাধীন সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারে উৎপাদিত আখ কাটাকে কেন্দ্র করে চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারী ও পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় আদিবাসীদের (সাঁওতাল) দফায় দফায় সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসীদের হামলা ও পুলিশের গুলিতে তিন সাঁওতাল শ্যামল হেমরম, মঙ্গল মার্ডি ও রমেশ টুডু নিহত হন। এছাড়া সাঁওতালদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

গোবিন্দগঞ্জের মাহালিপাড়া গ্রামের সমেশ্বর মুরমুর ছেলে স্বপন মুরমু বাদী হয়ে ২০১৬ সালের ১৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জ থানায় মামলা করেন। পরবর্তী সময়ে একই উপজেলার হরিণমারি নতুন পল্লীগ্রামের মাহলে হেমব্রমের ছেলে থোমাস হেমব্রম আরেকটি মামলা করেন। এ দুই মামলায় অজ্ঞাতনামা ৫০০ থেকে ৬০০ জনকে আসামি করা হয়। ২৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়। একই উপজেলার সারাই গ্রামের শাহাজাহান আলীর ছেলে মিঠু মিয়া ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

চার্জশিট প্রত্যাখ্যান : চার্জশিট থেকে প্রধান আসামি সাবেক সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নাম বাদ দেয়ায় তা প্রত্যাখ্যান করেছে সাঁওতালরা। এর প্রতিবাদে রোববার গোবিন্দগঞ্জের মাদারপুর এলাকায় তারা বিক্ষোভ করে। এরপর বাগদাফার্ম এলাকায় তারা ঢাকা-দিনাজপুর সড়ক অবরোধ করে। এ সময় রাস্তার দু’পাশে কয়েকশ’ গাড়ি আটকা পড়ে। সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির ব্যানারে সড়ক অবরোধ করা হয়।

এ হত্যা মামলার সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন-সংগ্রাম করে আসছে সাঁওতালরা। তাদের দাবি, এ চার্জশিট অবিলম্বে সংশোধন করে থমাস হেমব্রমের করা মামলার আলোকে চার্জশিট দেয়া হোক। না হলে তারা এ চার্জশিটের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবে। ৩০ জুলাই সংবাদ সম্মেলন ও ১০ আগস্ট গোবিন্দগঞ্জে বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ফিলিমন বাস্কের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য দেন আদিবাসী নেতা বার্নাবাশ টুডু, প্রিসিলা মুরমু, স্বপন শেখ, সুফল হেমব্রম, হবিবুর রহমান, সিপিবির গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা সভাপতি তাজুল ইসলাম, আদিবাসী নেতা রাফায়েল হাসদা প্রমুখ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×