রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নোবেল বিজয়ীরা

রাখাইনে বর্বরতার দায় এড়াতে পারেন না সু চি

  উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ইয়েমেনের নোবেল বিজয়ী তাওয়াক্কুল কারমান ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের নোবেল বিজয়ী মেরেইড ম্যাগুয়ার বলেছেন, মিয়ানমার সেনাবাহিনী গত ২৫ আগস্টের পর থেকে রাখাইনে যে নৃশংস হত্যাকাণ্ড, ধর্ষণ ও অমানবিক বর্বরতা চালিয়েছে, তার দায় এড়াতে পারেন না মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। রোববার বিকালে উখিয়ার মধুছড়া ক্যাম্প ঘুরে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ সফররত অপর নোবেল বিজয়ী ইরানের শিরিন ইবাদি আজ রোহিঙ্গা ক্যাম্প সফর করবেন বলে জানিয়েছেন নারীপক্ষের শিরিন হক।

ব্রিফিংয়ে নোবেল বিজয়ীরা বলেন, অং সান সু চি একজন শান্তিতে নোবেল বিজয়ী। কিন্তু তার সামরিক বাহিনী ৬ মাস ধরে রোহিঙ্গাদের বাড়িঘরে আগুন দিয়ে সে আগুনে শিশুদের নিক্ষেপ করার মতো জঘন্যতম অপরাধ করেছে। তাদের সেনা, পুলিশ, উগ্রপন্থী রাখাইনদের লোমহর্ষক ঘটনা বিশ্ববাসী দেখেছে, যা ইতিহাসে নজিরবিহীন। দুই নোবেল বিজয়ী আবেগাপ্লুত কণ্ঠে বলেন, রোহিঙ্গা নারীদের যেভাবে ধর্ষণ, উৎপীড়ন ও নির্যাতন করা হয়েছে এজন্য অং সান সু চি ও তার সরকারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচার হওয়া উচিত। বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয়সহ মানবিক সহায়তা দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ স্থানীয়দের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও সহমর্মিতা প্রকাশ করেন তারা।

এর আগে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে দু’দেশের দুই নোবেল বিজয়ী কুতুপালং রেজিস্টার্ড শরণার্থী ক্যাম্পে পৌঁছান। এ সময় সেখানে দায়িত্বরত সরকারি কর্মকর্তা এবং এনজিও সংস্থার সংশ্লিষ্টরা তাদেরকে ফুল দিয়ে বরণ করেন। পরে নোবেল বিজয়ীরা ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়ে সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। রোহিঙ্গারা কেমন আছে জানতে চান নোবেল বিজয়ী অতিথিরা। জবাবে ডেপুটি সেক্রেটারি মোহাম্মদ শাহীন জানান, সব ধরনের মানবিক সহায়তা দেয়া হচ্ছে।

এরপর অতিথিরা সরাসরি চলে যান মধুরছড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। সেখানে রয়েছে ধর্ষিতা, গুলিবিদ্ধসহ অসংখ্য নির্র্যাতিত রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ। সেখানে নোবেল বিজয়ীরা রোহিঙ্গা নারী নজু খাতুন (৩২), জাহেদা বেগম (৩০), মিনারা বেগম (২৫), জাহেদা খাতুনসহ (২২) অনেকের সঙ্গে একান্তে কথা বলেন। নোবেল বিজয়ীরা তাদের কাছে হত্যা, ধর্ষণসহ ভয়াবহ নির্যাতনের বিষয়ে জানতে চান। ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়া, বাড়িঘরে লুটপাট ও যুবক ভাইদের ধরে নিয়ে গুলি করে হত্যার নির্মম কাহিনী শুনে দুই নোবেল বিজয়ী আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বলে জানান রোহিঙ্গা নারীদের টিম লিডার জাহেদা বেগম। এরপর নোবেল বিজয়ীরা গুলিবিদ্ধ, হাত-পা কাটা, চোখ উপড়ে ফেলা এমন ক্ষতবিক্ষত কয়েকজন রোহিঙ্গার সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তারা সেখানে জড়ো রোহিঙ্গাদের আশ্বস্ত করে বলেন- বর্বরোচিত হামলার জন্য অং সান সু চিকে কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের নাগরিক অধিকার দিয়ে মিয়ানমারকে ফেরত নিতে হবে।

উল্লেখ্য, শান্তিতে নোবেল জয়ী ৩ নারী মূলত রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক জনমতকে আরও সুসংহত করতে তাদের এ সফর। ঢাকা নারী সংস্থা ও নারীপক্ষের সহযোগিতায় নোবেল জয়ী ৩ নারীর বাংলাদেশ সফরের আয়োজন করা হয়েছে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.