ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল: চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনায় দুর্নীতির অভিযোগ

  জাহিদ রিপন, ফরিদপুর ব্যুরো ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দুর্নীতি

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ (ফমেক) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনাকাটায় নজিরবিহীন দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

দরপত্রের মাধ্যমে ২০১২-১৬ সাল পর্যন্ত উন্নয়ন প্রকল্পে ঢাকার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স অনিক ট্রেডার্স ফমেক হাসপাতালের চিকিৎসা সরঞ্জামাদি ও মালামাল সরবরাহ করে। প্রতিষ্ঠানটি সরবরাহকৃত মালামালের দাম কয়েকগুণ বেশি নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অবিশ্বাস্য দামে ফমেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ১৬৬টি চিকিৎসা যন্ত্র ও সরঞ্জাম কিনেছে।

সূত্র জানায়, ২০১২-১৬ সাল পর্যন্ত উন্নয়ন প্রকল্পে হাসপাতালটি ১১ কোটি ৫৩ লাখ ৪৬৫ টাকার মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম কেনাকাটা করে। এতে বিল দেখানো হয়েছে ৫২ কোটি ৬৬ লাখ ৭১ হাজার ২০২ টাকা। এই কেনাকাটাতেই মেসার্স অনিক ট্রেডার্স বাড়তি বিল দেখিয়েছে ৪১ কোটি ১৩ লাখ ৭০ হাজার ৭৩৭ টাকা। বিষয়টি ওই সময়ের ফমেক কর্তৃপক্ষ কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করে কাজ করলেও বিপত্তি বাধে সর্বশেষ ১০ কোটি টাকার একটি বিল নিয়ে। সর্বশেষ ১০ কোটি টাকার বিলটিতে চিকিৎসা সরঞ্জামাদি বেশি দাম নেয়া হয়েছে মর্মে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বিলটি আটকে দেয়। এরপর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স অনিক ট্রেডার্স ওই বিল পেতে হাইকোর্টে একটি রিট করে। এরপর বিষয়টি জানাজানি হলে ফরিদপুরে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সর্বশেষ ২০১৪-১৫ অর্থবছরের ১০ প্রকারের ৪৯টি সরঞ্জামাদি ক্রয়ে ১০ কোটি টাকার বিলের বিষয়ে খোঁজখবর নিতে সরেজমিন অনুসন্ধান চালানো হয়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সর্বশেষ ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১০ কোটি টাকার চিকিৎসা সরঞ্জামাদি ও মালামাল সরবরাহ করে মেসার্স অনিক ট্রেডার্স। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে অত্র কার্যালয়ের স্মারক নং-তত্ত্বাঃ/ফমেক হাসঃ/২০১৪/৭৩৫ তারিখ ১১-১১-২০১৪ মোতাবেক কার্যাদেশ অনুযায়ী মেসার্স অনিক ট্রেডার্স থেকে গত ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর ফমেক হাসপাতালের স্টোর অফিসার মো. আ. রাজ্জাক স্বাক্ষরিত ১০ প্রকারের যন্ত্রপাতি ও মালামাল বাবদ ১০ কোটি টাকা সরবরাহ করা মালামাল বুঝে নেয়া হয়।

সরেজমিন দেখা যায়, দু-একটি যন্ত্রপাতি ছাড়া বেশিরভাগই তালাবদ্ধ ভবনের রুম, স্টোর রুম ও আলমারিতে রয়েছে। এগুলো গত কয়েক বছর অযতœ-অবহেলায় থেকে ধুলাবালি পড়ে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ১৯৭৯ সালে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের পাশে পশ্চিম খাবাসপুর ও হারোকান্দি এলাকায় প্রথমে ২০০ শয্যার হাসপাতাল দিয়ে শুরু হয়। ১৯৯৫ সালে ২৫০ শয্যা ও বর্তমানে ৭৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। নতুন ৫০০ শয্যার ভবনের ৭ তলা পর্যন্ত চালু থাকলেও এর উপরে নির্মাণ কাজ এখনও চলছে।

বৃহস্পতিবার সরেজমিন ফমেক হাসপাতালে দেখা যায়, ইউএসএর তৈরি ভিএসএ অনসাইড অক্সিজেন জেনারেটিং প্ল্যান্টটি আইসোলেশন ওয়ার্ডের পশ্চিম পাশে আলাদা একটি রুমে তালাবদ্ধ অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এ রুমটি দীর্ঘদিন পড়ে থাকায় তালায় মরিচা পড়ে নষ্ট হয়ে গেছে।

অবশেষে তালা ভেঙে রুম খোলার ব্যবস্থা করে কর্তৃপক্ষ। সেখানে দেখা যায়, বন্ধ রুমটির দেয়ালে শ্যাওলা পড়ে নোনা ধরে স্যাঁতসেঁতে অবস্থায় পড়ে রয়েছে ৫ কোটি ২৭ লাখ টাকা মূল্যের পুরো প্ল্যান্টটি। প্ল্যান্টটিতে সংযোগ দেয়া রয়েছে বড় আকারের বেশ কয়েকটি অক্সিজেনভর্তি সিলিন্ডার। এগুলো অযতেœ পড়ে থেকে বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে।

ফমেক হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগে হসপিটাল সারটেইন সিস্টেম ফর আইসিইউ/সিসিইউ ১৬টি বেড পড়ে রয়েছে। এর পাশে ঘেরাও করার জন্য রয়েছে ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের রোগীকে আড়াল করার এক সেট (১৬ পিস) পর্দা। এ রুমের দায়িত্বে রয়েছেন সিনিয়র স্টাফ নার্স রিজিয়া আক্তার। তিনি যুগান্তরকে বলেন, প্রতিদিন এ রুমের তালা খুলে বেড ও যন্ত্রপাতি চালু করি এবং ঝেড়ে-মুছে আবার বিকাল হলে রুম বন্ধ করে চলে যাই। এভাবেই কয়েক মাস ধরে কাজ করছি।

জনবলের অভাবে আইসিইউটি চালু করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান তিনি। ৮৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের ভ্যাকুয়াম প্ল্যান্টটি পুরাতন ভবনের দন্ত্য বিভাগে স্থাপন করা হয়েছে। রুমটি বেশিরভাগ সময় তালাবদ্ধ অবস্থায় থাকে। মাঝেমধ্যে রুমটি খুলে দেলোয়ার হোসেন নামের একজন ঝাড়ু দিয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখেন। এ প্ল্যান্টটিও পড়ে থেকে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ডিজিটাল ব্লাড প্রেসার ৩টি যন্ত্র মেল মেডিসিন, সিসিইউ ও লেবার ওয়ার্ডে অনেকটা অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে।

বিস মনিটরিং সিস্টেমটি কাগজপত্রে অপারেশন থিয়েটারে থাকার কথা থাকলেও সেখানে গিয়ে মেশিনটি দেখা যায়নি। থ্রি হেড কার্ডিয়াক স্টেথেসকোপ ৪টি মেডিসিন ওয়ার্ড ও সিসিইউ কক্ষে প্যাকেটজাত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ফাইবার অপটিক ল্যারিনোস্কোপ সেট ম্যাকিন্টোস ২টি গাইনি ও মেডিসিন ওয়াডে রয়েছে। এ ছাড়া অটোমেটিক স্ক্রাব স্টেশন, স্যাকশন মেশিন ও ডাউন স্টিম ইকুইপমেন্ট অনেকটা চালু অবস্থায় রয়েছে বলে দাবি করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সার্বিক যন্ত্রপাতি ক্রয়ে দুর্নীতির বিষয়ে ফমেক হাসপাতালের পরিচালক কামদা প্রসাদ যুগান্তরকে বলেন, আমি মাত্র কয়েক মাস আগে এ হাসপাতালে যোগদান করেছি। আমি এ বিষয়ে তেমন কিছু জানি না। তবে শুনেছি, এ নিয়ে হাইকোর্টে রিট হয়েছে। আদালতের আদেশে দুদক তদন্ত করবে। তদন্তের পর বিষয়টি জানা যাবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যন্ত্রপাতিগুলো বুঝে নেয়া হয়েছে।

প্রয়োজনীয় লোকবলের অভাবে এগুলো পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছি। যেন তাড়াতাড়ি আইসিইউ বিভাগসহ সব যন্ত্রপাতি চালু করা যায়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×