নায়িকা শিমলাকে সাড়ে ৩ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ: মানসিকভাবে হতাশ ছিলেন পলাশ

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জিজ্ঞাসাবাদ

চাঞ্চল্যকর বিমান ছিনতাই চেষ্টা মামলায় চিত্রনায়িকা শিমলাকে সাড়ে ৩ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম দামপাড়া পুলিশ লাইনে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসি) অফিসে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

জিজ্ঞাসাবাদে শিমলা পুলিশকে বলেছেন, আমাকে ডিভোর্স দেয়ার পর মানসিকভাবে হতাশ ও বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন বিমান ছিনতাই চেষ্টা করার সময় কমান্ডো অভিযানে নিহত পলাশ আহমেদ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সিটিটিসি’র পরিদর্শক রাজেশ বড়ুয়া যুগান্তরকে জানান, সকাল ১০টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত সাড়ে তিন ঘণ্টা শিমলার সঙ্গে কথা হয়। এ সময় বিমান ছিনতাই চেষ্টাকারী পলাশ আহমেদের সঙ্গে শিমলার কিভাবে পরিচয় হয়, বিয়ে, ডিভোর্সসহ নানা প্রসঙ্গে শিমলা তথ্য দিয়েছেন।

তদন্ত কর্মকর্তাকে শিমলা বলেন, ‘২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে গুলশানের একটি কফি হাউসে জন্মদিনের পার্টিতে পলাশের সঙ্গে শিমলার পরিচয় হয়। তারই সূত্র ধরে পলাশের সঙ্গে শিমলার ফোনালাপ, দেখা-সাক্ষাৎ পরে তাদের সম্পর্ক প্রেমে রূপ নেয়। পলাশ তখন শিমলাকে বলেছিল, সে লন্ডনে থাকে। লন্ডনে তার (পলাশ) বাবার জনশক্তির ব্যবসা রয়েছে। উত্তরা এবং নারায়ণগঞ্জে বাড়ি আছে। নারায়ণগঞ্জের বাড়িটি ভাড়া দেয়ার কথা বলেছিল শিমলাকে। পলাশ গানও গাইত।’

শিমলা তদন্ত কর্মকর্তাকে বলেন, ‘প্রেমের সূত্র ধরে ২০১৮ সালের ৬ জুন শিমলার সঙ্গে পলাশের বিয়ে হয়। বিয়ের পর শিমলাকে তোলেন ঢাকার বনানীর ভাড়া বাসায়। ওই বাসার খরচ প্রতি মাসে ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা হতো। এই খরচ সামাল দিতে গিয়ে পলাশ বিভিন্নজনের সঙ্গে নানাভাবে প্রতারণা করত।’

শিমলা বলেন, ‘পলাশের কাছ থেকে শিমলা কোনো টাকা-পয়সা নেননি। বরং বিয়ের পর পলাশকে হাতখরচের টাকাও দিয়েছিলেন। বিয়ের মাত্র ৫ মাসের মাথায় ২০১৮ সালের ৫ নভেম্বর শিমলার সঙ্গে পলাশের ডিভোর্স হয়। পলাশ ধূর্ত প্রকৃতির লোক ছিল। ডিভোর্সের পর পলাশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেনি শিমলা। তবে পলাশ বিভিন্ন সময়ে শিমলাকে ফোনে বিরক্ত করত।’

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বেরিয়ে সাংবাদিকদের শিমলা বলেন, ‘পলাশ কেন বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করতে গেছেন তা আমি বলতে পারব না। আমাদের ডিভোর্স হয়ে গেছে। বিয়ের পর মনে হয়েছিল পলাশ মানসিক ভারসাম্যহীন। তাই তিক্ত হয়ে ডিভোর্স দিই।’

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজেশ বড়ুয়া জানান, জিজ্ঞাসাবাদে যেসব তথ্য পাওয়া গেছে তা যাচাই-বাছাই করা হবে। মামলার তদন্তের স্বার্থে প্রয়োজনে শিমলাকে আবারও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এছাড়া শিমলা যেসব তথ্য দিয়েছে এর মধ্যে থেকে কাউকে জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রয়োজন হলে তা করব। তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ‘বিমান ছিনতাই চেষ্টা মামলায় এ পর্যন্ত পাইলট, ফার্স্ট অফিসার, কেবিন ক্রু, বিমানবন্দরের কর্মকর্তা এবং যাত্রীসহ ৪২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

পলাশের প্রথম স্ত্রী মেঘলাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’ এর আগে ২৪ মার্চ কাউন্টার টেরোরিজমের একটি দল পলাশের বাবা পিয়ার জাহান, মা রেনু বেগম, চাচা দ্বীন ইসলামসহ ১০ আত্মীয়স্বজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

২৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় উড়োজাহাজ ময়ূরপঙ্খীর ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাওয়ার কথা ছিল। বিকালে ঢাকা ছাড়ার পর পলাশ আহমেদ যাত্রীবেশে উড়োজাহাজটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালায়।

বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে বিমানটি চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে। একপর্যায়ে কমান্ডো অভিযানে নিহত হন অস্ত্রধারী যুবক। পরে আঙুলের ছাপ মিলিয়ে জানা যায়, নিহত যুবক নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের দুধঘাটা এলাকার পিয়ার জাহান সরদারের ছেলে পলাশ আহমেদ। চিত্রনায়িকা শিমলা তার দ্বিতীয় স্ত্রী।

ওই ঘটনায় ২৫ ফেব্রুয়ারি বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানায় মামলা করেন। বিমান ছিনতাই চেষ্টার প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, নায়িকা শিমলার সঙ্গে বিচ্ছেদের বিরহ থেকে তার সাবেক স্বামী পলাশ আহমেদ বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালায়। এরপর থেকেই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নানাভাবে শিমলাকে জিজ্ঞাসাবাদের চেষ্টা চালায়। ঘটনার আগ থেকে শিমলা শুটিংয়ের কাজে দেশের বাইরে অবস্থান করছিলেন। ভারত থেকে ফিরে শিমলা বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট অফিসে উপস্থিত হন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×