চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের এলএ শাখা

ঘুষ না দেয়ায় ভুয়া মালিককে ক্ষতিপূরণের টাকা

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তেরো লাখ টাকা ঘুষ না দেয়ায় জমির ক্ষতিপূরণ বাবদ ৬৩ লাখ টাকা ভুয়া মালিককে দিয়ে দিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের এলএ (ল্যান্ড ইকুইজিশন) শাখার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। বিষয়টির তদন্ত শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-(দুদক)। তদন্তের অংশ হিসেবে দুদকের একটি টিম রোববার সকালে সাতকানিয়া উপজেলায় দোহাজারি-ঘুমধুম রেললাইন প্রকল্পের অধিগ্রহণকৃত জমি সরেজমিন পরিদর্শন করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের পরিদর্শক গোলাম মোস্তফা।

জানা যায়, সাতকানিয়া উপজেলার বাসিন্দা খলিলুর রহমানের মালিকানাধীন ৫০ শতক জমি অধিগ্রহণ হয়। এই জমির ক্ষতিপূরণ বাবদ তিনি ১ কোটি ২২ লাখ টাকা পাওয়ার কথা। এর মধ্যে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ (এলএ) শাখা থেকে ক্ষতিপূরণের ৫৯ লাখ টাকার চেক পান। ওই টাকা পেতে এলএ অফিসের সার্ভেয়ার কামরুল ইসলামকে ঘুষ বাবদ দুটি চেকে দিতে হয়েছে সাড়ে ৯ লাখ টাকা। বাকি ৬৩ লাখ টাকার জন্য ওই অফিসের সার্ভেয়ার কামরুল ইসলাম ও অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ১৭ শতাংশ হারে ঘুষ দাবি করেন। ঘুষ না দেয়াতে অন্যজনকে ভুয়া মালিক সাজিয়ে ক্ষতিপূরণের টাকা দিয়ে দেয়া হয়। বিষয়টি জানার পর ক্ষতিপূরণের অর্থ ফেরত পেতে জমির মূল মালিক খলিলুর রহমান দুর্নীতি দমন কমিশনে লিখিত অভিযোগ দেন। এ অভিযোগ যাচাই-বাছাই শেষে দুদক অনুসন্ধানে নামে। ভুক্তভোগী সাতকানিয়া পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা খলিলুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ‘৫৯ লাখ টাকার চেকের বিপরীতে ১৬ শতাংশ হারে সাড়ে ৯ লাখ টাকা ঘুষ দিতে হয়েছে। বাকি ৬৩ লাখ টাকার চেক পেতে ১৭ শতাংশ হারে ১৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা ঘুষ চেয়েছিলেন সার্ভেয়ার কামরুল ইসলাম। ওই টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় কামরুল ইসলামসহ এলএ অফিসের সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অন্যজনকে ভুয়া মালিক সাজিয়ে এই টাকা দিয়ে দেন। এ ব্যাপারে আমি দুদকে অভিযোগ দিয়েছিলাম। অভিযোগের ভিত্তিতে দুদক অনুসন্ধান শুরু করেছে। রোববার দুদকের কর্মকর্তারা অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে ওই জমি সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন।’ সাতকানিয়া উপজেলা এসি ল্যান্ড অফিসের সার্ভেয়ার মহিউদ্দিন বলেন, জেলা প্রশাসকের এলএ অফিসের জমি অধিগ্রহণের একটি বিষয় নিয়ে অনুসন্ধানে দুদক থেকে কর্মকর্তারা এসেছিলেন। অভিযোগ সংক্রান্ত ভূমির ফাইল-পত্র যাচাই-বাছাই করেছেন তারা।

জানতে চাইলে দুদকের পরিদর্শক গোলাম মোস্তফা বলেন, অধিগ্রহণকৃত জমির ক্ষতিপূরণে অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে ওই জমি সরেজমিন পরিদর্শন করেছি। যেহেতু বিষয়টি তদন্তাধীন, তাই এখনই এ বিষয়ে কিছু বলা সম্ভব নয়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×