ক্যাম্পাসের সামনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ জবি শিক্ষার্থীদের

  জবি প্রতিনিধি ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) দ্বিতীয় গেট এবং এর সামনের লেগুনা স্ট্যান্ডের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম শেষেও মালিকরা স্থাপনা সরিয়ে না নেয়ায় ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা মঙ্গলবার দোকান ভাংচুর করেন এবং সব সরিয়ে দেন। রড ও টিন দিয়ে গেটটি দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ করে রাখা হয়েছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে চাঁদাবাজ ও অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেন। মিছিল শেষে শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় গেটের সামনে এসে জড়ো হতে শুরু করেন। এ সময় দ্বিতীয় গেট বন্ধ থাকায় এবং এর পাশের ফুটপাতের অবৈধ স্থাপনা না সরানোয় প্রতিবাদ জানিয়ে তারা স্লোগান দিতে থাকেন। দোকান-মালিকরা স্থাপনা না সরিয়ে ঘটনাস্থল থেকে সরে যাওয়ার চেষ্টা করলে শিক্ষার্থীরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এরপর তারা দোকানপাট ভাংচুর শুরু করেন। বেলা ১১টার দিকে শিক্ষার্থীরা পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘প্রশাসনের কালো হাত ভেঙে দাও, গুঁড়িয়ে দাও’ শিক্ষার্থীরা স্লোগান দেয়।

জানা গেছে, গেটের সামনে লেগুনা স্ট্যান্ড এবং ফুটপাতের অবৈধ সব স্থাপনা উচ্ছেদে দোকান মালিকদের রোববার পর্যন্ত সময় দেন শিক্ষার্থীরা। লেগুনা স্ট্যান্ড উচ্ছেদের দাবিতে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে দফায় দফায় মিছিল করেন। দ্বিতীয় গেটের লেগুনা স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে গেটটি উন্মুক্ত করার দাবি জানান তারা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে দেখা করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি দল। এক সপ্তাহের মধ্যে লেগুনা স্ট্যান্ড সরিয়ে দ্বিতীয় গেট সংস্কার করে মুক্ত করতে তারা দাবি জানান।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, এ ব্যাপারে জবি প্রশাসন আশ্বাস দিলেও দাবি বাস্তবায়নে তারা বরাবরের মতো উদাসীন। তারা বলেন, জগন্নাথের কোনো জায়গা কারও দখলে নিতে দেয়া হবে না, সে যত বড় নেতাই হোক। এখন থেকে দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত ঘোষণা করছি। নিজেদের ক্যাম্পাস পরিচ্ছন্ন রাখতে নিজেরা কাজ করছি।

এ বিষয়ে প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, এ বিষয়ে পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি। শিক্ষার্থীদের চলাফেরা নিশ্চিত করতে কাজ করব। সাত দিনের মধ্যে সব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত করে দেব।

সরেজমিন দেখা যায়, বেলা ১টা পর্যন্ত গেটের সামনে কোনো লেগুনা দাঁড়ায়নি। শিক্ষার্থীরা প্রায় ৩০টি দোকান সরিয়ে দেন। দোকান-মালিকরা মালামাল অন্য জায়গায় সরিয়ে নিতে শুরু করেছেন। তবে দুটি খাবার দোকান ও দুটি গ্যারেজ সরানোর জন্য মালিকরা সময় চাইলে শিক্ষার্থীরা বেলা ৩টা পর্যন্ত সময় বেঁধে দেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×