যমুনা ফিউচার পার্ক: পোশাকে দুর্গাপূজার আমেজ

  যুগান্তর রিপোর্ট ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যমুনা ফিউচার পার্ক: পোশাকে দুর্গাপূজার আমেজ

হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা ২৮ সেপ্টেম্বর ক্ষণ গণনার মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে।

এ উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা উৎসবের পোশাক কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। আর ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে বিশেষ রং ও পূজার সংস্কৃতি তুলে ধরে পোশাক বাজারে এনেছে দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলো।

শনিবার দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ যমুনা ফিউচার পার্ক ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

পার্ক ঘুরে দেখা গেছে, এ বছর পূজার নতুন ফ্যাশন কী? কী এসেছে বাজারে নতুন- এসব খুঁজছিলেন তরুণ-তরুণীরা। আর ক্রেতাদের চাহিদা পূরণে দেশি-বিদেশি সব পোশাকের ব্র্যান্ডই পূজা উপলক্ষে নতুন ডিজাইনের পোশাক এনেছে।

পোশাকে বিশেষ রঙের ব্যবহার, বিশেষ গল্প তৈরিতেও পিছিয়ে নেই প্রতিষ্ঠানগুলো। সব হাউসই ক্রেতাদের টানতে নিত্যনতুন ডিজাইনের পোশাক এনেছে।

শারদ সংগ্রহে সব বয়সী নারী-পুরুষের জন্য বিভিন্ন ডিজাইনের শাড়ি, থ্রি-পিস, কামিজ, ওড়না, আনস্টিচ ড্রেস, পাঞ্জাবি, পায়জামা, টি-শার্ট, শার্ট, ফতুয়া, ব্লাউজ এসেছে। এ ছাড়া ম্যাচিং পোশাকের বিশাল আয়োজন রয়েছে যুগলদের জন্য, পুরো পরিবারের জন্য। একটু রক্ষণশীল মেয়েরা থ্রি-পিস কিনছেন লাল-সাদা রঙের, আর ছেলেরা কেনাকাটা পাঞ্জাবি-ধুতিতে সীমাবদ্ধ রাখছেন।

তবে অনেক তরুণ-তরুণী হাল ফ্যাশনের দেশি কাপড়ের পাশাপাশি শোরুমগুলোতে পাকিস্তান, ভারত, থাইল্যান্ড ও চীন থেকে আমদানি করা পোশাক কিনছেন।

দেখা গেছে, তরুণী-কিশোরীরা ভারতীয় লেহেঙ্গা, থ্রি-পিস কেনায় বেশি আগ্রহী। এ ক্ষেত্রে পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে ফ্যাশন হাউস মেট্রোর পোশাক।

এখানকার সারারা, গারারা, লং গাউন, স্টোন থ্রি-পিস, চিনন সিল্ক কটনের পোশাক নারীদের নজর কেড়েছে। পুরুষদের জন্য নতুন ডিজাইনের পাঞ্জাবি রয়েছে এখানে। আর দেশীয় ব্র্যান্ডের মধ্যে আড়ং, অঞ্জন’স, দেশী দশ, নবরূপা, জেন্টালপার্ক, ইনফিনিটি, ক্যাটসআই পূজার নতুন কালেকশন বাজারে এনেছে। ক্রেতারাও পছন্দসই পোশাক কিনতে ভিড় করছেন সেখানে। ঘুরে ঘুরে নতুন মডেলের জামা-কাপড় কিনছেন সবাই।

যমুনা ফিউচার পার্কের নবরূপার এক বিক্রয়কর্মী জানান, এবারের পূজার কেনাকাটা এখনও জমেনি। তবে ধীরে ধীরে পূজার বেচাবিক্রি বাড়ছে।

আগামী শুক্র ও শনিবার পুরোদমে বিক্রি হবে। তিনি আরও বলেন, দুর্গাপূজায় আগের চেয়ে বেচাবিক্রি ভালো হয়। কারণ এখন মানুষ নিজেকে সাজিয়ে রাখতে পছন্দ করে।

পূজা উদ্যাপনের চার দিনই নতুন পোশাক পরার এবং নিজেকে অন্য রকমভাবে সাজানোর একটা আকাক্সক্ষা পোষণ করে সবাই নিজ নিজ সাধ ও সাধ্য অনুযায়ী পোশাক কিনে থাকেন।

খিলক্ষেত থেকে সপরিবারে পূজার কেনাকাটা করতে আসা বেসরকারি চাকরিজীবী উত্তম কুমার রায় বলেন, বড়দের পূজার পোশাক কেনাকাটা মোটামুটি শেষ।

এখন বাচ্চাদের পূজার কেনাকাটা করতে এসেছি। বাকি পূজার সাজ সরঞ্জাম পুরান ঢাকা থেকে কিনব পূজার আগে।

রাজধানীর পুরান ঢাকা থেকে পূজার কেনাকাটা করতে আসা অপ্সরা রায় বলেন, পূজায় ষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত প্রতিদিনের জন্য নতুন পোশাক কিনেছি।

এর মধ্যে ওয়েস্টার্ন ড্রেস, থ্রি-পিস ও শাড়ি রয়েছে। মা দুর্গাকে বরণ করে নিতে লাল পাড়ে সাদা জামদানি শাড়ি কিনেছি।

যমুনা ফিউচার পার্কে আসার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে এক ছাদের নিচে সব দেশি-বিদেশি ব্র্যান্ডের পোশাকের শোরুম রয়েছে। পরিবারের সব সদস্যের কেনাকাটার শোরুম আছে। তাছাড়া আয়তনে বড় হওয়ায় হুড়াহুড়ি, ধাক্কাধাক্কি নেই, স্বাচ্ছন্দ্যে কেনাকাটা করা যায়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×