যবিপ্রবির ১০ ছাত্রের নামে চার্জশিট
jugantor
ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় মারধর
যবিপ্রবির ১০ ছাত্রের নামে চার্জশিট

  যশোর ব্যুরো  

০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সহপাঠীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) এক ছাত্রকে মারধরের ঘটনায় ১০ জনের নামে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। রোববার আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মাহবুর আলম। অভিযুক্তরা হলেন- যবিপ্রবির জিইবিটি বিভাগের ছাত্র বিপ্লব কুমার দে, পিএমই বিভাগের ছাত্র আশিক খন্দকার, গণিত বিভাগের ছাত্র জুয়েল রানা, ইংরেজি বিভাগের ছাত্র রুহুল কুদ্দুস রহিত, পিএসএস বিভাগের ছাত্র কামরুল হাসান সিহাব ওরফে সিহাব উদ্দীন, ইংরেজি বিভাগের ছাত্র রবিন ওরফে আসলাম উদ্দিন, একই বিভাগের ছাত্র শাকিল হাসান রাজু, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের মার্স্টাসের ছাত্র মুরাদ হোসেন, ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র টনি ওরফে নুর মোহাম্মদ, ইংরেজি বিভাগের ছাত্র আহমেদ রাহিক। অভিযুক্ত প্রত্যেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে জুয়েল রানা প্রায় উত্ত্যক্ত করত। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার সহপাঠীদের জানায়। এরপর সহপাঠীরা জুয়েল রানাকে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে জুয়েল ওই ছাত্রীর সহপাঠীদের অপদস্ত করার ষড়যন্ত্র করে। গত বছর ২৫ সেপ্টেম্বর দুপুরের ওই ছাত্রী তার সহপাঠীদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রধান গেটের সামনে দাঁড়িয়ে ছিল। এ সময় জুয়েল রানাসহ আসামিরা অতর্কিত হামলা করে ইলিয়াস হোসেন নামে একজনকে মারধর ও ছুরিকাঘাত করে। এ খবর শুনে আশপাশের ছাত্র-ছাত্রী ও পুলিশ এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএসএস বিভাগের ছাত্র আশিকুর রহমান কোতয়ালি মডেল থানায় একটি মামলা করেন। তদন্ত শেষে ১০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয়া হল।

ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় মারধর

যবিপ্রবির ১০ ছাত্রের নামে চার্জশিট

 যশোর ব্যুরো 
০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সহপাঠীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) এক ছাত্রকে মারধরের ঘটনায় ১০ জনের নামে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। রোববার আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মাহবুর আলম। অভিযুক্তরা হলেন- যবিপ্রবির জিইবিটি বিভাগের ছাত্র বিপ্লব কুমার দে, পিএমই বিভাগের ছাত্র আশিক খন্দকার, গণিত বিভাগের ছাত্র জুয়েল রানা, ইংরেজি বিভাগের ছাত্র রুহুল কুদ্দুস রহিত, পিএসএস বিভাগের ছাত্র কামরুল হাসান সিহাব ওরফে সিহাব উদ্দীন, ইংরেজি বিভাগের ছাত্র রবিন ওরফে আসলাম উদ্দিন, একই বিভাগের ছাত্র শাকিল হাসান রাজু, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের মার্স্টাসের ছাত্র মুরাদ হোসেন, ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র টনি ওরফে নুর মোহাম্মদ, ইংরেজি বিভাগের ছাত্র আহমেদ রাহিক। অভিযুক্ত প্রত্যেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে জুয়েল রানা প্রায় উত্ত্যক্ত করত। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার সহপাঠীদের জানায়। এরপর সহপাঠীরা জুয়েল রানাকে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে জুয়েল ওই ছাত্রীর সহপাঠীদের অপদস্ত করার ষড়যন্ত্র করে। গত বছর ২৫ সেপ্টেম্বর দুপুরের ওই ছাত্রী তার সহপাঠীদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রধান গেটের সামনে দাঁড়িয়ে ছিল। এ সময় জুয়েল রানাসহ আসামিরা অতর্কিত হামলা করে ইলিয়াস হোসেন নামে একজনকে মারধর ও ছুরিকাঘাত করে। এ খবর শুনে আশপাশের ছাত্র-ছাত্রী ও পুলিশ এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএসএস বিভাগের ছাত্র আশিকুর রহমান কোতয়ালি মডেল থানায় একটি মামলা করেন। তদন্ত শেষে ১০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয়া হল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন