পল্লীকর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন

চার হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠনের উদ্যোগ

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পিকেএসএফের সহযোগী সংস্থাগুলোর কার্যক্রম চালাতে পারবে * প্রান্তিক কৃষক ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দেবে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৫ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

করোনার প্রভাব মোকাবেলা করে গ্রামীণ অর্থনীতিকে সচল করতে দেশি-বিদেশি উৎস থেকে প্রায় চার হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে পল্লীকর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)। এ অর্থ থেকে কম সুদে গ্রামের প্রান্তিক কৃষক ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দেয়া হবে। যাতে তারা আবার উৎপাদন কর্মকাণ্ড শুরু করতে পারে। একই সঙ্গে উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করার উদ্যোগও নেবে সংস্থাটি।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পিকেএসএফকে দেয়া এক চিঠিতে জানানো হয়েছে, তাদের সহযোগী সংস্থাগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে কর্মকাণ্ড চালু রাখতে পারবে। এ বিষয়ে সহযোগিতা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জেলা প্রশাসকদের কাছেও চিঠি দেয়া হয়েছে। পিকেএসএফ এ বিষয়টি তাদের সহযোগী সংস্থাগুলোকে জানিয়ে দিয়েছে। সূত্র জানায়, এ লক্ষ্যে পিকেএসএফ থেকে প্রায় চার হাজার কোটি টাকার তহবিল সংগ্রহের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সরকারের কাছে চাওয়া হয়েছে এক হাজার ৬০০ কোটি টাকা, বিশ্বব্যাংকের কাছে ৮৫০ কোটি টাকা, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) কাছে এক হাজার ২০০ কোটি টাকা এবং ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্টের (ইফাদ) কাছে চেয়েছে ১৬০ কোটি টাকা।

সারা দেশে পিকেএসএফের ২০২টি সহযোগী সংস্থা রয়েছে। তারা গ্রামীণ দারিদ্র্য বিমোচনে কাজ করছে। প্রান্তিক কৃষক থেকে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দিচ্ছে। এসব সংস্থাগুলোকে পিকেএসএফ এখন পর্যন্ত ছয় হাজার কোটি টাকার ঋণ দিয়েছে। সংস্থাগুলোর নিজস্ব তহবিলসহ মাঠে রয়েছে প্রায় ৩২ হাজার কোটি টাকা। প্রায় দেড় কোটি পরিবারকে ১০ হাজার শাখার মাধ্যমে তারা নানাভাবে সহায়তা করে আসছে। করোনার প্রভাব মোকাবেলা করার জন্য সহযোগী সংস্থাগুলো এখন পর্যন্ত নিজস্ব তহবিল থেকে ২৭ কোটি টাকার ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছে। এদিকে প্রান্তিক কৃষক ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কম সুদে ঋণ দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক যে তিন হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করেছে তা থেকে সুবিধা নিতে পিকেএসএফ তাদের সহযোগী সংস্থাগুলোকে বলেছে। ওই তহবিলের অর্থ ক্ষুদ্রঋণ দানকারী সংস্থাগুলোর মাধ্যমে ৯ শতাংশ সুদে বিতরণ করা হবে। বর্তমানে তাদের ঋণের সুদের হার ২৫ শতাংশ। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংক কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনাতহবিল গঠন করেছে। এটি বাস্তবায়ন করা হবে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে। এ প্যাকেজের আওতায় গ্রামীণ কুটির শিল্পের উদ্যোক্তাদের ঋণ দিতে পিকেএসএফের ২০২টি সংস্থাকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণ্য করার সুপারিশ করেছে। এ বিষয়ে পিকেএসএফ অর্থ মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি দিয়েছে। মন্ত্রণালয় সেটি বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠিয়েছে। পিকেএসএফ বলেছে, এসব সংস্থাকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণ্য করলে তখন তারাও ওই প্যাকেজ বাস্তবায়নে গ্রামে ঋণের জোগান দিতে পারবে।

এ বিষয়ে পিকেএসএফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলুল কাদের বলেন, করোনার প্রভাব মোকাবেলার জন্য এখন জরুরিভিত্তিতে প্রান্তিক কৃষক ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কাছে টাকার জোগান পৌঁছাতে হবে। তাহলে তারা পুনরায় উৎপাদন কাজ শুরু করতে পারবে। উৎপাদিত পণ্য যাতে তারা বাজারজাত করতে পারে সেজন্য পরিবহন খাতেও ঋণের জোগান দিতে হবে। একই সঙ্গে গ্রামে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সচল করে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বাড়াতে হবে। তা হলে সামগ্রিকভাবে অর্থনীতি সচল হবে।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত