চট্টগ্রামে দেড় হাজার কেজি স্কুলের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত

  এমএ কাউসার, চট্টগ্রাম ব্যুরো ১৫ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

করোনার ধাক্কায় চট্টগ্রামের পাড়া-মহল্লয় গড়ে ওঠা প্রায় দেড় হাজার কিন্ডারগার্টেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের উপক্রম হয়েছে। সরকারি সিদ্ধান্তে মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে এসব প্রতিষ্ঠান। ফলে তিন মাস শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি পরিশোধও বন্ধ রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, অর্থ সংকটের কারণে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন দিতে পারছে না বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠান। ফলে মানবেতর দিন কাটছে এসব প্রতিষ্ঠানের ২০-৩০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারীর। ফি নির্ভর এসব প্রতিষ্ঠানের ব্যয় সামলাতে না পেরে অনেকেই এখন পিছু হটছেন। প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়ার চিন্তাভাবনা করছেন।

সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম জেলায় প্রায় দেড় হাজার কিন্ডারগার্টেন বা কেজি স্কুল রয়েছে। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই ভাড়া বাড়িতে প্রতিষ্ঠিত। শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মাসিক বেতন নিয়েই প্রতিষ্ঠানের ভাড়াসহ বিভিন্ন খরচ বহন করে কর্তৃপক্ষ। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বেতন না পাওয়ায় অনেক প্রতিষ্ঠান ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও তারা বাড়িভাড়া এবং শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন দিতে পারছে না। নগরীর হালিশহর এলাকায় অবস্থিত এমবি গ্রামার স্কুলের প্রধান শিক্ষক বদরুল হাসান বলেন, চলমান পরিস্থিতিতে বাড়িভাড়া ও শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন বকেয়া পড়েছে। এ অবস্থায় সরকার এগিয়ে না এলে আমরা প্রতিষ্ঠানগুলো শেষ পর্যন্ত রক্ষা করতে পারব না। চট্টগ্রামের সারজন স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রতিষ্ঠাতা ও বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান এম ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, শিক্ষক-কর্মচারীদের এ দুর্দিনে অবশ্যই সরকারের এগিয়ে আসা উচিত।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরে লেখা এক চিঠিতে ইতিমধ্যে বর্তমান পরিস্থিতি তুলে ধরেছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ঈদুল ফিতরের পর হয়তো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশ আসবে। তখন আমাদের কী অবস্থা হবে? যদি এরকম অবস্থা হয় তাহলে এপ্রিল মাসের ঘর ভাড়া, শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ৩ মাসের বেতন-ভাতা, গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানিসহ অন্যান্য ব্যয়ভার এই ব্যক্তিমালিকানাধীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর পড়বে। ফলে এমন অন্তত দেড় হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাবে।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত