খুলনায় ওএমএস পণ্য কালোবাজারে

ডিলারের লাইসেন্স বাতিল ও মামলার সুপারিশ দুদকে

  খুলনা ব্যুরো ১৬ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খুলনায় ওএমএস কার্যক্রমে (খোলা বাজারে চাল-আটা বিক্রয়) অনিয়মের অভিযোগে গঠিত তদন্ত কমিটি অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে। এ ঘটনায় ৫টি লাইসেন্স বাতিলের সুপারিশ করেছে।

সঙ্গে একজন ডিলারের বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ আত্মসাতের দায়ে মামলা করতে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) সুপারিশ পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার এ নির্দেশনা দিয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরে চিঠি পাঠিয়েছে খুলনা জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসনের কার্যালয় সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

জেলা প্রশাসনের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ওএমএস কার্যক্রমে চাল-আটা বিক্রয়ে অনিয়মের অভিযোগের ভিত্তিতে জেলা প্রশাসকের উদ্যোগে ১৬ এপ্রিল ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওএমএস ডিলার সাঈয়েদুজ্জামান সম্রাট চাল-আটা বিক্রয়ে অনিয়ম করে আসছেন বলে অভিযোগ ওঠে। সম্রাটের পরিবারে একাধিক লাইসেন্স রয়েছে। সরেজমিন এসব লাইসেন্সের অনুকূলে নিজস্ব কোনো দোকান ঘরের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। গত ২/১ বছরে এসব লাইসেন্সের অনুকূলে কোনো আটা বা চাল দেয়া হয়নি বলে সংশ্লিষ্ট এলাকার জনসাধারণ সাক্ষ্য দিয়েছেন।

যেহেতু এ ৫টি ওএমএস লাইসেন্সের নিজস্ব দোকান ঘর নেই এবং স্বত্বাধিকারীর গরমিল রয়েছে। সেহেতু এ ডিলাররা নিয়মিত খাদ্য পণ্য তুললেও খোলা বাজারের পরিবর্তে কালোবাজারে বিক্রি করে সরকারের লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে তদন্ত টিমের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে। যে কারণে সরকারি অর্থ আত্মসাতের ঘটনা তদন্ত পূর্বক অভিযুক্ত ডিলারের বিরুদ্ধে মামলা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, চাল-আটা বিতরণে অনিয়মের পরিপ্রেক্ষিতে খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন ১৬ এপ্রিল ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

তিন কার্যদিবসের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। কমিটির সদস্যরা হলেন- আহ্বায়ক অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ইউসুফ আলী, সদস্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এএনএম ওয়াসিম ফিরোজ, দুদকের উপ-পরিচালক নাজমুল হাসান, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এবং জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মুহাম্মদ তানভীর রহমান। কমিটির দেয়া তদন্ত প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সম্রাটসহ ৫ ডিলারের লাইসেন্স বাতিল এবং অপর ডিলার আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মামলা করার সুপারিশ করা হয়।

এ ব্যাপারে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মুহাম্মদ তানভীর রহমান বলেন, ওএমএসসংক্রান্ত যে কোনো সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বিভাগীয় কমিশনার ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের সমন্বয়ে গঠিত কমিটি জানাবে। জেলা প্রশাসকের সুপারিশকৃত চিঠি ওই কমিটিকে দেয়া হবে। সেখান থেকে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত