ধরলা ও যমুনায় নৌকাডুবি, ১৪ লাশ, নিখোঁজ ৮

  যুগান্তর ডেস্ক ২৯ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের যমুনা ও কুড়িগ্রামের ধরলা নদীতে পৃথক নৌকাডুবিতে এ পর্যন্ত ১৪ জনের লাশ উদ্ধার হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছেন আরও আট যাত্রী। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার যমুনা নদী থেকে পাঁচ ও ধরলা থেকে চারজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-
চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) : সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার স্থল ইউনিয়নে যমুনা নদীতে যাত্রীবোঝাই নৌকাডুবিতে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত আরও পাঁচটি লাশ উদ্ধার হয়েছে। এ নিয়ে শিশুসহ ১০ জনের লাশ উদ্ধার হল। নিখোঁজ রয়েছেন অন্তত আট যাত্রী। মঙ্গলবার এনায়েতপুর থেকে ৭৩ যাত্রী নিয়ে নৌকাটি চৌহালী যাওয়ার পথে স্থলচর এলাকায় ঝড়ো হাওয়ার কবলে পড়ে ডুবে যায়। যাদের লাশ উদ্ধার হয়েছে তারা হলেন- বেলকুচি উপজেলার গয়নাকান্দি গ্রামের মৃত পাশান ফকির (৬৫) ও একই উপজেলার কলাগাছি গ্রামের শামীম হোসেনের ছেলে নাঈমুল ইসলাম (৪), টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার সুবর্ণগাতী গ্রামের আবদুল মজিদের ছেলে ওয়েলডিং মিস্ত্রি শেখ কামাল (৪০), শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরি ইউনিয়নের জয়পুরা গ্রামের নছিম মোল্লার ছেলে আজিজল মোল্লা (৩৮) ও একই গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে আমজাদ হোসেন (৪০)।
কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের উলিপুরে ছেলে পক্ষের বাড়িতে বৌভাত শেষে ফেরার পথে ধরলা নদীতে নৌকা ডুবে কনের বাবাসহ চারজনের লাশ উদ্ধার হয়েছে। তারা হলেন- উলিপুর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের যমুনা রায় গ্রামের মৃত কেরামত উল্লার ছেলে নুর ইসলাম নুরু, তৈয়ব আলীর স্ত্রী আমেনা বেগম, নুর ইসলাম ও কামরুজ্জামান। বৃহস্পতিবার তাদের লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। বুধবার বিকাল ৫টায় চর কলাকাটা নামানিরচর গ্রামে মেয়ে পক্ষের প্রায় ৪৫-৫০ জন বরের বাড়িতে বৌভাত খাওয়ার পর ফিরছিলেন। ধরলা নদীর মাঝপথে নৌকা ডুবে যায়।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত