জেলে বসে পরিকল্পনা, বেরিয়ে এসে ডাকাতি

এক নারীসহ গ্রেফতার ৪

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৬ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর পান্থপথ থেকে অভিনব কায়দায় ওয়ালটন কোম্পানির শোরুমের বিভিন্ন মালামাল ডাকাতির ঘটনায় চারজনকে গ্রেফতার করেছে শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশ। গ্রেফতাররা হল- রবিউল ইসলাম, সুমন, রানা ও সাথী বেগম। তাদের রাজধানী ও আশপাশ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে রবিউল জানিয়েছে, বিভিন্ন সময়ে চুরি-ডাকাতির মামলায় গ্রেফতার হয়ে তারা কয়েকজন জেলে যায়। জেলে তাদের পরিচয় হয়। এরপর তারা বড় কোনো শোরুমে ডাকাতি করার পরিকল্পনা করে। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর ২৩ জুন রাজধানীর ৫৭/১৫ পান্থপথের ওয়ালটন শোরুমের মালামাল তারা ডাকাতি করে। রোববার দুপুরে শেরেবাংলা নগর থানায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) হারুন-অর-রশিদ জানান, ডাকাতির ঘটনায় ২৪ জুন ওয়ালটন শোরুমের টিম ম্যানেজার রানা মিয়া শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন। মামলায় বলা হয়, ২৪টি ওয়ালটন ফ্রিজ, পাঁচটি এলইডি টিভি, একটি মোবাইল ফোন সেট এবং ওয়ালটনের গাড়ি চালকের সাড়ে চার হাজার টাকা এবং হেলপারের ৮০০ টাকা নিয়ে গেছে ডাকাতরা। ইলেকট্রনিক পণ্যগুলোর দাম ছয় লাখ টাকার বেশি। এ ঘটনার বর্ণনায় রানা মিয়া আরও জানান, ৭/১৫ পান্থপথ ওয়ালটন প্লাজা থেকে মালামাল কিশোরগঞ্জের ডিলারের কাছে পৌঁছানোর উদ্দেশে নিজস্ব পরিবহনে তোলা হয়। পণ্যের চালান চালক আনোয়ার হোসেন ও হেলপার মিরাজের কাছে দিয়ে শোরুমের কর্মচারীরা চলে যান।

এর কিছু সময় পর একটি খালি পিকআপে ৭-৮ জন এসে চাপাতির ভয় দেখিয়ে গাড়ির ভেতরে চালক ও হেলপারকে বেঁধে ওয়ালটনের গাড়ি নিজেদের জিম্মায় নেয়। এরপর বিভিন্ন জায়গায় মালামাল নামানোর পর চালক ও হেলপারকে গাড়িসহ রেখে ডাকাতরা পালিয়ে যায়।

ডিসি হারুন বলেন, মামলার ঘটনার তেমন কোনো ক্লু না থাকায় তদন্ত শুরু করতে হয় বড় পরিসরে। প্রথমে সিসিটিভি ক্যামেরার সহায়তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকাসহ ঢাকার বিভিন্ন স্থানের ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়। এরপর ১ জুলাই রবিউলকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বসিলা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকা থেকে সাতটি ফ্রিজ উদ্ধার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে রবিউল জানায়, ডাকাতিতে অংশ নেয়া তার চার সহযোগী শাহজাহান, মেহেদী হাসান মৃধা ওরফে হাসান, রনি ও আবদুর রহিম ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেফতারের পর জেলে আছে। শনিবার সুমন ও রানাকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের জাউচর আরশিনগর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে একটি টেলিভিশন উদ্ধার করা হয়। তাদের দেয়া তথ্যমতে, সাভার-আশুলিয়ায় মেহেদী হাসান মৃধার দুই আত্মীয়ের বাড়ি থেকে দুটি ফ্রিজ জব্দ করা হয়। এছাড়া সাথী নামের এক নারীকে গ্রেফতার ও তার দোকান থেকে ছয়টি ফ্রিজ উদ্ধার করা হয়। ময়মনসিংহ থেকে দুটি ফ্রিজ ও দুটি টেলিভিশন উদ্ধার করা হয়।

ডিসি হারুন-অর-রশিদ জানান, গ্রেফতাররা প্রত্যেকেই ডাকাত দলের সদস্য। বাকি তিনজনকে রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত