সরকারের উদাসীনতায় বিদেশে শ্রমবাজার হারানোর ঝুঁকি
jugantor
সরকারের উদাসীনতায় বিদেশে শ্রমবাজার হারানোর ঝুঁকি
-রিজভী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকারের উদাসীনতার কারণে বিদেশে বাংলাদেশি শ্রমবাজার হারানোর ঝুঁকিতে পড়েছে। তিনি বলেন- ইতালি, চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, তুরস্ক, কাতার, আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশের নাগরিকদের প্রবেশে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। ইতালির বিমানবন্দর থেকে ১৫২ বাংলাদেশিকে ফেরত দেয়া প্রমাণ করে সরকার জনস্বার্থের প্রতি কতটা উদাসীন। সরকারের দৃষ্টি শুধুই প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের প্রতি, প্রবাসীদের স্বার্থের প্রতি নয়। শুক্রবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী আরও বলেন, আমরা উদ্বেগের সঙ্গে বলতে চাই, গ্লোবাল ভিলেজের এ সময়ে করোনাভাইরাস টেস্টের ব্যাপারে আন্তর্জাতিক বিশ্বে বাংলাদেশ বিশ্বাসযোগ্যতা হারালে ভবিষ্যতে নাগরিকদের অত্যন্ত চড়া মূল্য দিতে হতে পারে। নাগরিকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে দেশে যেমন ভয়ংকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, অদূর ভবিষ্যতে আমাদের নাগরিকদের বিদেশের শ্রমবাজার থাকা না থাকার বিষয়টিও বেশ ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অনুমোদন পাওয়া ‘জেকেসি হেলথকেয়ার’ ও ‘রিজেন্ট হাসপাতাল’ নামের দুটি ‘ভুয়া’ প্রতিষ্ঠানের প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, ওই সব প্রতিষ্ঠানের একমাত্র যোগ্যতা ছিল- তাদের কর্ণধাররা ক্ষমতাসীন দলের নেতা কিংবা ঘনিষ্ঠ। অনুমোদন পেয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতিবাজরা টাকার বিনিময়ে হাজার হাজার মানুষকে রক্ত পরীক্ষা না করেই ‘করোনামুক্ত’ সার্টিফিকেট ইস্যু করত। তাদের সার্টিফিকেট নিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশিরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গিয়ে আটক কিংবা ফেরত আসতে শুরু করায় এখন সরকারের টনক নড়েছে।

রিজভী বলেন, করোনা কেলেঙ্কারি ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্যর্থতায় বর্তমান সরকার প্রধানের উচিত ছিল ন্যূনতমপক্ষে জনগণের কাছে ক্ষমা চাওয়া। সেটি না করে আমরা দেখলাম প্রধানমন্ত্রীর মুখে ভিন্ন সুর। বৃহস্পতিবার তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, তারা ধরছেন অথচ তাদেরই চোর বলা হচ্ছে। তার এ আক্ষেপের কারণ জনগণ বুঝতে পারছে না।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বিএনপি নেতা রিজভী বলেন, দুর্ভিক্ষাবস্থায় অসহায় কর্মহীন মানুষের জন্য বরাদ্দ সরকারি ত্রাণ নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও তাদের তথাকথিত জনপ্রতিনিধিরা যে কেলেঙ্কারি করেছেন, এরপরও তাদের চোর বলা ?যাবে না? মাটির তলে, খাটের তলে, খড়ের পালার মধ্যে, গ্যারেজের ভেতর থেকে হাজার হাজার বস্তা চাল ও হাজার লিটার তেল যাদের বাসা থেকে বের হচ্ছে তারা সবাই আপনার লোক।

বৃহস্পতিবার নরসিংদীর বাড়ি থেকে গ্রেফতার হওয়া ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসানের মিন্টুকে অবিলম্বে মুক্তি এবং ৩ দিন আগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থানার আলাইয়াপুর ইউনিয়নের ছাত্রদলের সাবেক নেতা টিটু হায়দারকে তুলে নেয়ার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে রিজভী। অবিলম্বে টিটু হায়দারকে জনসমক্ষে হাজির করার দাবি জানান রিজভী। তিনি বলেন, করোনাকালে সরকারি ব্যর্থতাকে আড়াল করতেই সরকার দেশব্যাপী বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও কারান্তরীণ করছে। এছাড়াও গুমের মতো অমানবিক ঘটনারও যেন হিড়িক পড়ে গেছে।

 

সরকারের উদাসীনতায় বিদেশে শ্রমবাজার হারানোর ঝুঁকি

-রিজভী
 যুগান্তর রিপোর্ট 
১১ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকারের উদাসীনতার কারণে বিদেশে বাংলাদেশি শ্রমবাজার হারানোর ঝুঁকিতে পড়েছে। তিনি বলেন- ইতালি, চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, তুরস্ক, কাতার, আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশের নাগরিকদের প্রবেশে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। ইতালির বিমানবন্দর থেকে ১৫২ বাংলাদেশিকে ফেরত দেয়া প্রমাণ করে সরকার জনস্বার্থের প্রতি কতটা উদাসীন। সরকারের দৃষ্টি শুধুই প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের প্রতি, প্রবাসীদের স্বার্থের প্রতি নয়। শুক্রবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী আরও বলেন, আমরা উদ্বেগের সঙ্গে বলতে চাই, গ্লোবাল ভিলেজের এ সময়ে করোনাভাইরাস টেস্টের ব্যাপারে আন্তর্জাতিক বিশ্বে বাংলাদেশ বিশ্বাসযোগ্যতা হারালে ভবিষ্যতে নাগরিকদের অত্যন্ত চড়া মূল্য দিতে হতে পারে। নাগরিকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে দেশে যেমন ভয়ংকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, অদূর ভবিষ্যতে আমাদের নাগরিকদের বিদেশের শ্রমবাজার থাকা না থাকার বিষয়টিও বেশ ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অনুমোদন পাওয়া ‘জেকেসি হেলথকেয়ার’ ও ‘রিজেন্ট হাসপাতাল’ নামের দুটি ‘ভুয়া’ প্রতিষ্ঠানের প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, ওই সব প্রতিষ্ঠানের একমাত্র যোগ্যতা ছিল- তাদের কর্ণধাররা ক্ষমতাসীন দলের নেতা কিংবা ঘনিষ্ঠ। অনুমোদন পেয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতিবাজরা টাকার বিনিময়ে হাজার হাজার মানুষকে রক্ত পরীক্ষা না করেই ‘করোনামুক্ত’ সার্টিফিকেট ইস্যু করত। তাদের সার্টিফিকেট নিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশিরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গিয়ে আটক কিংবা ফেরত আসতে শুরু করায় এখন সরকারের টনক নড়েছে।

রিজভী বলেন, করোনা কেলেঙ্কারি ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্যর্থতায় বর্তমান সরকার প্রধানের উচিত ছিল ন্যূনতমপক্ষে জনগণের কাছে ক্ষমা চাওয়া। সেটি না করে আমরা দেখলাম প্রধানমন্ত্রীর মুখে ভিন্ন সুর। বৃহস্পতিবার তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, তারা ধরছেন অথচ তাদেরই চোর বলা হচ্ছে। তার এ আক্ষেপের কারণ জনগণ বুঝতে পারছে না।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বিএনপি নেতা রিজভী বলেন, দুর্ভিক্ষাবস্থায় অসহায় কর্মহীন মানুষের জন্য বরাদ্দ সরকারি ত্রাণ নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও তাদের তথাকথিত জনপ্রতিনিধিরা যে কেলেঙ্কারি করেছেন, এরপরও তাদের চোর বলা ?যাবে না? মাটির তলে, খাটের তলে, খড়ের পালার মধ্যে, গ্যারেজের ভেতর থেকে হাজার হাজার বস্তা চাল ও হাজার লিটার তেল যাদের বাসা থেকে বের হচ্ছে তারা সবাই আপনার লোক।

বৃহস্পতিবার নরসিংদীর বাড়ি থেকে গ্রেফতার হওয়া ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসানের মিন্টুকে অবিলম্বে মুক্তি এবং ৩ দিন আগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থানার আলাইয়াপুর ইউনিয়নের ছাত্রদলের সাবেক নেতা টিটু হায়দারকে তুলে নেয়ার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে রিজভী। অবিলম্বে টিটু হায়দারকে জনসমক্ষে হাজির করার দাবি জানান রিজভী। তিনি বলেন, করোনাকালে সরকারি ব্যর্থতাকে আড়াল করতেই সরকার দেশব্যাপী বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও কারান্তরীণ করছে। এছাড়াও গুমের মতো অমানবিক ঘটনারও যেন হিড়িক পড়ে গেছে।