বিশ্বে করোনা রোগী এক কোটি ৩০ লাখ ছাড়াল

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৩০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় এক লাখ ৭৩ হাজার। এক সপ্তাহ ধরেই বিশ্বজুড়ে আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে ভয়ঙ্কর এ ভাইরাসের সংক্রমণ। প্রতিদিনই দুই লাখের বেশি নতুন রোগী যোগ হচ্ছে তালিকায়। তাই করোনা মোকাবেলায় সরকারগুলোকে আরও আগ্রাসী পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদ্রোস আদানম। এদিকে ইউরোপ-আমেরিকার শক্তিশালী দেশগুলো করোনার কাছে বিধ্বস্ত হলেও একে জয় করে দেখাল কিউবা। শিগগিরই শতভাগ করোনামুক্ত হওয়ার পথে দেশটি। ভারতে গেল ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৯ হাজারের বেশি মানুষ। এমন অবস্থায়ও দেশটির উত্তরাখণ্ড, হিমাচল, গোয়ার পর আজ থেকে পর্যটকদের জন্য দরজা খুলছে ভূস্বর্গ কাশ্মীরের। ইরানে দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। খবর বিবিসি, গার্ডিয়ান ও এএফপিসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের। বাংলাদেশ সময় সোমবার রাত ৮টা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য অনুযায়ী- বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ৩০ লাখ ৮০ হাজার ৬৫৮ জন। মারা গেছেন ৫ লাখ ৭২ হাজার ৮৩৯ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৫৮ হাজার ৭০৯ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৭৬ লাখ ২৪ হাজার ৩৯৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ১ হাজার ৮৭, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ১১৮ জনের; যা আগের ২৪ ঘণ্টায় ছিল যথাক্রমে ২ লাখ ১৪ হাজার ৭৬৭ ও ৫ হাজার ১৫ জন।

বিশ্ব তালিকায় শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৮ হাজার ৩৪৯ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। সংক্রমণ বাড়লেও দেশটিতে মৃত্যু খানিকটা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৩৮০ জন, যা আগের দিন ছিল ৭৩১ জন। এ নিয়ে সেখানে মোট আক্রান্ত ৩৪ লাখ ১৪ হাজার ৫৮৪ জন, মারা গেছেন ১ লাখ ৩৭ হাজার ১৮৫ জন। তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে সংক্রমণ ও প্রাণহানি কিছুটা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে আক্রান্ত হয়েছেন ২৫ হাজার ৫৮৪ জন, মৃত্যু হয়েছে ৬৫৯ জনের; যা আগের দিন ছিল যথাক্রমে ৩৬ হাজার ৪৮৬ জন ও ৯৬৮ জন। দেশটিতে মোট রোগীর সংখ্যা ১৮ লাখ ৬৬ হাজার ৬৫৫ জন, মৃত্যু হয়েছে ৭২ হাজার ১৫১ জনের।

রাশিয়াকে ছাড়িয়ে তৃতীয় স্থানে উঠে আসা ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ২৯ হাজার ১০৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৫০০ জনের। এ নিয়ে দেশটিতে মোট রোগী ৮ লাখ ৮৮ হাজার ৭৬৮ জন, মারা গেছেন ২৩ হাজার ৩৩৩ জন। দেশটিতে হু হু করে রোগী বাড়লেও ধাপে ধাপে লকডাউনের বিধিনিষেধ তুলে দেয়া হচ্ছে। উত্তরাখণ্ড, হিমাচল, গোয়ার পর এবার পর্যটকদের জন্য দরজা খুলে দিচ্ছে কাশ্মীরও। আজ থেকে পর্যটন শুরু হচ্ছে জম্মু ও কাশ্মীরে। তবে শুধু আকাশপথেই এখন যাওয়া যাবে এই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে। পর্যটকদের মানতে হবে বেশ কিছু বিধিনিষেধও।

চতুর্থ স্থানে রাশিয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা ৭ লাখ ৩৩ হাজার ৬৯৯ জন, মারা গেছেন ১১ হাজার ৪৩৯ জন। পঞ্চম স্থানে থাকা পেরুতে মোট আক্রান্ত ৩ লাখ ২৬ হাজার ২৭৮ জন, মারা গেছেন ১১ হাজার ৮৭০ জন। স্পেনকে ছাড়িয়ে ষষ্ঠ স্থানে উঠে আসা চিলিতে মোট আক্রান্ত ৩ লাখ ১৫ হাজার ৪১ জন, মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৯৭৯ জনের। স্পেনে মোট আক্রান্ত ৩ লাখ ৯৮৮ জন, মৃত্যু হয়েছে ২৮ হাজার ৪০৩ জনের।

পথ দেখাল কিউবা : লাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশে যখন তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনা, সেখানে কিউবায় মোটেও সুবিধা করতে পারেনি ভাইরাসটি। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সব মিলিয়ে ২ হাজার ৪শ’র মতো, এর মধ্যে ২ হাজার ২শ’র বেশি ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মারা গেছেন মাত্র ৮৭ জন। এরই মধ্যে সচল হয়েছে দেশটির আন্তঃপ্রদেশীয় যোগাযোগ (রাজধানী হাভানা বাদে)। দেশি পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে হোটেলগুলো। ১ জুলাই থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় চালু হয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যটনও। কিন্তু কীভাবে সেটা সম্ভব হল? মূলত কড়া কোয়ারেন্টিনের মাধ্যমেই মহামারীর লাগাম টেনে ধরেছে কিউবা। লকডাউন শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই দেশটিতে বন্ধ করে দেয়া হয় সবধরনের আন্তর্জাতিক চলাচল। করোনা মোকাবেলায় অনেকটা রাসায়নিক যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়ে রাস্তায় নামে কিউবার সশস্ত্র বাহিনী। পাম্প ও ট্যাঙ্ক ট্রাক ব্যবহার করে সড়কগুলোতে নিয়ম করে জীবাণুনাশক ছিটানো হয়। এছাড়া কিউবানদের করোনা যুদ্ধে জেতার সবচেয়ে বড় অস্ত্র মনে করা হচ্ছে তাদের বিপুলসংখ্যক দক্ষ চিকিৎসাকর্মীদের। ১ কোটি ১০ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে এ মুহূর্তে চিকিৎসক আছেন প্রায় ৯৫ হাজার, নার্স আছেন ৮৫ হাজারের বেশি। জনপ্রতি মানুষের জন্য বিদ্যমান চিকিৎসকের সংখ্যায় স্পেনের চেয়ে প্রায় তিনগুণ এগিয়ে কিউবা।

আরও আগ্রাসী পদক্ষেপ নিতে হবে-ডব্লিউএইচও : মহামারী করোনাভাইরাসের প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য সরকারগুলোকে আরও আগ্রাসী পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটি বলছে, এ ভাইরাসটি বর্তমানে আশঙ্কাজনক হারে ছড়ালেও এর লাগাম এখনও টেনে ধরা সম্ভব। ইতালি, স্পেন, দক্ষিণ কোরিয়ার সফলতার উদাহরণ টেনে সরকারগুলোকে দ্রুত কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আদানম। তিনি বলেন, পরিস্থিতি যতই খারাপ হোক না কেন, শক্তভাবে পদক্ষেপ নিলে এখনও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব।

মৃত্যুর সংখ্যায় ইতালিকে ছাড়াল মেক্সিকো : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় মেক্সিকোতে ২৭৬ জন মারা গেছেন। এতে প্রাণহানির হিসাবে ইতালিকে টপকে বিশ্বে চার নম্বরে উঠে গেছে লাতিন আমেরিকার দেশটি। মেক্সিকোতে সর্বমোট মৃত্যু হয়েছে ৩৫ হাজার ৬ জনের। অন্যদিকে ইউরোপের মৃত্যুপুরী নাম পাওয়া ইতালিতে মারা গেছেন ৩৪ হাজার ৯৫৪ জন।

আর্জেন্টিনায় লাখ ছাড়াল আক্রান্ত : করোনাভাইরাস জেঁকে বসেছে লাতিন আমেরিকার আরেক দেশ আর্জেন্টিনায়। রোববার দেশটিতে ২ হাজার ৬৫৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তাতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লাখ ১৬৬ জন। দেশটিতে এ পর্যন্ত মারা গেছেন ১ হাজার ৮৪৫ জন।

ইরানে দ্বিতীয় দফায় করোনার সংক্রমণ : ইরানে করোনার দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ শুরু হয়েছে। এতে দেশটিতে মৃত্যুর সংখ্যা নতুন রেকর্ড ছুঁয়েছে। যদিও সংক্রমণ কমে আসার প্রবণতা দেখে দেশটি মধ্য এপ্রিলে নানা বিধিনিষেধ শিথিল করতে শুরু করেছিল। এখন দেখা যাচ্ছে গত কয়েক সপ্তাহে ব্যাপক হারে বেড়েছে সংক্রমণ। দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৫৯ হাজার ৪৫৪ জন, মৃত্যু হয়েছে ১৩ হাজার ৩২ জনের।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত