বিশ্বে প্রথম করোনা ভ্যাকসিনের সাফল্য ঘোষণা রাশিয়ার

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রথম কোন দেশ তৈরি করবে, তা নিয়ে জোর চর্চা চলছিল। এর মধ্যেই রাশিয়ার সেশনভ ফার্স্ট মস্কো স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটির দাবি, তাদের তৈরি ভ্যাকসিনের মানবদেহে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। পরীক্ষার ফল যথেষ্ট ইতিবাচক বলেও দাবি তাদের। এদিকে হিউম্যান ট্রায়ালের অনুমতি পেয়েছে ভারতের প্রথম সম্ভাব্য করোনা ভ্যাকসিন (টিকা)। অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে আরও একটি সম্ভাব্য টিকার হিউম্যান ট্রায়াল শুরু হয়েছে। খবর এনডিটিভি ও রাশিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা স্পুটনিকসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের।

খবরে বলা হয়, রাশিয়ার গামালেই ইন্সটিটিউট অব এপিডেমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজিও ওই ভ্যাকসিন তৈরির সঙ্গে যুক্ত। তাদের এ করোনা ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়াল শুরু হয়েছিল ১৮ জুন। এ পরীক্ষায় সফলতার সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়েছে ভ্যাকসিনটি। ইন্সটিটিউট ফর ট্রানশ্লেসনাল মেডিসিন অ্যান্ড বায়োটেকনোলজির পরিচালক ভাদিম তারাসোভ জানান, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে বিশ্বে প্রথমবার স্বেচ্ছাসেবকদের ওপর পরীক্ষা সফলভাবে সম্পন্ন করেছে সেশনভ ইউনিভার্সিটি। ট্রায়ালে অংশ নেয়া স্বেচ্ছাসেবকদের প্রথম দলটিকে আগামী বুধবার ছেড়ে দেয়া হবে। দ্বিতীয় দলটি ছাড়া পাচ্ছে ২০ জুলাই।

সেশনভ ইউনিভার্সিটির ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল প্যারাসাইটোলজির পরিচালক আলেকজান্ডার লুকাশেভ জানান, তাদের গবেষণার প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল এটি মানবদেহের জন্য নিরাপদ কি না, তা নিশ্চিত করা, যা সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের গবেষণা সম্পন্ন হয়েছে এবং ভ্যাকসিনটি নিরাপদ তা নিশ্চিত হয়েছে। তবে কবে থেকে এ ভ্যাকসিনের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হতে পারে, সে ব্যাপারে কিছুই জানাননি তিনি।

পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি পেল ভারতের ভ্যাকসিন : মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি পেল ভারতের প্রথম ভ্যাকসিন। কোভ্যাক্সিন নামে করোনার এই ভ্যাকসিনটি মানবদেহে প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে পরীক্ষা চালানোর অনুমতি দিয়েছে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া। আগামী জুলাই থেকে সারা দেশে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। সরকারি উদ্যোগে তৈরি হচ্ছে এই ভ্যাকসিন। হায়দরাবাদভিত্তিক ভারত বায়োটেক এবং ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর মেডিকেল রিসার্চের (আইসিএমআর) যৌথ উদ্যোগে করোনার এই প্রতিষেধকটি তৈরি করা হয়েছে। এ বিষয়ে ভারত বায়োটেকের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. কৃষ্ণ এল্লা বলেন, আমরা কোভিড-১৯ প্রতিরোধ করতে দেশের প্রথম টিকা আবিষ্কার করতে পেরে গর্বিত। কোভ্যাক্সিন নামের এই টিকা তৈরির কাজে আইসিএমআর এবং এনআইভি আমাদের সহযোগিতা করেছে। এর আগে ভারতীয় বিজ্ঞানীদের আবিষ্কৃত এই ভ্যাকসিনের প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এবং নিরাপত্তা ও প্রতিরোধ ক্ষমতা সংক্রান্ত ট্রায়ালের ফলাফল সরকারকে জমা দেয় বায়োটেক।

হিউম্যান ট্রায়ালে অস্ট্রেলিয়ার টিকা : অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে করোনাভাইরাসের আরও একটি সম্ভাব্য টিকার হিউম্যান ট্রায়াল শুরু হয়েছে। ব্রিসবেনে ১২০ জন স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে এর প্রথম ডোজ প্রয়োগ করা হবে। টিকাটি তৈরি করেছেন ইউনিভার্সিটি অব কুইন্সল্যান্ডের গবেষকরা। ট্রায়ালের অংশ হিসেবে প্রতি চার সপ্তাহ পর ইনজেকশনের মাধ্যমে স্বেচ্ছাসেবীদের শরীরে দুই ডোজ করে টিকা দেয়া হবে। গবেষকরা এ নিয়ে পর্যালোচনা করবেন এবং স্বেচ্ছাসেবীদের এক বছর পর্যন্ত পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। তবে আগামী সেপ্টেম্বরের শেষ নাগাদ ট্রায়ালের প্রাথমিক ফল মিলবে বলে আশা করা হচ্ছে। টিকাটির এই হিউম্যান ট্রায়ালকে কুইন্সল্যান্ডের জন্য একটি রোমাঞ্চকর দিন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন রাজ্যটির প্রিমিয়ার আনাস্টেসিয়া প্যালাস্কজুক।

জার্মানিতে টিকার পরীক্ষায় ব্যাপক সাড়া : সাধারণত মেডিকেল গবেষণায় ‘গিনিপিগ’ হতে কেউ রাজি হয় না। কিন্তু করোনাভাইরাসের টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষায় অংশ নিতে এগিয়ে এসেছেন হাজারও মানুষ। সম্প্রতি জার্মানিতে মানবদেহে করোনাভাইরাসের টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষা করতে স্বেচ্ছাসেবকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়। এতে ব্যাপক সাড়া মেলে। জার্মানির সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে জানায়, টুবিংয়েনের ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের একদল গবেষক কোভিড-১৯-এর টিকা মানবদেহে কতটা কার্যকর তা পরীক্ষা করতে চলেছেন। এতে এখন পর্যন্ত প্রায় চার হাজার মানুষ নাম নিবন্ধন করেছেন। এত মানুষের সাড়ায় অবাক গবেষকরাও।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত