কীর্তিতে চির অম্লান নুরুল ইসলাম
jugantor
শ্যামপুর ইকোপার্কে হেলথ সোসাইটির শোকসভায় বক্তারা
কীর্তিতে চির অম্লান নুরুল ইসলাম

  দনিয়া প্রতিনিধি  

২৬ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মানুষের দোয়ায় পরপারে ভালো থাকবেন দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পপরিবার যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম। সাহসী এ শিল্পোদ্যোক্তা অত্যন্ত সততা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে ৪১টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। যেখানে তিনি লক্ষাধিক মানুষকে কাজ দিয়ে জীবিকা নির্বাহের সুযোগ করে দিয়েছেন। এসব মানুষের পরিবারের সদস্যদের দোয়ায় মহান আল্লাহতায়ালা তাকে পরপারে নিশ্চয়ই ভালো রাখবেন।

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনায় শনিবার শ্যামপুর ইকোপার্ক হেলথ সোসাইটি অ্যান্ড জিমের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল ও শোকসভায় বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

বক্তারা বলেছেন, নুরুল ইসলাম ছিলেন একজন বড় মনের মানুষ। দেশমাতৃকার টানে জীবন বাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেই তিনি ক্ষান্ত হননি। বরং যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের অর্থনীতির ভিত মজবুত করতে তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন। তিনি চলে গেলেও তার এ অবদান চিরভাস্বর, চির অম্লান হয়ে থাকবে। তিনি বিশ্বের দরবারে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। যিনি মৃত্যুর সময় এক টাকাও খেলাপি ছিলেন না। এ বীর সাহসী মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে দেশ একজন দেশপ্রেমিক ও বড় শিল্পোদ্যোক্তাকে হারিয়েছেন যা দেশের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল।

সংগঠনের সহসভাপতি ইব্রাহীম হাসান মিঠুর সভাপতিত্বে ক্রীড়া সম্পাদক শামীম আহমেদ সামুর সঞ্চালনায় যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও শোকসভায় বক্তব্য রাখেন আপেল মাহমুদ, নূরে আলম কান্দু, মোখলেছুর রহমান, ইয়াকুব হোসেন বিপ্লব, কবির হোসেন স্বপন, রফিকুল ইসলাম, মো. মাসুদ, মুক্তার হোসেন। উপস্থিত ছিলেন মো. ফরিদ, রাকিবুল হাসান রনি, মো. শাহীনসহ ইকোপার্কের কর্মচারীরা।

শ্যামপুর ইকোপার্কে হেলথ সোসাইটির শোকসভায় বক্তারা

কীর্তিতে চির অম্লান নুরুল ইসলাম

 দনিয়া প্রতিনিধি 
২৬ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মানুষের দোয়ায় পরপারে ভালো থাকবেন দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পপরিবার যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম। সাহসী এ শিল্পোদ্যোক্তা অত্যন্ত সততা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে ৪১টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। যেখানে তিনি লক্ষাধিক মানুষকে কাজ দিয়ে জীবিকা নির্বাহের সুযোগ করে দিয়েছেন। এসব মানুষের পরিবারের সদস্যদের দোয়ায় মহান আল্লাহতায়ালা তাকে পরপারে নিশ্চয়ই ভালো রাখবেন।

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনায় শনিবার শ্যামপুর ইকোপার্ক হেলথ সোসাইটি অ্যান্ড জিমের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল ও শোকসভায় বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

বক্তারা বলেছেন, নুরুল ইসলাম ছিলেন একজন বড় মনের মানুষ। দেশমাতৃকার টানে জীবন বাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেই তিনি ক্ষান্ত হননি। বরং যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের অর্থনীতির ভিত মজবুত করতে তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন। তিনি চলে গেলেও তার এ অবদান চিরভাস্বর, চির অম্লান হয়ে থাকবে। তিনি বিশ্বের দরবারে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। যিনি মৃত্যুর সময় এক টাকাও খেলাপি ছিলেন না। এ বীর সাহসী মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে দেশ একজন দেশপ্রেমিক ও বড় শিল্পোদ্যোক্তাকে হারিয়েছেন যা দেশের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল।

সংগঠনের সহসভাপতি ইব্রাহীম হাসান মিঠুর সভাপতিত্বে ক্রীড়া সম্পাদক শামীম আহমেদ সামুর সঞ্চালনায় যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও শোকসভায় বক্তব্য রাখেন আপেল মাহমুদ, নূরে আলম কান্দু, মোখলেছুর রহমান, ইয়াকুব হোসেন বিপ্লব, কবির হোসেন স্বপন, রফিকুল ইসলাম, মো. মাসুদ, মুক্তার হোসেন। উপস্থিত ছিলেন মো. ফরিদ, রাকিবুল হাসান রনি, মো. শাহীনসহ ইকোপার্কের কর্মচারীরা।