নুরুল ইসলাম ছিলেন সাহসী শিল্পোদ্যোক্তা
jugantor
সিলেটে শোকসভায় বক্তারা
নুরুল ইসলাম ছিলেন সাহসী শিল্পোদ্যোক্তা

  সিলেট ব্যুরো  

২৬ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনসহ ৪১ প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামের শোকসভা ও দোয়া মাহফিল শনিবার সিলেটে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

যুগান্তরের সিলেট ব্যুরো ইনচার্জ সংগ্রাম সিংহের সভাপতিত্বে শোকসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা আবদুল্লাহ সিদ্দীকি। বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাছির উদ্দিন খান, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, সিলেট প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দীকি, সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম চৌধুরী নবেল, ইমজা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক সজল ছত্রী প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন যুগান্তরের সিলেট ব্যুরো ইনচার্জ সংগ্রাম সিংহ। শোকসভা শেষে দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন ব্লু-ওয়াটার শপিং সিটি মসজিদের ইমাম হাফিজ মো. হারিছ উদ্দিন।

শোকসভায় বক্তারা বলেন, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম দেশপ্রেমিক সাহসী শিল্পোদ্যোক্তা ছিলেন। স্বাধীনতাযুদ্ধেও ছিল তার অগ্রণী ভূমিকা। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন স্পষ্টভাষী। এত বড় শিল্পপতি হয়েও তিনি সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। সাহসিকতার সঙ্গে তিনি যুগান্তর ও যমুনা টিভিকে দেশের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমে পরিণত করেছেন। তার মৃত্যুতে দেশের শিল্প ও গণমাধ্যমের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে।

যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশন সিলেট ব্যুরো আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার ও সিলেট প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রশিদ রেনু, সিলেট বিভাগীয় ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মামুন হাসান, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজতকান্তি গুপ্ত, এসিড সন্ত্রাস নির্মূল কমিটির (এসনিক) সভাপতি জুরেজ আবদুল্লাহ গোলজার, সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম, যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার আজমল খান, ইয়াহ্ইয়া মারুফ, যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার মাইদুল রাসেল, ভিডিও জার্নালিস্ট নিরানন্দ পাল, শাকিল আহমদ সোহাগ, সাংবাদিক প্রধান এমএ মতিন, হাসান সিকান্দার সেলিম, শফি আহমদ, এস আলম আলমগীর, অনিল পাল, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক ফোরাম সিলেটের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল সাঁই, বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা সিলেট মহানগরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আহমদ হোসেন খান, ফটো সাংবাদিক রণজিৎ সিংহ, সমাজকর্মী হাবিবুর রহমান, যুগান্তর স্বজন সমাবেশ সিলেটের সভাপতি প্রভাষক সুমন রায়, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম অনি, সদস্য শাওন আহমদ, বদরুল ইসলাম শাকির, চলচ্চিত্র নির্মাতা উত্তম কুমার সিংহ, শাহাদাৎ হোসেন সুজন ও জিয়াদুর রহমান সুমন।

সিলেটে শোকসভায় বক্তারা

নুরুল ইসলাম ছিলেন সাহসী শিল্পোদ্যোক্তা

 সিলেট ব্যুরো 
২৬ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনসহ ৪১ প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামের শোকসভা ও দোয়া মাহফিল শনিবার সিলেটে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

যুগান্তরের সিলেট ব্যুরো ইনচার্জ সংগ্রাম সিংহের সভাপতিত্বে শোকসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা আবদুল্লাহ সিদ্দীকি। বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাছির উদ্দিন খান, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, সিলেট প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দীকি, সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম চৌধুরী নবেল, ইমজা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক সজল ছত্রী প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন যুগান্তরের সিলেট ব্যুরো ইনচার্জ সংগ্রাম সিংহ। শোকসভা শেষে দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন ব্লু-ওয়াটার শপিং সিটি মসজিদের ইমাম হাফিজ মো. হারিছ উদ্দিন।

শোকসভায় বক্তারা বলেন, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম দেশপ্রেমিক সাহসী শিল্পোদ্যোক্তা ছিলেন। স্বাধীনতাযুদ্ধেও ছিল তার অগ্রণী ভূমিকা। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন স্পষ্টভাষী। এত বড় শিল্পপতি হয়েও তিনি সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। সাহসিকতার সঙ্গে তিনি যুগান্তর ও যমুনা টিভিকে দেশের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমে পরিণত করেছেন। তার মৃত্যুতে দেশের শিল্প ও গণমাধ্যমের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে।

যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশন সিলেট ব্যুরো আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার ও সিলেট প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রশিদ রেনু, সিলেট বিভাগীয় ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মামুন হাসান, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজতকান্তি গুপ্ত, এসিড সন্ত্রাস নির্মূল কমিটির (এসনিক) সভাপতি জুরেজ আবদুল্লাহ গোলজার, সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম, যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার আজমল খান, ইয়াহ্ইয়া মারুফ, যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার মাইদুল রাসেল, ভিডিও জার্নালিস্ট নিরানন্দ পাল, শাকিল আহমদ সোহাগ, সাংবাদিক প্রধান এমএ মতিন, হাসান সিকান্দার সেলিম, শফি আহমদ, এস আলম আলমগীর, অনিল পাল, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক ফোরাম সিলেটের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল সাঁই, বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা সিলেট মহানগরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আহমদ হোসেন খান, ফটো সাংবাদিক রণজিৎ সিংহ, সমাজকর্মী হাবিবুর রহমান, যুগান্তর স্বজন সমাবেশ সিলেটের সভাপতি প্রভাষক সুমন রায়, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম অনি, সদস্য শাওন আহমদ, বদরুল ইসলাম শাকির, চলচ্চিত্র নির্মাতা উত্তম কুমার সিংহ, শাহাদাৎ হোসেন সুজন ও জিয়াদুর রহমান সুমন।