দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া

বেড়েছে পশুবাহী ট্রাকের চাপ, ঘাটে সারি সারি গাড়ি

পদ্মা-যমুনার তীব্র স্রোতে বিলীন হতে পারে ফেরিঘাট

  গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি ২৬ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলা থেকে আসা ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলগামী পশুবাহী ট্রাকের চাপ ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে দক্ষিণবঙ্গের প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাটে। সেই সঙ্গে অন্যান্য যানবাহনের চাপে ঘাট এলাকায় শত শত যানবাহন নদী পারের অপেক্ষায় আটকা পড়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, এ অবস্থার মধ্যে পদ্মা-যমুনা নদীতে অব্যাহত পানি বৃদ্ধি থাকায় স্রোতের তীব্রতা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। পদ্মা নদীর দৌলতদিয়া পয়েন্টে পানির সাধারণ লেভেল ৮.৬৫ মিটার। শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৯ সেমি. পানি বৃদ্ধি পেয়ে সাধারণ লেভেল থেকে ১১৩ সেমি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

অতিরিক্ত পানি বৃদ্ধির কারণে দৌলতদিয়ার ৪নং ও ৬নং ফেরিঘাটে অ্যাপ্রোচ সড়কে পানি উঠে গেছে। তার মধ্য দিয়েই চলছে যানবাহন ওঠানামা। অপর ৪টি ঘাটও পানিতে ডুবুডুবু অবস্থা। প্রচণ্ড সে াত ঘূর্ণনের সাথে ঘাটগুলোতে আঘাত করছে। এ অবস্থায় আর এক-দেড় ফুট পানি বৃদ্ধি পেলে ঘাটগুলো নদীতে বিলীন হয়ে পন্টুনগুলো ভেসে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন বিআইডব্লিউটিসি’র স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

এদিকে বন্যা ও ভাঙনের আশঙ্কা মাথায় রেখে দৌলতদিয়ায় নতুন করে আরেকটি ফেরিঘাট (৭নং) নির্মাণের উদ্যোগ নেয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বিআইডব্লিউটিএ এবং সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের উদাসিনতায় সে উদ্যোগ এখনও পর্যন্ত প্রাথমিক স্তরে রয়েছে। এতে চালু ঘাটগুলো নদীতে বিলীন হলে এ রুটের ফেরি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করেছেন ফেরিসংশ্লিষ্ট অনেকেই।

সরেজমিন দেখা যায়, শনিবার সকাল থেকেই সারা দিন বহু পশুবাহী ট্রাক নদী পারের জন্য দৌলতদিয়া ঘাটে আসছে। রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম (বিপিএম-বার)-এর নির্দেশক্রমে পশুবাহী যানবাহনগুলোকে আলাদা লেন করে ভিআইপি মর্যাদায় সরাসরি ফেরিতে ওঠার সুযোগ করে দিচ্ছে পুলিশ ও ফেরি কর্তৃপক্ষ। তার পরও ফেরি সংকটে পশুবাহী গাড়িগুলোকে এক-দেড় ঘণ্টা পর্যন্ত মহাসড়কে আটকে থাকতে হয় বলে অনেক চালক জানান।

তবে দৌলতদিয়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের তিন কিলোমিটার এলাকাজুড়ে মহাসড়কে প্রায় তিন শতাধিক যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক নদী পারের অপেক্ষায় রয়েছে। অপর দিকে রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোয়ালন্দ মোড় ট্রাফিক পুলিশ বক্স থেকে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের প্রায় চার কিমি. এলাকাজুড়ে অপচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক সিরিয়ালে নদী পারের অপেক্ষায় আটকে রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া অফিস জানায়, পদ্মায় পানি বৃদ্ধি ও নদীতে তীব্র সে াতের কারণে বেশ কয়েক দিন ধরেই মারাত্মকভাবে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথের ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। যেখানে স্বাভাবিক সময়ে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি চলাচলে ৩০-৩৫ মিনিট সময় লাগত, সেখানে বর্তমানে এক ঘণ্টার বেশি সময় লাগছে। ফেরিগুলোকে ঘাটে পৌঁছাতে অন্তত ২-৩ কিমি. ভাটিতে ঘুরে আসতে হচ্ছে। এতে করে ফেরির ট্রিপ সংখ্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। পাশাপাশি বেড়েছে যানবাহন। ফলে ঘাটে গাড়ি আটকা পড়ছে।

বিআইডব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক মো. আবু আবদুল্লাহ রনি জানান, পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি ও তীব্র সে াতের কারণে নদীতে ফেরি চলাচল ও ঘাটে ভিড়তে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে দ্বিগুণ সময় লাগছে। নৌপথে চলমান ১৩টি ফেরির বহরে শুক্রবার যুক্ত হয়েছে রোরো ফেরি কেরামত আলী।

রোব ও সোমবার যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে রোরো ফেরি শাহ আলী ও বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন। ফেরির সংকট কেটে গেলেও তীব্র স্রোত পানি বৃদ্ধির কারণে আমরা ঘাট রক্ষা ও ফেরি সার্ভিস চালু রাখা নিয়ে শঙ্কায় আছি। এই জরুরি মুহূর্তে বিকল্প ৭নং ফেরিঘাটটি ব্যবহারের উপযোগী থাকলে কিছুটা হলেও ভরসা থাকত।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত