তিনি ছিলেন দেশপ্রেমিক সফল শিল্পোদ্যোক্তা
jugantor
রংপুরে শোকসভা
তিনি ছিলেন দেশপ্রেমিক সফল শিল্পোদ্যোক্তা

  রংপুর ব্যুরো  

৩০ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক সফল শিল্পোদ্যোক্তা। তিনি দেশমাতৃকার মুক্তির সংগ্রামে সম্মুখ যোদ্ধা ছিলেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নেও তার ভূমিকা ছিল অবিস্মরণীয়। সততার সঙ্গে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার এক অনন্য কারিগর তিনি।

রংপুর জেলা পরিষদ কমিউনিটি সেন্টারে বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামের মৃত্যুতে যুগান্তর রংপুর ব্যুরো অফিস ও স্বজন সমাবেশের আয়োজনে বুধবার এক শোকসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। যুগান্তর রংপুর ব্যুরো প্রধান মাহবুব রহমানের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাফিয়া খানম। বিশেষ অতিথি ছিলেন রংপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি রশীদ বাবু, রংপুর প্রেস ক্লাব সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্যসচিব রফিক সরকার।

সাফিয়া খানম বলেন, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম কখনও অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেননি। সাহসের সঙ্গে তিনি সমাজের অন্যায়- অত্যাচার আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন। দেশের অর্থনৈতিক কার্মকাণ্ডের ভিত্তি শক্তহাতে নির্মাণের কারিগর ছিলেন। দেশে লাখো মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছেন। তিনি দেশের অর্থ পাচার করে বিদেশের মাটিতে কোনো শিল্পপ্রতিষ্ঠান করেননি। একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক শিল্পোদ্যোক্তা ছিলেন। শুধু তাই নয়, গণমাধ্যমও যে শিল্প-তার অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করে যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের মাধ্যমে সমাজের নিপীড়িত মানুষের পক্ষে সংবাদ প্রচারের জন্য তিনি উৎসাহিত করতেন। সাহসী এ শিল্পোদ্যোক্তা ৪১টি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের শিক্ষিত বেকার যুবসমাজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে তাদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। ১৯৭১ সালে রণাঙ্গনে বীরের মতো যুদ্ধ করেছেন। দেশের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য আজীবন সততার সঙ্গে সংগ্রাম করে গেছেন। এ কারণে তিনি মানুষের ভালোবাসা জয় করে নিয়েছেন। শোকসভায় বক্তারা আরও বলেন, দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্পপতি হয়েও তিনি সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। নিরহংকারী এ মানুষটির মৃত্যুতে জাতি একজন দেশপ্রেমিক শিল্পোদ্যোক্তাকে হারিয়েছে।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন রংপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি রশীদ বাবু, রংপুর প্রেস ক্লাব কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্যসচিব রফিক সরকার, দৈনিক খোলাকাগজের রংপুর অফিস প্রধান সুশান্ত ভৌমিক, মানবজমিন রংপুর ব্যুরো প্রধান জাবেদ ইকবাল, রংপুর ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম জীবন, স্বজন সমাবেশ জেলা কমিটির সদস্যসচিব হারুন-উর রশিদ সোহেল।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সময়ের আলোর রংপুর প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান আফজাল, রংপুর ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আদর রহমান, দৈনিক যুগান্তরের ফটোসাংবাদিক উদয় চন্দ্র বর্মন, আমাদের প্রতিদিন পত্রিকার বার্তা সম্পাদক সৈয়দ বোরহান কবির বিপ্লব, ফটোসাংবাদিক রণজিৎ দাস, বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন রংপুরের কোষাধ্যক্ষ ইমরোজ হোসেন ইমু, দফতর সম্পাদক মেজবাহুল হিমেল, দৈনিক সাইফের মহানগর প্রতিনিধি আপেল মাহমুদ, দৈনিক দাবানলের প্রতিনিধি সুমন ইসলাম, দৈনিক পরিবেশের প্রতিনিধি রাব্বী, সদর উপজেলা প্রেস ক্লাবের সদস্য মোস্তাফিজার রহমান প্রমুখ।

রংপুরে শোকসভা

তিনি ছিলেন দেশপ্রেমিক সফল শিল্পোদ্যোক্তা

 রংপুর ব্যুরো 
৩০ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক সফল শিল্পোদ্যোক্তা। তিনি দেশমাতৃকার মুক্তির সংগ্রামে সম্মুখ যোদ্ধা ছিলেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নেও তার ভূমিকা ছিল অবিস্মরণীয়। সততার সঙ্গে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার এক অনন্য কারিগর তিনি।

রংপুর জেলা পরিষদ কমিউনিটি সেন্টারে বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামের মৃত্যুতে যুগান্তর রংপুর ব্যুরো অফিস ও স্বজন সমাবেশের আয়োজনে বুধবার এক শোকসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। যুগান্তর রংপুর ব্যুরো প্রধান মাহবুব রহমানের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাফিয়া খানম। বিশেষ অতিথি ছিলেন রংপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি রশীদ বাবু, রংপুর প্রেস ক্লাব সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্যসচিব রফিক সরকার।

সাফিয়া খানম বলেন, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম কখনও অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেননি। সাহসের সঙ্গে তিনি সমাজের অন্যায়- অত্যাচার আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন। দেশের অর্থনৈতিক কার্মকাণ্ডের ভিত্তি শক্তহাতে নির্মাণের কারিগর ছিলেন। দেশে লাখো মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছেন। তিনি দেশের অর্থ পাচার করে বিদেশের মাটিতে কোনো শিল্পপ্রতিষ্ঠান করেননি। একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক শিল্পোদ্যোক্তা ছিলেন। শুধু তাই নয়, গণমাধ্যমও যে শিল্প-তার অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করে যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের মাধ্যমে সমাজের নিপীড়িত মানুষের পক্ষে সংবাদ প্রচারের জন্য তিনি উৎসাহিত করতেন। সাহসী এ শিল্পোদ্যোক্তা ৪১টি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের শিক্ষিত বেকার যুবসমাজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে তাদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। ১৯৭১ সালে রণাঙ্গনে বীরের মতো যুদ্ধ করেছেন। দেশের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য আজীবন সততার সঙ্গে সংগ্রাম করে গেছেন। এ কারণে তিনি মানুষের ভালোবাসা জয় করে নিয়েছেন। শোকসভায় বক্তারা আরও বলেন, দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্পপতি হয়েও তিনি সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। নিরহংকারী এ মানুষটির মৃত্যুতে জাতি একজন দেশপ্রেমিক শিল্পোদ্যোক্তাকে হারিয়েছে।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন রংপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি রশীদ বাবু, রংপুর প্রেস ক্লাব কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্যসচিব রফিক সরকার, দৈনিক খোলাকাগজের রংপুর অফিস প্রধান সুশান্ত ভৌমিক, মানবজমিন রংপুর ব্যুরো প্রধান জাবেদ ইকবাল, রংপুর ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম জীবন, স্বজন সমাবেশ জেলা কমিটির সদস্যসচিব হারুন-উর রশিদ সোহেল।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সময়ের আলোর রংপুর প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান আফজাল, রংপুর ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আদর রহমান, দৈনিক যুগান্তরের ফটোসাংবাদিক উদয় চন্দ্র বর্মন, আমাদের প্রতিদিন পত্রিকার বার্তা সম্পাদক সৈয়দ বোরহান কবির বিপ্লব, ফটোসাংবাদিক রণজিৎ দাস, বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন রংপুরের কোষাধ্যক্ষ ইমরোজ হোসেন ইমু, দফতর সম্পাদক মেজবাহুল হিমেল, দৈনিক সাইফের মহানগর প্রতিনিধি আপেল মাহমুদ, দৈনিক দাবানলের প্রতিনিধি সুমন ইসলাম, দৈনিক পরিবেশের প্রতিনিধি রাব্বী, সদর উপজেলা প্রেস ক্লাবের সদস্য মোস্তাফিজার রহমান প্রমুখ।