সিলেটে গরুর চামড়ার দাম ২০ টাকা, খাসির ফ্রি

  সিলেট ব্যুরো ০৫ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেটে ছোট ও মাঝারি আকারের গরুর চামড়া সর্বনিু ২০ টাকায় এবং বড় আকারের গরুর চামড়া সর্বোচ্চ ৭০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বেশি দামের আশায় যারা শহর-বন্দর-নগর, গ্রাম-গঞ্জ থেকে চামড়া সংগ্রহ করেছিলেন তারা চরম আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছেন। পবিত্র ঈদুল আজহায় সিলেটে প্রায় দুই লাখ পশু কোরবানি হয়েছে। বিভিন্ন এলাকা থেকে চামড়া সংগ্রহ করে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা নগরীর তালতলা, রেজিস্ট্রি মাঠ, কিনব্রিজের উত্তর ও দক্ষিণ পাড়, আম্বরখানা এবং ভার্তখলা আড়তে নিয়ে হাজির হন। কিন্তু তারা উপযুক্ত দামে চামড়া বিক্রি করতে পারেননি। শনিবার বিকাল থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায় গরুর চামড়া পানির দরে বিক্রি হতে। এবারও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত দামে চামড়া কিনতে ক্রেতা পাওয়া যায়নি। আর খাসি-বকরির চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীরা আগ্রহ দেখাননি। এ কারণে সিলেটে ছাগলের চামড়া পাইকারি ব্যবসায়ীদের অনেকে ফ্রি দিয়েছেন। আবার অনেকে চামড়া বিক্রি করতে না পেরে মাটিতে পুঁতে ফেলেছেন। নগরীর উপশহরের বাসিন্দা আবদুল আহাদ জানান, কোরবানি দেয়া তিনটি খাসির চামড়া বিক্রি করতে না পেরে রেজিস্ট্রি মাঠের সামনে রেখে এসেছি। কানাইঘাটের কোরবানিদাতারা বলেন, কোরবানি পশুর চামড়া নিয়ে দিনভর অপেক্ষা করলেও ক্রেতারা আসেননি।

আবার অন্য বছর স্থানীয় মাদ্রাসা কিংবা এতিমখানা চামড়া নিলেও এবার তারাও নেয়নি। সংরক্ষণের জায়গা না থাকায় চামড়াগুলো মাটিতে পুঁতে ফেলেছি। গত বছর বিভিন্ন এলাকায় অনেক চামড়া ব্যবসায়ী এক প্রকার পানির দামে চামড়া ক্রয় করলেও এ বছর কানাইঘাট উপজেলার কোথাও কোনো চামড়া ব্যবসায়ীকে দেখা যায়নি। ফলে লাখ লাখ টাকার চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়েছে।

রেজিস্ট্রি মাঠে এক আড়তদার বলেন, ছোট গরুর চামড়া কেনাও তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। এ অবস্থায় ছাগলের চামড়া কিনে কী করবেন? গরুর চামড়ার সঙ্গে অনেকে ছাগলের চামড়া যারা নিয়ে এসেছেন, তারা ফ্রি দিয়ে গেছেন। দু’জন মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ী জানান, ছাগলের চামড়ার সর্বোচ্চ দাম ১০ টাকা পেয়েছেন। খুচরা চামড়া ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম বলেন, দেড়শ’ থেকে ২০০ টাকা দামে বাসাবাড়ি থেকে একেকটি চামড়া কিনেছেন। কিন্তু পাইকারি ব্যবসায়ীরা নানা কারণ দেখিয়ে দাম বেশি দিতে নারাজ। এতে তিনিসহ খুচরা ও মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীকে বড় ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে।

সদর উপজেলার মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ী আশরাফ হোসেন বলেন, গরুর এক পিস চামড়া ২০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০০ টাকায় বিক্রি করতে পেরেছেন। অথচ গাড়িভাড়া দিয়ে চামড়া কিনে এনেছি অনেক বেশি দামে। তিনি বলেন, ২০০ টাকা দিয়ে কেনা এক পিস চামড়া পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে ৫০-৭০ টাকায় বিক্রি করতে হয়েছে। সিলেটের চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছমির আলী যুগান্তরকে বলেন, গত বছরও (দাম না পাওয়ায়) অনেক চামড়া নষ্ট হয়েছে। হাজার হাজার চামড়া সুরমা নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়েছিল। এ বছরও প্রচুর চামড়া নষ্ট হবে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত