চট্টগ্রামে ময়লার ভাগাড়ে ৭০ হাজার চামড়া

মাটি চাপা দেয়া হয় ৯০ ভাগ ছাগলের চামড়া * সিন্ডিকেটের কারণে দাম পাওয়া যায়নি

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ০৫ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এবারও চট্টগ্রামে কোরবানির প্রায় ৭০ হাজার পশুর চামড়া ফেলে দেয়া হয়েছে আবর্জনার ভাগাড়ে। অনেকেই মাটি চাপা দিয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে, আড়তদাররা প্র্রথমে অনীহা দেখান, পরে প্রতি পিস ৬০ থেকে সর্বোচ্চ ৩০০ টাকায় কিনে নেন। এতে লোকসানে পড়েন মৌসুমি বিক্রেতারা। তাদের অনেকেই রাগে-ক্ষোভে চামড়া রাস্তায় ফেলে দেন- যা পরবর্তীতে আবর্জনার ভাগাড়ে গেছে। ছাগলের চামড়া কেউ কিনেননি। ৯০ ভাগ ছাগলের চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়েছে। চসিকের উপ-প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোরশেদুল আলম যুগান্তরকে জানান, ‘আড়তদারদের গাফিলতির কারণে উপজেলা থেকে আনা কিছু চামড়া নষ্ট হয়েছে। সেজন্য অনেকে চামড়া বিক্রি না করে রাস্তায় ফেলে চলে গেছে। আড়তদারদের কেনা কিছু চামড়াও নষ্ট হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ, সরকার সব পক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। কিন্তু আড়তদাররা সিন্ডিকেট করে বেঁধে দেয়া দামে চামড়া কিনেননি। যে কারণে চট্টগ্রামে চামড়া রাস্তায় ফেলে দিতে হয়েছে। মাটিতে পুঁতে ফেলতে হয়েছে মৌসুমি ব্যবসায়ী ও কোরবানিদাতাদের। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা বিভাগ জানিয়েছে, এবার নগরীর কাঁচা চামড়ার আড়ত আতুরার ডিপো, হামজার বাগসহ কয়েকটি স্থানে পরিত্যক্ত অবস্থায় কোরবানি পশুর বিপুল পরিমাণ চামড়া পাওয়া যায়। পরে সেগুলো ডাম্পিং করা হয়। চট্টগ্রামের আড়তদাররা এ বছর স্থানীয়ভাবে ৪ লাখ গরু, ১ লাখ ছাগল, ১৫ হাজার মহিষ ও ১৫ হাজার ভেড়ার চামড়া সংগ্রহের টার্গেট করেছিলেন। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতিতে কোরবানি কম হওয়ায় গরুর ১ লাখ পিস চামড়া কম সংগ্রহ হয়েছে।

এছাড়া ছাগল-ভেড়ার চামড়া কিনা হয়নি বলে জানিয়েছে চট্টগ্রাম কাঁচা চামড়া আড়তদার ব্যবসায়ী সমিতি।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত