বাজার ঠিক রাখতে পেঁয়াজ আমদানি করতে দিতে হবে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপি বলেছেন, বাজার স্বাভাবিক রাখতে ব্যবসায়ীদের পেঁয়াজ আমদানি করতে দিতে হবে। ব্যবসায়ীদের আমদানির সব খরচসহ নির্দিষ্ট ব্যবসা নিশ্চিত করে বিক্রিতে প্রয়োজনে সরকারিভাবে তদারকি থাকতে পারে। এতে আমদানি বাড়বে এবং বাজার স্বাভাবিক থাকবে। টিসিবির মাধ্যমে পেঁয়াজ সরবরাহ কিংবা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আমদানি করে বাজার স্বাভাবিক রাখা সম্ভব নয়।

বুধবার জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে জাতীয় সড়ক পরিবহন মোটর শ্রমিক ফেডারেশনের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় সড়ক পরিবহন মোটর শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ও জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাকুর রহমান মোস্তাকের সভাপতিত্বে এ সভায় জিএম কাদের আরও বলেন, শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলের নামে হাজার কোটি টাকা কিছু সংখ্যক মানুষ লুটপাট করেছে।

সাধারণ শ্রমিকদের ভাগ্য উন্নয়নে শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের টাকা কখনই ব্যয় হয়নি। তাই শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের অডিট হওয়া জরুরি। সরকারিভাবেই শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের টাকা সংগ্রহ করে শ্রমিকদের কল্যাণে খরচ করা যেতে পারে। তিনি বলেন, শ্রমিকদের নামে ওঠা চাঁদায় অনেকেই দেশে অট্টালিকা তৈরি করছেন। কারও কারও অট্টালিকা বিদেশেও আছে। চাঁদার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে খুনোখুনি পর্যন্ত হয়। শুধু ভাগ্য ফেরে না হতভাগ্য শ্রমিকদের।

দেশের শ্রমিক সংগঠনগুলো সরকার নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। বরং শ্রমিক সংগঠনগুলোই অনেকাংশে সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করতে চেষ্টা করছে। এটা আমাদের জন্য দুর্ভাগ্যজনক। এসময় আরও বক্তৃতা করেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আজম খান, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) আবদুস সালাম, আহসান আদেলুর রহমান এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু, কেন্দ্রীয় নেতা এমএ রাজ্জাক খান।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত