কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ করতে ১২ সুপারিশ
jugantor
গোয়েন্দা প্রতিবেদন
কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ করতে ১২ সুপারিশ

  সিরাজুল ইসলাম  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে কিশোর গ্যাং সদস্যদের অপরাধমূলক কমকাণ্ড আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। আর এতে হুমকির মুখে পড়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থতি। শুধু রাজধানীর ১০ থানা এলাকাতেই ৩২টি কিশোর গ্যাংয়ের ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ সদস্য অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত রয়েছে। এখনই তাদের নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি হতে পারে। সম্প্রতি সরকারের একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরে কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে ১২ দফা সুপারিশ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে কিশোর গ্যাংয়ের তৎপরতা নিয়ন্ত্রণে আনতে ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা দেয়া, জুমার খুতবায় কিশোর অপরাধের ভয়াবহতা সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতন করা এবং কিশোরদের নিয়মিত কাউন্সেলিং করা। প্রতিবেদনটি এরই মধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোতে পাঠানো হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ৪ মাসে কিশোর সন্ত্রাসীদের হাতে ১৩টি চাঞ্চল্যকর খুনের ঘটনা ঘটেছে। এতে সমাজে অস্থিরতাসহ এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। গ্রেফতার করেও গ্যাং সদস্যদের তৎপরতা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। করোনাভাইরাস পরিস্থিতে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় এবং কর্মজীবী কিশোররা তাদের কর্মস্থান হারিয়ে অধিকতর বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সবশেষ শুক্রবার সাতক্ষীরায় কিশোর গ্যাং সদস্যদের চাপাতির কোপে চার আঙুল হারিয়েছেন যুবলীগ নেতা মুজাহিদুর রহমান অন্তু।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের কারণে ২৫ মার্চ গার্মেন্ট ও শিল্প কারখানা বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। বর্তমানে কলকারখানা চালু হলেও দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ কারণে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার চাপ নেই। আবার অনেক কিশোর করোনার কারণে কর্মসংস্থান হারিয়েছে। একদিকে স্কুল-কলেজ বন্ধ, অপরদিকে অনেক কিশোর বেকার হয়ে পড়ায় তারা একত্রে পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে আড্ডা জমাচ্ছে। নিজেদের গ্রুপ ভারি করার জন্য তারা উঠতি বয়সী কিশোরদের দলে টানছে। পাড়া-মহল্লায় নারী ও কিশোরী মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার পাশাপাশি এলাকায় প্রভাব বিস্তার করতে অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে কিশোররা। সামান্য কারণে খুনের মতো ঘটনাও ঘটাচ্ছে তারা। শুধু ঢাকার ডেমরা, সূত্রাপুর, সবুজবাগ, খিলক্ষেত, কোতোয়ালি, উত্তরা পশ্চিম, তুরাগ, খিলগাঁও, দক্ষিণখান ও টঙ্গী থানা এলাকায় ৩২টি কিশোর গ্যাংয়ের ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ সদস্য বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত। একই স্কুলে অধ্যয়নরত ও একই পাড়া-মহল্লায় বসবাসরত কিশোর-তরুণরা ফেসবুকসহ বিভিন্ন ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাহারি ও চটকদার নাম দিয়ে ভিন্ন ভিন্ন গ্যাং তৈরি করছে। মোড়ে মোড়ে আড্ডা দেয়ার পাশাপাশি তাদের মধ্যে ইন্টারনেটে অশ্লীল ছবি দেখার প্রবণতাও বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া আধিপত্য বিস্তারসহ নানা কারণে কিশোর গ্যাং সদস্যরা একে অপরের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়ছে, যা খুবই উদ্বেগজনক। প্রতিবেদনে বলা হয়, কিশোর সন্ত্রাসীরা কখনও রাজনৈতিক ছত্রছায়ায়, আবার কখনও বড় মাপের সন্ত্রাসীদের ছত্রছায়ায় অবস্থান করে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। তাদের কারণে সমাজে শান্তিশৃঙ্খলা ও সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। রাস্তাঘাটে প্রকাশ্যে ছিনতাই, ছাত্রী অপহরণ, এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় কিশোরী-তরুণীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

প্রতিবেদনের সুপারিশে বলা হয়, শিশু-কিশোরদের মানসিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশে অভিভাবকদের আরাও যত্নবান হওয়ার পাশাপাশি ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা দিতে হবে। পারিবারিক বন্ধন জোরদারের পাশাপাশি সন্তানরা কোথায় যাচ্ছে, কি করছে, কাদের সঙ্গে মিশছে- এ ব্যাপারে নিয়মিত খোঁজ রাখতে হবে। খারাপ প্রকৃতির ছেলেদের সঙ্গে সন্তানকে না মেশার জন্য পরামর্শ দিতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বেশি করে খেলাধুলা, সংস্কৃতি চর্চা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে হবে। স্কুল-কলেজে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন পরিচালনার পাশাপাশি শিক্ষকদের মোটিভেশনাল ভূমিকা রাখতে হবে। গণমাধ্যমে শিশু-কিশোরদের মানসিক বিকাশে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ ও অনুষ্ঠান পরিচালনার ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সুবিধাবঞ্চিত ও দরিদ্র শিশু-কিশোরদের সুশিক্ষার ব্যবস্থা কররতে হবে। কিশোর-তরুণদের গ্যাং কালচারের বিরুদ্ধে সামাজিকভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ কর্তৃক কিশোর গ্যাং নির্মূলে হটস্পট চিহ্নিত করে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করাসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। স্থানীয় রাজনীতিবিদরা যেন কিশোরদের বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করতে না পারেন সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। কমিউনিটি পুলিশিং, বিট পুলিশিং কার্যক্রম জোরদারসহ গ্যাং শনাক্তকরণে পাড়া-মহল্লায় অভিভাবকসহ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গন্যমাধ্যম ব্যাক্তিদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীরা যাতে লেখাপড়ার বাইরে অন্য কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে না পারে সে ব্যাপারে অভিভাবকদের সতর্ক থাকতে হবে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে বিরোধের জেরে ১০ আগস্ট নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা কদমরসুল কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী মিনহাজুল ইসলাম ওরফে নিহাদ (১৮) ও বিএম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র জিসান আহম্মেদকে খুন করে। এর আগের মাসে কামরাঙ্গীরচরে সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে খুন হয় সজিব নামে এক কিশোর। ৮ সেপ্টেম্বর সবুজবাগ এলাকায় ১৪ বছর বয়সী কিশোরের ছুরিকাঘাতে জব্বার আলী নামে আরেক কিশোর খুন হয়। ২৭ আগস্ট উত্তরখানের খ্রিস্টানপাড়া ডাক্তার বাড়ি মোড় এলাকায় কিশোর সোহাগের পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে সমবয়সীরা। ১ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার আদর্শনগর এলাকায় ৩০ বছর বয়সী শরিফ হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ২৩ ফেব্রুয়ারি তেজগাঁও কৃষি প্রশিক্ষণায়তনের সামনে কিশোর গ্যাংয়ের হাতে হাসান (১৮) নামে এক যুবক খুন হয়।

গোয়েন্দা প্রতিবেদন

কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ করতে ১২ সুপারিশ

 সিরাজুল ইসলাম 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে কিশোর গ্যাং সদস্যদের অপরাধমূলক কমকাণ্ড আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। আর এতে হুমকির মুখে পড়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থতি। শুধু রাজধানীর ১০ থানা এলাকাতেই ৩২টি কিশোর গ্যাংয়ের ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ সদস্য অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত রয়েছে। এখনই তাদের নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি হতে পারে। সম্প্রতি সরকারের একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরে কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে ১২ দফা সুপারিশ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে কিশোর গ্যাংয়ের তৎপরতা নিয়ন্ত্রণে আনতে ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা দেয়া, জুমার খুতবায় কিশোর অপরাধের ভয়াবহতা সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতন করা এবং কিশোরদের নিয়মিত কাউন্সেলিং করা। প্রতিবেদনটি এরই মধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোতে পাঠানো হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ৪ মাসে কিশোর সন্ত্রাসীদের হাতে ১৩টি চাঞ্চল্যকর খুনের ঘটনা ঘটেছে। এতে সমাজে অস্থিরতাসহ এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। গ্রেফতার করেও গ্যাং সদস্যদের তৎপরতা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। করোনাভাইরাস পরিস্থিতে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় এবং কর্মজীবী কিশোররা তাদের কর্মস্থান হারিয়ে অধিকতর বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সবশেষ শুক্রবার সাতক্ষীরায় কিশোর গ্যাং সদস্যদের চাপাতির কোপে চার আঙুল হারিয়েছেন যুবলীগ নেতা মুজাহিদুর রহমান অন্তু।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের কারণে ২৫ মার্চ গার্মেন্ট ও শিল্প কারখানা বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। বর্তমানে কলকারখানা চালু হলেও দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ কারণে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার চাপ নেই। আবার অনেক কিশোর করোনার কারণে কর্মসংস্থান হারিয়েছে। একদিকে স্কুল-কলেজ বন্ধ, অপরদিকে অনেক কিশোর বেকার হয়ে পড়ায় তারা একত্রে পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে আড্ডা জমাচ্ছে। নিজেদের গ্রুপ ভারি করার জন্য তারা উঠতি বয়সী কিশোরদের দলে টানছে। পাড়া-মহল্লায় নারী ও কিশোরী মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার পাশাপাশি এলাকায় প্রভাব বিস্তার করতে অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে কিশোররা। সামান্য কারণে খুনের মতো ঘটনাও ঘটাচ্ছে তারা। শুধু ঢাকার ডেমরা, সূত্রাপুর, সবুজবাগ, খিলক্ষেত, কোতোয়ালি, উত্তরা পশ্চিম, তুরাগ, খিলগাঁও, দক্ষিণখান ও টঙ্গী থানা এলাকায় ৩২টি কিশোর গ্যাংয়ের ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ সদস্য বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত। একই স্কুলে অধ্যয়নরত ও একই পাড়া-মহল্লায় বসবাসরত কিশোর-তরুণরা ফেসবুকসহ বিভিন্ন ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাহারি ও চটকদার নাম দিয়ে ভিন্ন ভিন্ন গ্যাং তৈরি করছে। মোড়ে মোড়ে আড্ডা দেয়ার পাশাপাশি তাদের মধ্যে ইন্টারনেটে অশ্লীল ছবি দেখার প্রবণতাও বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া আধিপত্য বিস্তারসহ নানা কারণে কিশোর গ্যাং সদস্যরা একে অপরের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়ছে, যা খুবই উদ্বেগজনক। প্রতিবেদনে বলা হয়, কিশোর সন্ত্রাসীরা কখনও রাজনৈতিক ছত্রছায়ায়, আবার কখনও বড় মাপের সন্ত্রাসীদের ছত্রছায়ায় অবস্থান করে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। তাদের কারণে সমাজে শান্তিশৃঙ্খলা ও সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। রাস্তাঘাটে প্রকাশ্যে ছিনতাই, ছাত্রী অপহরণ, এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় কিশোরী-তরুণীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

প্রতিবেদনের সুপারিশে বলা হয়, শিশু-কিশোরদের মানসিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশে অভিভাবকদের আরাও যত্নবান হওয়ার পাশাপাশি ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা দিতে হবে। পারিবারিক বন্ধন জোরদারের পাশাপাশি সন্তানরা কোথায় যাচ্ছে, কি করছে, কাদের সঙ্গে মিশছে- এ ব্যাপারে নিয়মিত খোঁজ রাখতে হবে। খারাপ প্রকৃতির ছেলেদের সঙ্গে সন্তানকে না মেশার জন্য পরামর্শ দিতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বেশি করে খেলাধুলা, সংস্কৃতি চর্চা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে হবে। স্কুল-কলেজে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন পরিচালনার পাশাপাশি শিক্ষকদের মোটিভেশনাল ভূমিকা রাখতে হবে। গণমাধ্যমে শিশু-কিশোরদের মানসিক বিকাশে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ ও অনুষ্ঠান পরিচালনার ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সুবিধাবঞ্চিত ও দরিদ্র শিশু-কিশোরদের সুশিক্ষার ব্যবস্থা কররতে হবে। কিশোর-তরুণদের গ্যাং কালচারের বিরুদ্ধে সামাজিকভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ কর্তৃক কিশোর গ্যাং নির্মূলে হটস্পট চিহ্নিত করে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করাসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। স্থানীয় রাজনীতিবিদরা যেন কিশোরদের বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করতে না পারেন সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। কমিউনিটি পুলিশিং, বিট পুলিশিং কার্যক্রম জোরদারসহ গ্যাং শনাক্তকরণে পাড়া-মহল্লায় অভিভাবকসহ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গন্যমাধ্যম ব্যাক্তিদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীরা যাতে লেখাপড়ার বাইরে অন্য কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে না পারে সে ব্যাপারে অভিভাবকদের সতর্ক থাকতে হবে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে বিরোধের জেরে ১০ আগস্ট নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা কদমরসুল কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী মিনহাজুল ইসলাম ওরফে নিহাদ (১৮) ও বিএম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র জিসান আহম্মেদকে খুন করে। এর আগের মাসে কামরাঙ্গীরচরে সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে খুন হয় সজিব নামে এক কিশোর। ৮ সেপ্টেম্বর সবুজবাগ এলাকায় ১৪ বছর বয়সী কিশোরের ছুরিকাঘাতে জব্বার আলী নামে আরেক কিশোর খুন হয়। ২৭ আগস্ট উত্তরখানের খ্রিস্টানপাড়া ডাক্তার বাড়ি মোড় এলাকায় কিশোর সোহাগের পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে সমবয়সীরা। ১ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার আদর্শনগর এলাকায় ৩০ বছর বয়সী শরিফ হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ২৩ ফেব্রুয়ারি তেজগাঁও কৃষি প্রশিক্ষণায়তনের সামনে কিশোর গ্যাংয়ের হাতে হাসান (১৮) নামে এক যুবক খুন হয়।