নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ বিএনপি নেতাসহ ৩ জন
jugantor
বগুড়া বার সমিতি
নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ বিএনপি নেতাসহ ৩ জন

  বগুড়া ব্যুরো  

০২ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বগুড়া অ্যাডভোকেটস বার সমিতির ফান্ডের অর্থ আত্মসাৎ করায় জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক পিপি একেএম সাইফুল ইসলামসহ তিনজনকে সমিতির নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে আত্মসাৎ ও আর্থিক ক্ষতির টাকা পরিশোধের নির্দেশ এবং এক সপ্তাহের জন্য সদস্যপদ স্থগিত করা হয়। বুধবার সন্ধ্যায় সমিতির সাধারণ সভা শেষে এ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়। বার সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। অভিযুক্ত অন্য দু’জন হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক।

বগুড়া অ্যাডভোকেটস বার সমিতির নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক একেএম সাইফুল ইসলাম ২০১৮ সালে সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি বার ভবনের সামনে প্রবেশ পথে টিনের ছাউনি নির্মাণ, ড্রেনের স্লাব, লাইব্রেরিতে বিদ্যুতের কাজ, সিমেন্ট ক্রয়, বৈদ্যুতিক ডাবল লাইনের সংযোগসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ করেন। বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার ক্রয় দেখানো হলেও নেসকো এর বিনিময়ে কোনো টাকা নেয়নি। তখন তার বিরুদ্ধে ৫ লাখ ২৬ হাজার ৫২২ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে। সাধারণ সভায় তাকে শোকজ, দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকাসহ বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি ও অডিট টিম অভিযোগের সত্যতা পায়। অন্যদিকে ২০১৭ সালে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল সভাপতি ও জামায়াত-বিএনপি সমর্থিত প্যানেলের মোজাম্মেল হক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তারা ওই সময় সমিতির বিপুল অঙ্কের টাকা সিদ্ধান্তের বাইরে নিজেদের পছন্দে ব্যাংক এশিয়ায় সঞ্চয় করেন। সেখানে কম সুদে টাকা জমা রাখায় সমিতির এক লাখ তিন হাজার টাকার ক্ষতি হয়।

বগুড়া অ্যাডভোকেটস বার সমিতির সভাপতি গোলাম ফারুক জানান, বুধবার সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সম্মতিতে সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম সাইফুল ইসলামকে তিন লাখ টাকা জরিমানা, সাত দিনের সদস্য পদ স্থগিত ও নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হককে যৌথভাবে এক লাখ তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তাদের সদস্য পদ সাতদিন স্থগিত ও সমিতির নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়। সাতদিনের মধ্যে জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অ্যাডভোকেট একেএম সাইফুল ইসলাম ও অ্যাডভোকেট লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল ফোন না ধরায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক জানান, তাদের বিরুদ্ধে আইনবহির্ভূক্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে তারা শিগগিরই আপিল করবেন।

বুধবার বেলা ২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক। বক্তব্য দেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম, পিপি আবদুল মতিন, সাবেক পিপি রেজাউল করিম মন্টু, অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান প্রমুখ।

বগুড়া বার সমিতি

নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ বিএনপি নেতাসহ ৩ জন

 বগুড়া ব্যুরো 
০২ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বগুড়া অ্যাডভোকেটস বার সমিতির ফান্ডের অর্থ আত্মসাৎ করায় জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক পিপি একেএম সাইফুল ইসলামসহ তিনজনকে সমিতির নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে আত্মসাৎ ও আর্থিক ক্ষতির টাকা পরিশোধের নির্দেশ এবং এক সপ্তাহের জন্য সদস্যপদ স্থগিত করা হয়। বুধবার সন্ধ্যায় সমিতির সাধারণ সভা শেষে এ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়। বার সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। অভিযুক্ত অন্য দু’জন হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক।

বগুড়া অ্যাডভোকেটস বার সমিতির নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক একেএম সাইফুল ইসলাম ২০১৮ সালে সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি বার ভবনের সামনে প্রবেশ পথে টিনের ছাউনি নির্মাণ, ড্রেনের স্লাব, লাইব্রেরিতে বিদ্যুতের কাজ, সিমেন্ট ক্রয়, বৈদ্যুতিক ডাবল লাইনের সংযোগসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ করেন। বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার ক্রয় দেখানো হলেও নেসকো এর বিনিময়ে কোনো টাকা নেয়নি। তখন তার বিরুদ্ধে ৫ লাখ ২৬ হাজার ৫২২ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে। সাধারণ সভায় তাকে শোকজ, দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকাসহ বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি ও অডিট টিম অভিযোগের সত্যতা পায়। অন্যদিকে ২০১৭ সালে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল সভাপতি ও জামায়াত-বিএনপি সমর্থিত প্যানেলের মোজাম্মেল হক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তারা ওই সময় সমিতির বিপুল অঙ্কের টাকা সিদ্ধান্তের বাইরে নিজেদের পছন্দে ব্যাংক এশিয়ায় সঞ্চয় করেন। সেখানে কম সুদে টাকা জমা রাখায় সমিতির এক লাখ তিন হাজার টাকার ক্ষতি হয়।

বগুড়া অ্যাডভোকেটস বার সমিতির সভাপতি গোলাম ফারুক জানান, বুধবার সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সম্মতিতে সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম সাইফুল ইসলামকে তিন লাখ টাকা জরিমানা, সাত দিনের সদস্য পদ স্থগিত ও নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হককে যৌথভাবে এক লাখ তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তাদের সদস্য পদ সাতদিন স্থগিত ও সমিতির নির্বাচনে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়। সাতদিনের মধ্যে জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অ্যাডভোকেট একেএম সাইফুল ইসলাম ও অ্যাডভোকেট লুৎফে গালিব আল জাহিদ মৃদুল ফোন না ধরায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক জানান, তাদের বিরুদ্ধে আইনবহির্ভূক্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে তারা শিগগিরই আপিল করবেন।

বুধবার বেলা ২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক। বক্তব্য দেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম, পিপি আবদুল মতিন, সাবেক পিপি রেজাউল করিম মন্টু, অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান প্রমুখ।