গোদাগাড়ীতে বেপরোয়া ছাত্রলীগ নেতা আরব
jugantor
গোদাগাড়ীতে বেপরোয়া ছাত্রলীগ নেতা আরব
রাতভর জেলেকে নির্যাতন প্রধান শিক্ষককে মারধর

  রাজশাহী ব্যুরো  

৩০ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আরব আলী বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। মন চাইলেই তিনি যাকে ইচ্ছে তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেন। তার রয়েছে নিজস্ব বাহিনী। এলাকার সাধারণ মানুষ, দলীয় নেতাকর্মী এমনকি এ বাহিনীর নির্যাতনের হাত থেকে বাদ যাননি স্কুলের প্রধান শিক্ষকও।

সর্বশেষ রোববার রাতে নুরুল ইসলাম (২৬) নামে এক জেলেকে ধরে রাতভর নির্যাতন করেছে আরব আলী ও তার বাহিনী। পরে ১৫ হাজার টাকা আদায় করে তাকে ছাড়া হয়েছে। এ নিয়ে নুরুলের স্ত্রী শারমিন আকতার মঙ্গলবার গোদাগাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে পুলিশ কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। আরব তাকে বলেন, পদ্মায় মাছ ধরার নামে নুরুল মাদক পাচার করেন। তাই তাকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দিতে হবে। নুরুল বলেন, আরব ও তার সহযোগীরা রড, হকিস্টিক ও জিআই পাইপ দিয়ে আমাকে নির্যাতন করে। তাদের মারধরের কারণে জীবন বাঁচাতে আমি বাড়ি থেকে পরিবারের সদস্যদের ১৫ হাজার টাকা নিয়ে আসতে বলি। এ টাকা দিলে আরব আমাকে ভোরে ছেড়ে দেয়। কিন্তু এখন আরও ৩৫ হাজার টাকার জন্য আরব আমাকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন। গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ইসলাম বলেন, নুরুলের স্ত্রীর অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে একজন এএসআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আবারও আমি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেব।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, আরব আলী ছাত্রলীগে সাংগঠনিকভাবে নিষ্ক্রিয়। কিন্তু তার দাপটে গোটা পিরিজপুর গ্রামের মানুষ তটস্থ। এ গ্রামেই আরব আলীর বাড়ি। স্থানীয়রা আরও জানান, আরব নিয়মিত ফেনসিডিল সেবন করেন। ফেনসিডিলের টাকা জোগাড় করতে না পারলেই শুরু হয় চাঁদাবাজি। টাকার বিনিময়ে জমি দখল-পুকুর দখলের মতো কর্মকাণ্ড নিজস্ব বাহিনীকে নিয়ে করে দেন আরব আলী। আর পিরিজপুর মোড়ের শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান স্মৃতি সংসদকে তিনি নির্যাতনের কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করেন। ছাত্রলীগ নেতা আরব আলী অবশ্য এসব অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে চাননি। তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে বলেন, আমি এসব বিষয় মুখে বলব না। লিখিতভাবে গণমাধ্যমকে বিষয়গুলো অবহিত করব।

গোদাগাড়ীতে বেপরোয়া ছাত্রলীগ নেতা আরব

রাতভর জেলেকে নির্যাতন প্রধান শিক্ষককে মারধর
 রাজশাহী ব্যুরো 
৩০ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আরব আলী বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। মন চাইলেই তিনি যাকে ইচ্ছে তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেন। তার রয়েছে নিজস্ব বাহিনী। এলাকার সাধারণ মানুষ, দলীয় নেতাকর্মী এমনকি এ বাহিনীর নির্যাতনের হাত থেকে বাদ যাননি স্কুলের প্রধান শিক্ষকও।

সর্বশেষ রোববার রাতে নুরুল ইসলাম (২৬) নামে এক জেলেকে ধরে রাতভর নির্যাতন করেছে আরব আলী ও তার বাহিনী। পরে ১৫ হাজার টাকা আদায় করে তাকে ছাড়া হয়েছে। এ নিয়ে নুরুলের স্ত্রী শারমিন আকতার মঙ্গলবার গোদাগাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে পুলিশ কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। আরব তাকে বলেন, পদ্মায় মাছ ধরার নামে নুরুল মাদক পাচার করেন। তাই তাকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দিতে হবে। নুরুল বলেন, আরব ও তার সহযোগীরা রড, হকিস্টিক ও জিআই পাইপ দিয়ে আমাকে নির্যাতন করে। তাদের মারধরের কারণে জীবন বাঁচাতে আমি বাড়ি থেকে পরিবারের সদস্যদের ১৫ হাজার টাকা নিয়ে আসতে বলি। এ টাকা দিলে আরব আমাকে ভোরে ছেড়ে দেয়। কিন্তু এখন আরও ৩৫ হাজার টাকার জন্য আরব আমাকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন। গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ইসলাম বলেন, নুরুলের স্ত্রীর অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে একজন এএসআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আবারও আমি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেব।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, আরব আলী ছাত্রলীগে সাংগঠনিকভাবে নিষ্ক্রিয়। কিন্তু তার দাপটে গোটা পিরিজপুর গ্রামের মানুষ তটস্থ। এ গ্রামেই আরব আলীর বাড়ি। স্থানীয়রা আরও জানান, আরব নিয়মিত ফেনসিডিল সেবন করেন। ফেনসিডিলের টাকা জোগাড় করতে না পারলেই শুরু হয় চাঁদাবাজি। টাকার বিনিময়ে জমি দখল-পুকুর দখলের মতো কর্মকাণ্ড নিজস্ব বাহিনীকে নিয়ে করে দেন আরব আলী। আর পিরিজপুর মোড়ের শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান স্মৃতি সংসদকে তিনি নির্যাতনের কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করেন। ছাত্রলীগ নেতা আরব আলী অবশ্য এসব অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে চাননি। তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে বলেন, আমি এসব বিষয় মুখে বলব না। লিখিতভাবে গণমাধ্যমকে বিষয়গুলো অবহিত করব।