শিশু শম্পার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী
jugantor
শিশু শম্পার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

  জামালপুর প্রতিনিধি  

০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জামালপুরের ভ্যানচালক শিশু শম্পার পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে নির্দেশনা আসলে বুধবার সকালে জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ এনামুল হক ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফরিদা ইয়াছমিন শম্পাদের বাড়িতে যান। পরে তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে শম্পার পরিবারের থাকার জন্য একটি পাকাঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।

পরে শম্পার বাবা শফিকুল ইসলাম ওরফে ভাসানীর পায়ের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তত্ত্বাবধানে অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে (পঙ্গু হাসপাতাল) পাঠানো হয়।

জামালপুরের ডিসি মোহাম্মদ এনামুল হক জানান, প্রধানমন্ত্রী শিশু শম্পার পড়ালেখা ও তার পরিবারের জন্য বাসস্থান, তার বাবার চিকিৎসা এবং পরিবারের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা ঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছি। পাশাপাশি শম্পার বাবা ভাসানীকে তার পায়ের চিকিৎসার জন্য অ্যাম্বুলেন্সে করে পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রসঙ্গত, জামালপুরের নাকাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী শম্পা তার বাবার পায়ের চিকিৎসার জন্য দেড় বছর ধরে রিকশাভ্যান চালিয়ে টাকা রোজগার করে আসছিল। সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে একটি অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে তা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দৃষ্টিতে আসে। পরে সেখান থেকে নির্দেশনা পেয়ে জামালপুরের ডিসি খোঁজখবর নিয়ে এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠান। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশনা অনুযায়ী শম্পার বাবার চিকিৎসা, শম্পার পড়ালেখাসহ পরিবারটিকে স্বাবলম্বী করে তুলতে যা যা প্রয়োজন তা করা হবে বলে জানান ডিসি। এদিকে প্রধানমন্ত্রী শম্পার লেখাপড়া, ঘর নির্মাণ ও বাবার চিকিৎসাসহ তার পরিবারের দায়িত্ব নেয়ায় তারা অনেক খুশি হয়েছেন। একই সাথে তারা প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করেন।

শিশু শম্পার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

 জামালপুর প্রতিনিধি 
০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জামালপুরের ভ্যানচালক শিশু শম্পার পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে নির্দেশনা আসলে বুধবার সকালে জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ এনামুল হক ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফরিদা ইয়াছমিন শম্পাদের বাড়িতে যান। পরে তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে শম্পার পরিবারের থাকার জন্য একটি পাকাঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।

পরে শম্পার বাবা শফিকুল ইসলাম ওরফে ভাসানীর পায়ের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তত্ত্বাবধানে অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে (পঙ্গু হাসপাতাল) পাঠানো হয়।

জামালপুরের ডিসি মোহাম্মদ এনামুল হক জানান, প্রধানমন্ত্রী শিশু শম্পার পড়ালেখা ও তার পরিবারের জন্য বাসস্থান, তার বাবার চিকিৎসা এবং পরিবারের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা ঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছি। পাশাপাশি শম্পার বাবা ভাসানীকে তার পায়ের চিকিৎসার জন্য অ্যাম্বুলেন্সে করে পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রসঙ্গত, জামালপুরের নাকাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী শম্পা তার বাবার পায়ের চিকিৎসার জন্য দেড় বছর ধরে রিকশাভ্যান চালিয়ে টাকা রোজগার করে আসছিল। সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে একটি অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে তা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দৃষ্টিতে আসে। পরে সেখান থেকে নির্দেশনা পেয়ে জামালপুরের ডিসি খোঁজখবর নিয়ে এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠান। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশনা অনুযায়ী শম্পার বাবার চিকিৎসা, শম্পার পড়ালেখাসহ পরিবারটিকে স্বাবলম্বী করে তুলতে যা যা প্রয়োজন তা করা হবে বলে জানান ডিসি। এদিকে প্রধানমন্ত্রী শম্পার লেখাপড়া, ঘর নির্মাণ ও বাবার চিকিৎসাসহ তার পরিবারের দায়িত্ব নেয়ায় তারা অনেক খুশি হয়েছেন। একই সাথে তারা প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করেন।