মহাকবি মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী আজ
jugantor
মহাকবি মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী আজ

  কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অমিত্রাক্ষর ছন্দের জনক মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৭তম জন্মবার্ষিকী আজ। করোনা মহামারির কারণে এ বছর সীমিত আকারে দিনটি পালন করা হবে।

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় যশোর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১৯৯৪ সাল থেকে প্রতি বছর কেশবপুরের সাগরদাঁড়িতে কবির জন্মজয়ন্তী ও সাত দিনব্যাপী মধুমেলা আয়োজন করা হয়। মেলা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এমএম আরাফাত হোসেন জানান, এবার জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান ও মধুসূদনের জন্মবার্ষিকী পালন কমিটি এ মধুমেলা স্থগিত করেছে। কবির জন্মদিনে সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়েই এ উদযাপন শেষ করা হবে।

১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারি কপোতাক্ষ নদ তীরের সাগরদাঁড়ি গ্রামে জমিদার রাজ নারায়ণ দত্ত ও জাহ্নবী দেবীর পরিবারে জন্ম নেন মধুসূদন দত্ত। তিনি সনেট প্রবর্তনের মাধ্যমে বাংলাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিয়েছেন। তিনি সুদুর ফ্রান্সের ভার্সাই নগরীতে বসে মাতৃভাষা বাংলায় তার লেখনি কবিতা ও সাহিত্যের মাধ্যমে সবাইকে জানান দিয়েছেন আমি একজন বাঙালি। তার রচিত মেঘনাদবধ কাব্য, নাটক শর্মিষ্ঠা, বুড়ো শালিকের ঘাঁড়ে রো, কৃষ্ণকুমারী ব্যাপক সমাদৃত। ঋণ ও অসুস্থতায় মধুসূদন দত্তের শেষ জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছিল। ১৮৭৩ সালের ২৯ জুন কলকাতায় তিনি মাত্র ৪৯ বছর বয়সে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

মহাকবি মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী আজ

 কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অমিত্রাক্ষর ছন্দের জনক মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৭তম জন্মবার্ষিকী আজ। করোনা মহামারির কারণে এ বছর সীমিত আকারে দিনটি পালন করা হবে।

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় যশোর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১৯৯৪ সাল থেকে প্রতি বছর কেশবপুরের সাগরদাঁড়িতে কবির জন্মজয়ন্তী ও সাত দিনব্যাপী মধুমেলা আয়োজন করা হয়। মেলা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এমএম আরাফাত হোসেন জানান, এবার জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান ও মধুসূদনের জন্মবার্ষিকী পালন কমিটি এ মধুমেলা স্থগিত করেছে। কবির জন্মদিনে সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়েই এ উদযাপন শেষ করা হবে।

১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারি কপোতাক্ষ নদ তীরের সাগরদাঁড়ি গ্রামে জমিদার রাজ নারায়ণ দত্ত ও জাহ্নবী দেবীর পরিবারে জন্ম নেন মধুসূদন দত্ত। তিনি সনেট প্রবর্তনের মাধ্যমে বাংলাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিয়েছেন। তিনি সুদুর ফ্রান্সের ভার্সাই নগরীতে বসে মাতৃভাষা বাংলায় তার লেখনি কবিতা ও সাহিত্যের মাধ্যমে সবাইকে জানান দিয়েছেন আমি একজন বাঙালি। তার রচিত মেঘনাদবধ কাব্য, নাটক শর্মিষ্ঠা, বুড়ো শালিকের ঘাঁড়ে রো, কৃষ্ণকুমারী ব্যাপক সমাদৃত। ঋণ ও অসুস্থতায় মধুসূদন দত্তের শেষ জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছিল। ১৮৭৩ সালের ২৯ জুন কলকাতায় তিনি মাত্র ৪৯ বছর বয়সে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।